ঢাকা, রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘আমি আমলিকির দলের লোক’


এম আর মাসুদ

প্রকাশিত: ০১:৫৪ পিএম, ০৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার | আপডেট: ০৫:১৩ পিএম, ০৭ জুলাই ২০১৮, শনিবার
‘আমি আমলিকির দলের লোক’

ফুটবল এখনও বিশ্বে সমানতালে জনপ্রিয় খেলা। ফুটবলকে ঘিরে এখনও যে উল্লাস, উদ্দীপণা ও উৎসাহ দেখা যায় তা অন্য খেলায় মেলা কিছুটা দায়। বিশেষ করে ফুটবলের বিশ্বকাপ আসর আসলে বোঝা যায় এর প্রতি মানুষের দুর্বলতা। শিশু কিশোর থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধরাও ফুটবল বিশ্বকাপ জ্বরে আক্রান্ত হয় এবং তাদের শরীরের তাপমাত্রা এতো বেশি বেড়ে যায় যেনো থার্মোমিটারে মাপা মুশকিল।

এই ফুটবলকে ঘিরে দেশ, জাতি, ধর্ম, বর্ণ বৈসম্য ছাপিয়ে একীভূত হয়েছেন সকল ফুটবল প্রেমীরা। আবার ফুটবল সেই একীভূতকে বিভক্ত করেছে সমানতালে। আমাদের দেশে বাপ-ছেলে, স্বামী-স্ত্রী, ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধব একে অপরকে ফুটবলে করেছে বিভক্ত। তারপরও এই আটপৌরে খেলাটার প্রতি এমন চুম্বক শুধু আমাদের দেশে নয়, সারা বিশ্বে। যাহোক এবার আসি ঘটনায়।

ঘটনাটি বিশ্বকাপের গত আসরের। সেমিফাইনালে জার্মানির কাছে স্বাগতিক ব্রাজিলের অবিশ্বাস্য হারে স্বপ্নভঙ্গের পরের দিন সকালে আমি, ছোটভাই রনিসহ কয়েকজন স্থানীয় বুলবুলের দোকেনে বসে দোকানিকে কাটা গায়ে নুনের ছিটা দেওয়ার মতো অবস্থা করছিলাম। কারণ দোকানদার বুলবুল ছিলো ব্রাজিলের আর বাকিরা সবাই আর্জেন্টিনার সমর্থক। বুলবুলের দোকানটি যশোরের ঝিকরগাছা-বাঁকড়া আবুল ইসলাম সড়কের বল্লা বাজারে।

একপর্যায় দোকানদার বুলবুল আর কখনও ফুটবল খেলা নিয়ে মাথা ঘামাবে না বলে আমাদের বিদায় করে দিতে পারলে বেঁচে যায় বলে মনে হচ্ছিলো। আমরাও তার তিক্ততায় উঠে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এমন সময় আমাদের গ্রামের মুকুল চাচা (৪৬) আসেন দোকানে। মুকুল চাচা একজন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী।

আমি মুকুল চাচাকে জিজ্ঞাসা করলাম চাচা তুমি কোন দলের? মুখের কথা মুখে থাকতেই মুকুল চাচা উত্তর দিলো ‘আমি আমলিকির দলের লোক’।

গ্রামের মাঠে যতবারই ফুটবল প্রতিযোগিতার আসর বসেছে, দেখেছি মুকুল চাচাকে সাদা কেড্স পায়ে জার্সি প্যান্ট পরিয়ে কানাইরালী গ্রামের গোলাম রসুল (রসুল মেম্বর) মাঠে খেলোয়ার হিসেবে নামিয়ে দিতেন। কখনও বলে পা ছুঁতে দেখিনি। সারামাঠ দৌঁড়ে বেড়াতো। উপস্থিত দর্শক এটিকে খুব উপভোগ করতেন।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি মুকুল চাচা চলে গেছেন না ফেরার দেশে। এবারও গ্রামে হয়তো ফুটবল প্রতিযোগিতা হবে। এলাকাবাসী হয়তো তার অনুপস্থিতি অনুভব করবে। মহান আল্লাহ মুকুল চাচাকে অনন্তকালের জগতে ভালো রাখুন এই কামনা করি।

লেখক: সংবাদকর্মী

অমৃতবাজার/সুজন