ঢাকা, সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০ | ১৫ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সাকিব-শিশিরের জন্য নিজ হাতে রান্না করে পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:১৯ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, রোববার
সাকিব-শিশিরের জন্য নিজ হাতে রান্না করে পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী ছবি: সংগৃহীত

রাজনীতির বাইরে ক্রীড়াপ্রেমী হিসেবেও আলাদা খ্যাতি বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। বিশেষ করে বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে আবেগের মাত্রাটা তার যেন একটু বেশিই। বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রাণ সাকিব আল হাসান, মাশরাফি বিন মর্তুজা, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহদের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশেও কমতি রাখেন না কখনও।

প্রধানমন্ত্রী তার টাইগার বাহিনীর প্রতি নিজের মমতার আরেকটি প্রমাণ দিলেন আজ (২২ জানুয়ারি)। নিজ হাতে খাবার রান্না করে পাঠালেন সাকিব আল হাসানের বাসায়। আর তাতেই আনন্দে ডগমগ হয়ে সাকিব আল হাসান ও তার স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশির ফেসবুকে নিজেদের প্রোফাইলে পোস্ট করে দিলেন আনন্দমুখর বেশ কয়েকটা ছবি।

খাবারের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ হাতে রান্না করা পোলাও, রোস্টসহ রসগোল্লা, গুড়ের সন্দেশ, ছানা ও শীতের পিঠা পাঠিয়েছেন সাকিব দম্পতির জন্য। দেশের প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে এমন ভালোবাসা পেয়ে সাকিব ও শিশির দুজনই আবেগে আপ্লুত ।

নিজের ফেসবুক পেজে খাবারের ছবিগুলো আপলোড করে সাকিব লিখেছেন, ‘এখন পৃথিবীর সবচেয়ে ভাগ্যবান মানুষ সম্ভবত আমি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন ভালোবাসা পেয়ে আমি সত্যিই নির্বাক। তার নিজের হাতে রান্না করা খাবার খাওয়ার সৌভাগ্য হলো আমার। তিনি আজ সকালে খাবারগুলো রান্না করে আমার বাসায় পাঠিয়েছেন।’

নিজের সেই স্ট্যাটাসে তিনি আরও লিখেন ‘গতকাল (শনিবার) আমার স্ত্রী (উম্মে আহমেদ শিশির) প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার সময়, নিজের পছন্দের খাবারের কথা জানিয়েছিল। তাই আজ প্রধানমন্ত্রী নিজে এগুলো রান্না করে পাঠালেন। তার কাছ থেকে এমন ভালোবাসা আমি সত্যিই ভুলতে পারবো না। এ জিনিসটা আজীবন আমার হৃদয়ে থেকে যাবে। আমরা সত্যিই অনেক বেশি ভাগ্যবান।’

একই ছবি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে আপলোড করেছেন শিশিরও। আর ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘এর চেয়ে বেশি ভাগ্যবান হওয়া সম্ভব নয়! নিজের ইচ্ছাপূরণের জন্য এর চেয়ে ভালো আর কী হতে পারে! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার ব্যস্ত সময়ের মাঝেই নিজ হাতে রান্না করে খাবার পাঠিয়েছেন।’

সেই স্ট্যাটাসে শিশির আরও জানান, ‘গতকাল তার সঙ্গে দেখা করার সময় জিজ্ঞেস করেছিলেন, আমার পছন্দের খাবার কী? তখন উত্তর শুনে বলেছিলেন, তিনি এগুলো নিজ হাতে রান্না করে আমাদের কাছে পাঠাবেন। আমি সত্যিই সপ্তাকাশে অবস্থান করছি এখন! জীবনের শ্রেষ্ঠতম মধ্যাহ্নভোজ হলো। প্রধানমন্ত্রীর এমন ভালোবাসার বিপরীতে ধন্যবাদ জানানোর যথেষ্ট ভাষা জানা নেই আমার।’

অমৃতবাজার/এসএইচএম