ঢাকা, রোববার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ৯ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

‘কিছু নেতার অপকর্ম পুরো ছাত্রলীগের নয়’


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০১:৫৬ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৭, মঙ্গলবার | আপডেট: ১১:১৩ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০১৭, মঙ্গলবার
‘কিছু নেতার অপকর্ম পুরো ছাত্রলীগের নয়’

শ্রদ্ধেয় জাফর ইকবাল স্যার, আপনি তরুণ প্রজন্মের আইডল। নিঃসন্দেহে আমারও আইডল। আপনিও ছাত্রলীগ নিয়ে জামাত-শিবির-বিএনপি’র পাতানো অপপ্রচারের ফাঁদে পা দিলেন?

বুঝলাম আমরা ছাত্রলীগাররা দিন দিন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে পরিণত হতে যাচ্ছি। তার জন্য দায়ী আপনারা যারা ছাত্রলীগ সম্পর্কে ভালো করে না জেনে ঢালাও ভাবে সবাইকে দোষারোপ করে যা মনে আসে তাই লিখেন। আবার আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, মন্ত্রী ও এমপিদের অনেকের মাঝে ছাত্রলীগ হটাও মনোভাবের কারণেও বর্তমানে ছাত্রলীগ সংখ্যালঘু হয়ে পড়ছে, হয়ে পড়ছে মেরুদণ্ডহীন।

আমরা ছাত্রলীগ করি, ছাত্রদল বা ছাত্রশিবির করি না আর আমাদের নেতা জননী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা।

ছোট বেলায় মা যেমন পরম মমতায় আগলে রাখতেন, শাসন বা আদর করতেন। নেত্রীও তেমন মায়ের মমতায় আমাদের আগলে রাখেন, প্রয়োজনে শাসন করেন আবার আদরও করেন। তাই আপনাদের আলোচনা বা সমলোচনায় আমাদের কিছু যায় আসে না। কেননা আমাদের জননীসম আপা এ কথা জানেন যে ৭৫ সনে বঙ্গবন্ধু হত্যার ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছিলো অর্বাচীন সমালোচকেরা আর দলীয় স্বার্থবাজরা। বর্তমানে কেউ কেউ অতিরিক্ত সমালোচনার মাধ্যমে ছাত্রলীগের মেরুদণ্ড ভাঙার খেলায় মেতেছে, যাতে করে ভবিষ্যতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি’র মতো নেতৃত্বশুন্যতায় ভোগে আর রাজনীতিবিদের জন্য নেতৃত্ব দেয়া, রাজনীতি করা, দেশ পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়ে। ইতোমধ্যে সুবিধাবাজ ব্যবসায়ী আর আমলারা রাজনীতির মাঠ দখল করে নিয়েছে, অবশ্য তা নিয়ে কারও কোন মাথাব্যথা নেই।

মাননীয় বোদ্ধারা আপনারা বলতে পারবেন কি বর্তমানে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর সংখ্যা কত? তারা কি কি কাজ করে? কোথায় কোথায় পড়াশোনা করে? কিভাবে তাদের দৈনন্দিন সময় নির্বাহ করে?

জানি বলতে পারবেন না।

বর্তমানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ১০১টির বেশি জেলা কমিটি রয়েছে। তাদের অধীনে অগনিত হল কমিটি, উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড কমিটি রয়েছে। সুতরাং এটা সহজেই অনুমেয় যে বর্তমানে ছাত্রলীগের লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মী রয়েছে।

প্রিয় স্যার আপনার ভাষ্যমতে, এই লক্ষ লক্ষ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী যদি টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, ইভ টিজিং, চুরি, মারামারি, হানাহানি করে তবে এদেশে তো আর মানুষ বসবাস করতে পারতো না, হাসরের ময়দানের মত মানুষ দিকবিদিক হয়ে ছোটাছুটি করতো। দেশে আর একটা একাত্তরের মতো যুদ্ধ বেঁধে যেতো। সব মানুষ ভয়ে ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিতো।

তাই বলছি ছাত্রলীগ এ উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় ছাত্রসংগঠন। এ সংগঠনের লক্ষ লক্ষ নেতাকর্মীর মধ্যে কেউ বা কিছু সংখ্যক নেতাকর্মী যদি অপকর্ম করে তার দায় কেন পুরো ছাত্রলীগের উপর বর্তাবে?। মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে এ ধরনের অপপ্রচারে কাদের লাভ হচ্ছে ভেবে দেখেছেন কি?

শ্রদ্ধেয় ইকবাল স্যার, শিক্ষকদের মাঝে অনেকেই চুরি, টেন্ডারবাজি, যৌনহয়রানি, ধর্ষণের মত জঘন্য অপরাধে চাকরিচ্যুত হয়েছেন। তাই বলে কি আমরা বলবো শিক্ষকেরা খারাপ চরিত্রহীন? আমলারা কেউ কেউ ঘুষ খায়, তাই বলে কি সবাইকে ঘুষখোর বলবো? এমন আরও অনেক সংগঠন ও পেশার কথা উদাহরণ হিসেবে বলা যাবে। ভাল-মন্দ মানুষ সবখানেই থাকে, তাই বলে সব মানুষ খারাপ নয়। তেমনি সব ছাত্রলীগাররা খারাপ না। ইদানীং ছাত্রলীগের সমলোচনা চটকদার খবরে পরিণত হয়েছে। তাই ছাত্রলীগাররা নেতিবাচক খবর প্রচারে পত্রিকার কাটতি বাড়ে, রেটিং বাড়ে, বোদ্ধাদের জনপ্রিয়তা বাড়ে।


কিন্তু আপনার জনপ্রিয়তা কবে থেকে কমতে শুরু করলো যে এমনভাবে মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী ছাত্রসংগঠনকে এমন জঘন্যতমভাবে ছোট করলেন?। নির্দিষ্ট কোন ছাত্রের বিরুদ্ধে আপনার অভিযোগ থাকলে তার নাম উল্লেখ করতেন। আমরা ছাত্রলীগাররা কারও না কারও ভাই-বোন-বন্ধু-আত্নীয়। তাই ঢালাওভাবে সবার চরিত্র হননের অধিকার কারও নেই।

আর শ্রদ্ধেয় ইকবাল স্যার আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ে যে পরিমাণ শিবির ছিল, যদি ছাত্রলীগ না থাকতো তবে তো আপনি একদিনও হেটে ক্লাস নিতে যেতে পারতেন না, শিবিরের কর্মীরা প্রতি ক্লাসেই কিছুনা কিছু আপনাকে শিক্ষা দিয়ে ছাড়তো।

যাই হোক, আপনাদের মত দেশবরেণ্য বেশির ভাগ বুদ্ধিজীবী আর সাংবাদিকরা যা ইচ্ছা তাই বলে যেতে পারেন, কেউ তার কোনো প্রতিবাদ করে না এই ভেবে যে সমালোচনা করা খারাপ কিছু না। বড়রা ছোটদের নিয়ে কথা বলবে, সমালোচনা করবে, দোষত্রুটি সংশোধন করে দিবে এটাই স্বাভাবিক। তবে কেউ ছাত্রলীগেরর সম্পর্কে ভালভাবে না জেনে ছাত্রলীগের অগনিত নেতাকর্মীদের গায়ে যখন কালিমা লেপন করে ঢালাওভাবে সংগঠনের চরিত্র হননের চেষ্টা করে তখন সেইসব সম্মানিত বোদ্ধাদের ঠিক কি বলা উচিত তা আমার ছোট মাথায় আসছে না।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি মাসুমা আক্তার পলি’ ফেসবুক থেকে নেয়া।

অমৃতবাজার/রেজওয়ান

Loading...