ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭ | ৫ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

মাতৃমৃত্যু হ্রাসে সম্মিলিত সহযোগিতার আহ্বান


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ১৬ জুলাই ২০১৭, রোববার
মাতৃমৃত্যু হ্রাসে সম্মিলিত সহযোগিতার আহ্বান

দেশে মাতৃমৃত্যুহার হ্রাসে সম্মিলিত সহযোগিতার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে বক্তারা বলেছেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জনে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়ে এটি অত্যন্ত প্রয়োজন। রাজধানীতে অনুষ্ঠিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।

তারা বলেন, চিকিৎসক, নার্স, ধাত্রী ও অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীদের সম্মিলিত সহযোগিতা ছাড়া এসডিজি অর্জন সম্ভব নয়।

আজ নগরীর একটি হোটেলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর (ডিজিএইচএস), ইউএনএফপিএ ও ইউনিসেফের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত এক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত কর্মীদের মাতৃস্বাস্থ্য সেবায় দৃষ্টান্তমূলক ভূমিকা রাখার জন্য উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে এই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে চিকিৎসক, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও জেলা হাসপাতালসহ ‘ইএমওসি’ ফ্যাসিলিটিজে খুব ভালো অবদান রাখায় মোট ৫৬ জনকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। ‘ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড গিবিং ফর ইএমওসি (ইমার্জেন্সি অবস্ট্রেটিক কেয়ার) সার্ভিসেস’ শিরোনামের এই কর্মসূচিতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

নাসিম বলেন, ‘নতুন হাসপাতাল নির্মাণ, হাসপাতালে শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধি ও দেশজুড়ে প্রায় সাড়ে ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ, মিডওয়াইফারি কোর্স চালু এবং দরিদ্র ও দুস্থ মায়েদের জন্য মাদার-হেল্থ ভাউচার স্কিমের প্রচলন করায় মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘নিরাপদে শিশুর জন্ম নিশ্চিত করা ও নবজাতক শিশুর ভালো স্বাস্থ্য স্বাস্থ্যবান ও আত্মমর্যাদাশীল জাতি গঠনে সাহায্য করে।’

ডিজিএইচএস-এর মহাপরিচালক প্রফেসর আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, শিক্ষা ও কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খান বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা জানান, বাংলাদেশ মাতৃমৃত্যু হার (এমএমআর) হ্রাসে অগ্রগতি করেছে। ১৯৯০ সালে যেখানে ৫৯৯ ছিল সেখানে ২০১৫ সালে দাঁড়ায় ১৭৬-এ , যা গড়ে বার্ষিক হ্রাস শতকরা ৪ দশমিক ৭ ভাগ।

অমৃতবাজার/রেজওয়ান

Loading...