ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অসুস্থ এরশাদকে নিয়ে ফের বিদিশার আবেগী স্ট্যাটাস


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৩:০৪ পিএম, ২৮ জুন ২০১৯, শুক্রবার
অসুস্থ এরশাদকে নিয়ে ফের বিদিশার আবেগী স্ট্যাটাস

সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। এরশাদের এমন অসুস্থতায় ফেসবুকে আবেগঘন এক স্ট্যাটাস দেন তার সাবেক স্ত্রী বিদিশা এরশাদ।

সেখানে তিনি লিখেন, আমাদের অসমাপ্ত প্রেম। ৪০বছরের বেশি ব্যবধান আমাদের দুজনের বয়সেরG কিন্তু একদিন ও উনি আমাকে তা বুঝতে দেননি সেই পার্থক্য টা। আমাদের বিয়ে আগে আমরা engaged হই London এ। উনি নিজেই একটা হীরের আংটি কিনে আনেন london এর এক দোকানে গিয়ে।

সেই দিন উনি আমার কাছে থেকে কথা নেন মৃত্যু ছাড়া যেন আমরা আলাদা না হই। আজও আমি প্রতিজ্ঞাবদধ। আমার নিজের flat তখন আমরা বেশ কিছু দিন লন্ডন ছিলাম। Bnp ক্ষমতায় তখন আমরা দেশ ছাড়া। উনি খুশী হননি এত ছোট হীরে আংটি কিনে। আর আমি তো উনার ব্যবহার দেখে খুশী তে আত্তহারা।

ঠিক পরের বছরই উনি বিয়ের দিন নিজের হাতের 2 caret আংটি টি খুলে আমাকে পড়িয়ে দিয়ে বললেন, উনার বন্ধু সৌদী বাদশা দেওয়া আমার এই আংটি টি আজ আমি আমার রানী কে দিলাম। খুব অল্প কয়টা বছর আমাদের প্রেম, সংসার হয়েছিল। এত ভালো বাসতে পারে কেউ? বিএনপি ঝড়ে লন্ড ভন্ড হয়ে গেলাম আমরা।

কোনো দোকানে আমি shampoo bottle খুলে গন্ধ বা সাবান ঘ্রাণ নিলে উনি পরের দিন কিনে নিয়ে আসতেন ও গুলো। আমি বিস্মিত হয়ে উনার দিকে তাকিয়ে থাকলে বলতেন তোমার চুলে আমি গন্ধ টা পেতে চাই। এমন কত যে অসংখ্য memories আছে আমাদের লিখে শেষ করা যাবে না তা।

গত কাল থেকে উনার বেশ জ্বর। হসপিটাল আইসি ইউ তে শুয়ে আছেন। রুগ্ন, ক্লান্ত শরীর। বয়সের ভারে tired । আর চলতে চায় না জীবন। অন্য সবাই মেনে নিয়েছে বয়সের কাছে হার মানা এরশাদ কে। ফিসফিস করে সবাই কবরের কথা ও বলছে কানে আসছে আমার।

কিন্ত আমি ও এরিক তো হার মানতে দিবো না তোমায়। আমরা তো রাজনীতি প্যাচ বুঝি না। এরিক জায় নামাজে আছে পড়ে কয়টা দিন। তুমি ছাড়া ও একা ভাত খেতে চায় না। শুধু তুমি ভালো ভাবে ফিরে এসো। আমরা তোমাকে এই অবস্থা চাই। তুমি যে অবস্থায় আছো তেমনি চাই।

আমরা ৩ জন শুধু। তুমি, আমি ও আমদের এরিক। আর কেউ না। হসপিটাল থেকে ফিরে এসে বাড়িতে তুমি রেস্ট নিবে। এরিক গান শুনবে তোমাকে আমি piano বাজাবো বা তোমার প্রিয় ফিস ফ্রাই রান্না করবো।

সন্ধ্যায় আড্ডা দিবো। মা, বাবা ও ছেলে লুভু খেলবো। বা আমি নিজেই গাড়ি ড্রাইভ করে বাপ ছেলেকে কাবাব খাওয়াতে নিয়ে যাবো খেলার বাজীতে হেরে গেলে। আজো কিন্তু আমি অপেক্ষায় থাকলাম নীল শাড়ি টি ভাজ খুলবো আশায়। বিদিশা।

অমৃতবাজার/পিকে