ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯ | ৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সাকিবের নজরকাড়া পারফরম্যান্স যা বললেন স্ত্রী শিশির


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৪:০২ পিএম, ২৭ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার
সাকিবের নজরকাড়া পারফরম্যান্স যা বললেন স্ত্রী শিশির

মাঠে নেমে প্রতিটি ম্যাচেই যেন নিজেকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন সাকিব আল হাসান। চলতি ওয়ানডে বিশ্বকাপের নিজের প্রথম দুই ম্যাচেই তুলে নিয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি। পরের দুই ম্যাচে তুলে নিয়েছেন ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি। ষষ্ঠ ম্যাচে ৪১ রানে ফিরলেও সপ্তম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে আবারও দেখা পেয়েছেন হাফ সেঞ্চুরির।

এখন পর্যন্ত ছয় ম্যাচে তিন হাফ সেঞ্চুরি ও দুটি সেঞ্চুরিতে সাকিবের সংগ্রহ ৪৭৬ রান। ব্যাট হাতে রানের ফোয়ারা ছুটানোর পাশাপাশি বোলার হিসেবে কার্যকরী ভূমিকা পালন করছেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ছয় ম্যাচে ৫.৫৭ ইকোনমিতে বাঁহাতি এই স্পিনার নিয়েছেন ১০ উইকেট। এমন পারফরম্যান্সের কারণে সর্বত্র চলছে সাকিব বন্দনা। ভক্ত-সমর্থক থেকে শুরু করে এই তালিকায় রয়েছেন অনেক সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটার। কেউ কেউ সাকিবকে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ অলরাউন্ডার হিসেবেও স্বীকৃতি দিয়েছেন।

সাকিবের এই নজরকাড়া পারফরম্যান্স মাঠে বসেই দেখেছেন স্ত্রী উম্মে আহমেদ শিশির। কিন্তু সাকিবের পারফরম্যান্স নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি তিনি। তবে দেশের একটি শীর্ষস্থানীয় দৈনিকে লেখা কলামে বিশ্বকাপের সাকিবের পারফরম্যান্স নিয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন শিশির।

পাঠকদের জন্য শিশিরের লেখাটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

“এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপে আমাদের সফরটা বেশ রোমাঞ্চকর হয়ে উঠছে। ইংল্যান্ডের আবহাওয়া ধীরে ধীরে হয়ে উঠছে সুন্দর। আমরা উপভোগ করছি।

এই তো আমি, আমাদের মেয়ে আলায়না আর আমাদের মারিও ভিল্লাভারায়নের (বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের স্ট্রেন্থ অ্যান্ড কন্ডিশনিং কোচ) স্ত্রী দিন্নি এখানে স্ট্রবেরি খামার ঘুরে এলাম। আলায়না খুবই খুশি। স্ট্রবেরি খেতে পেয়ে যত-না খুশি, তার চেয়ে বেশি খুশি স্ট্রবেরির ছবি তুলতে পেরে। সাকিব এবারের বিশ্বকাপে ভালো করছে, আমিও তা উপভোগ করছি। একটি বাদে সব খেলাই মাঠে গিয়ে দেখেছি। দুই দিন সাকিব সেঞ্চুরি করেছে। মাঠে গিয়ে খেলা দেখা আমিও খুব উপভোগ করি। তবে আমার চেয়ে বেশি খুশি হয় আলায়না।

বাংলাদেশ দলের সব খেলোয়াড়ের মনোভাবই এবার এক রকম-ভালো খেলতে হবে, সেমিফাইনালে যেতে হবে। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ম্যাচের দিন বৃষ্টি হওয়ায় সবারই মন খারাপ ছিল। তবে ওই দিন সাকিবের চোট (ইনজুরি) ছিল। খেলা নিয়ে আমি সাকিবকে বেশি কিছু বলি না। সাকিবও আমাকে তেমন কিছু বলে না। শুধু আমি বলি ফিফটি করলে শতরান করতে হবে। ও যখন ৭০-৮০ রান করে আউট হয়, তখন আমার মন খারাপ হয়। আমি বলি সেঞ্চুরি করতে। আরও বলি ফিফটিকে সেঞ্চুরি বানাতে হবে।

সাকিব সত্যিই ভালো করছে। আজ (গত সোমবার) তো আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৫টি উইকেট নিল সাকিব। তার আগে করল অর্ধশত। এমন রেকর্ড তো এর আগে করেছেন শুধুই একজন (যুবরাজ সিং, ভারত)। বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপে প্রথম ১ হাজার রান করেছে সাকিব। আবার বিশ্বকাপে ১ হাজার রান ও ৫০ উইকেট শুধুই সাকিবের দখলে। তবে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এই ম্যাচটি আমি মাঠে বসে দেখতে পারিনি।

বিশ্বকাপে সাকিবের এমন খেলায় আমরা সবাই খুশি। শুধু আমরাই নই, আমি জানি বাংলাদেশের প্রত্যেকেই খুশি। সাকিবের সাফল্যে, বাংলাদেশ দলের বিজয়ে। তবে এসব আনন্দ উপভোগ করার সময়ও তেমন একটা নেই। এখনই আবার স্যুটকেস গোছাতে হবে। আবার শহর থেকে আরেক শহর, এক হোটেল থেকে আরেক হোটেল।

সব মিলিয়ে এবার আমার বিশ্বকাপ দারুণ লাগছে। সাকিবের ফর্ম এবার বেশ ভালো। তবে সাকিব বলে, ‘আমি চাই দলের জন্য অবদান রাখতে। আমার কারণে যেন দল জেতে।’

দলের জয়টাই ওর কাছে বড়। নিজের রেকর্ডের দিকে সাকিবের খেয়াল নেই। ওর একমাত্র নজর বাংলাদেশের বিজয়ের দিকে।

অমৃতবাজার/পিকে