ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯ | ৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আজ প্রথম সেমিফাইনালে ভারতের মুখোমুখি নিউজিল্যান্ড


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৪০ এএম, ০৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার | আপডেট: ০৪:১১ পিএম, ০৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার
আজ প্রথম সেমিফাইনালে ভারতের মুখোমুখি নিউজিল্যান্ড

 

চলতি বিশ্বকাপের আর মাত্র তিনটি ম্যাচ। দুই সেমিফাইনাল আর ফাইনাল। ফাইনালের যুদ্ধে প্রথম সেমিফাইনালে আজ পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামছে চারে থাকা নিউজিল্যান্ড।  বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় ম্যানচেস্টারে শুরু হবে ম্যাচটি।

বিশ্বকাপের এবারের আসরে দল দুটি শুরুটা করেছে ভিন্নভাবে। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ভারত ছিল মসৃণ। অপরদিকে শুরুটা দুর্দান্ত করলেও শেষ দুই ম্যাচে হেরে আসর থেকে ছিটকে পড়ার আশঙ্কায় ছিল কিউইরা।

আগের ম্যাচগুলোয় বড় ধরণের জয় পাওয়ায় রানরেটে এগিয়ে ছিল উইলিয়ামসনরা। ফলে, সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে পাকিস্তানের সমান পয়েন্ট হলেও শেষ পর্যন্ত সেমির টিকিট পায় নিউজিল্যান্ড।

২০১৫ বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে প্রথমবার ফাইনালে উঠেছিল দলটি। কিন্তু ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অপেক্ষা বাড়ে কিউইদের।

অপরদিকে, গত বছর সেমিতে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে ফাইনালের স্বপ্ন খোয়া যায় ভারতের। এ বছর উভয় দলের যে কাউকে বিদায় নিতে হচ্ছে।

ব্যাটিং-বোলিংয়ে দুই দলের শক্তি-সামর্থ্য কিংবা সাম্প্রতিক ফর্ম, সব বিচারেই বেশ এগিয়ে ভারত। বিশ্বকাপে প্রাথমিক পর্বে দুই দলের ম্যাচটি ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। তবে বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডে গিয়ে ৪-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে এসেছে ভারত।

ভারতের টপ অর্ডার দুর্দান্ত, ফর্মে আছেন প্রথম তিন ব্যাটসম্যান। তাদের বোলিং আক্রমণ সম্ভবত টুর্নামেন্টের সেরা। পেস-স্পিন মিলিয়ে বৈচিত্রময় বোলিং আক্রমণে নেই দুর্বলতা।

বোলিংয়ে ভারতের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারে নিউজিল্যান্ড। পেস আক্রমণ তাদেরও দারুণ। কুলদীপ যাদব, যুজবেন্দ্র চেহেল কিংবা রবীন্দ্র জাদেজার বৈচিত্র তাদের নেই। তবে মিচেল স্যান্টনার যথেষ্টই কার্যকর।

কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, জিমি নিশামের মতো অলরাউন্ডাররা একই সঙ্গে নিউ জিল্যান্ডের বড় শক্তি, কখনও আবার দুর্বলতা। ‘একটু বোলিং, একটু ব্যাটিং’ দিয়ে নিজেদের দিনে যেমন তারা পার্থক্য গড়ে দিতে পারে, তেমনি শক্ত প্রতিপক্ষের বিপক্ষে অনেক সময় অনুভূত হতে পারে বিশেষজ্ঞ কারও অভাব।

মূল পার্থক্য দুই দলের ব্যাটিংয়ে। কাগজে-কলমে খুব বেশি নয়, তবে এই বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সে। বিশেষ করে টপ অর্ডারে।

রোহিত শর্মার রান মেশিন চলছেই। এক বিশ্বকাপে পাঁচ সেঞ্চুরির অবিশ্বাস্য কীর্তি গড়ে ফেলেছেন। এক বিশ্বকাপে শচিন টেন্ডুলকারের সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড ভাঙাও মনে হচ্ছে কেবল সময়ের ব্যাপার।

শিখর ধাওয়ান ছিটকে যাওয়ার পর রোহিতের সঙ্গে দারুণভাবে মানিয়ে নিয়েছেন লোকেশ রাহুল। তিনে বিরাট কোহলিকে নিয়ে নতুন করে বলার আছে সামান্যই। বিস্ময়করভাবে অবশ্য এই বিশ্বকাপে সেঞ্চুরি পাননি ভারতীয় অধিনায়ক, তবে টানা পাঁচ ফিফটিতে আছেন তিনি রান প্রবাহেই।

নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিংকে বলতে গেলে একা টেনেছেন উইলিয়ামসন। টপ অর্ডারে মার্টিন গাপটিল, কলিন মানরো চূড়ান্ত ব্যর্থ। সুযোগ পেয়ে হেনরি নিকোলস সুবিধে করতে পারেননি।

বিশ্বকাপের আগে দুই বছরে দুর্দান্ত পারফর্ম করা রস টেইলর বিশ্বকাপে শুরু দারুণ করলেও ধরে রাখতে পারেননি ধারাবাহিকতা। লোয়ার মিডল অর্ডারে নিশাম, ডি গ্র্যান্ডহোমরা চেষ্টা করেছেন বিপর্যয়ে দলকে উদ্ধার করার।

তবে, পূর্বের সমীকরণ যাই হোক। এ ম্যাচে যে হারবে তাকেই বিদায় নিতে হবে। তাই আজকের ম্যাচের পারফর্মেন্সটাই মূখ্য বিষয়।

ভারতের সম্ভাব্য একাদশ:

রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), মহেন্দ্র সিং ধোনি, কেদার যাদব, ঋষভ পন্থ, হার্দিক পাণ্ড্য, মোহাম্মদ শামি, কুলদীপ যাদব, যুজবেন্দ্র চহাল ও যশপ্রীত বুমরা।

নিউজিল্যান্ড সম্ভাব্য একাদশ:

কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), কলিন মুনরো, রস টেইলর, টম লাথাম (উইকেটরক্ষক), কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, জিমি নিশাম, মিচেল স্যান্টনার, ম্যাট হেনরি/ টিম সাউদি, লকি ফার্গুসন ও ট্রেন্ট বোল্ট।

অমৃতবাজার/এএস