ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

যৌন কর্মীদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:২২ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শনিবার
যৌন কর্মীদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ

যৌন কর্মীদের প্রায় আশি শতাংশই চান এই জগৎ থেকে বেরিয়ে আসতে। কিন্তু তাদের বেশিরভাগই নিজেদেরকে নিরুপায় বলে মনে করেন। শহরকেন্দ্রিক যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়া নারীদের বেশিরভাগকেই জোরপূর্বক এই ব্যবসায় নামিয়ে দেয়া হয়। এদের বেশিরভাগই এখানে কাজ করতে অনাগ্রহী। এমন তথ্যই জানিয়েছেন হংকং ভিত্তিক সেবামূলক সংস্থা টিন`স কি এর প্রতিষ্ঠাতা বোয়ি ল্যাম।

ল্যাম মনে করেন, হংকংয়ে কয়েক হাজার তরুণী যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছেন। কিন্তু ইন্টারনেটের বদৌলতে তারা সহজেই পরিচয় লুকিয়ে এবং স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে। তাই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তথ্য সংগ্রহ করা কঠিন ব্যাপার। এই পেশায় শুরুর দিকে যৌনকর্মীরা মারাত্মক হেনস্তার শিকার হন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হেনস্তাকারী হিসেবে আবির্ভূত হয় পুলিশ।

যৌনকর্মীদের হেনস্তা, নারী পাচার এবং অভিবাসী যৌনকর্মীদের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও এসব ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীদের নিয়ে কাজ করে জি তেং। এক প্রতিবেদনে পুলিশ এবং খদ্দেরের হাতে যৌনকর্মীদের নির্যাতিত হওয়ার ৪০০ টিরও বেশি অভিযোগ পাওয়ার কথা জানায় জি তেং।

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগের মধ্যে রয়েছে- অশালীন আচরণ এবং সুবিধাজনক বিবৃতি দিতে বাধ্য করা। খদ্দেরদের বিরুদ্ধে রয়েছে শারীরিক নির্যাতন, ধর্ষণ এবং চুরির মতো অভিযোগ।

ল্যাম আরো জানান, বেশিরভাগ নারীকেই বাধ্য করে যৌন ব্যবসায় নামানো হয়। পাশাপাশি দেখানো হয় অর্থের লোভ। জীবনের শুরুর দিকে যথাযথ যৌন শিক্ষা না থাকায় দালালরা সহজেই তাদেরকে প্রলুব্ধ করতে পারে।

অমৃতবাজার/জয়