ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

প্রিয় নূর ভাই


রবিশঙ্কর মৈত্রী

প্রকাশিত: ০৩:৫০ পিএম, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৬, বুধবার
প্রিয় নূর ভাই
বাংলা একাডেমি আয়োজিত অমর একুশে গ্রন্থমেলায় শ্রাবণ প্রকাশনীকে নিষিদ্ধ করার বিষয়ে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন প্রবাসী লেখক ও আবৃত্তিকার রবিশঙ্কর মৈত্রী।

নিচে চিঠিটি হুবহু পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো-

প্রিয় নূর ভাই; খোলা চিঠি দিলাম ফেসবুকে, এ চিঠি যাবে কিনা জানি না।

জনাব আসাদুজ্জামান নূর
মাননীয় মন্ত্রী
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা

মহাত্মন, আপনাকে অভিবাদন।
শ্রাবণ প্রকাশনীকে বাংলা একাডেমি আয়োজিত অমর একুশে গ্রন্থমেলায় নিষিদ্ধ করাকে কোনোভাবেই সিদ্ধ করা যায় না। বাংলা একাডেমিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনা না হলে লেখক প্রকাশক পাঠকরাই বর্তমান সরকারের উপরেই নিশ্চিম্ত আস্থা ভরসা রাখতে পারবেন না।
সরকারের খুব ভালো কাজগুলোও দুএকজন মহাকর্মকর্তার ব্যক্তিরোষে দোষে ভেস্তে যায়। রাজা রামচন্দ্রের প্রেমও বানরঝাঁকুনিতে জনাঘাতে পরিণত হয়। আমার মনে হয়, তরুণপ্রজন্মের শুদ্ধ চেতনাধারাকে কোনোভাবেই এই সরকার রক্তাক্ত ক্ষতবিক্ষত করতে চান না।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার অনেক ক্ষেত্রেই উন্নত বিশ্বের মডেল গ্রহণ করে বলেই জানি। বিনীতভাবে আমার নতুন অভিজ্ঞতার কথা জানাতে চাই। ফরাসি দেশে দেখছি, তরতাজা তরুণরাই জাতির বড়ো বড়ো প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। অভিজ্ঞবৃদ্ধরা স্বেচ্ছাশ্রম দেন, উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেন। আপনারাও এরকম একটি দুটি দৃষ্টান্ত রাখছেন। শিশু একাডেমি এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির দায়িত্ব পালন করছেন দুজন সজীবসুন্দর তুর্কি তরুণপ্রাণ।
বাংলা একাডেমি, বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ দেশের দর্পণসম প্রতিষ্ঠানগুলোর মহা পরিচালক নিয়োগে রোগামরা মোটা মাথা এডিয়ে চলা উচিত।
দেশকে দ্রুত উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিতে হলে মাথা চুলকে সিদ্ধান্ত নেবার জরাধারাও বন্ধ করা জরুরি।
অমর একুশে গ্রন্থমেলার উদ্যোক্তা মূলত বাংলা একাডেমি নয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসঞ্জাত পথিকৃৎ প্রকাশক চিত্তরঞ্জন সাহা চট বিছিয়ে একাডেমির মাঠে এই মেলা শুরু করেছিলেন। উন্নত বিশ্বের মতো বাংলাদেশের প্রকাশকরাও একুশে গ্রন্থমেলার মূল আয়োজক হতে পারে, হওয়াই উচিত।
মুক্তবুদ্ধিসম্পন্ন ঠোঁটকাটা তরুণপ্রাণ লেখক প্রকাশক রবীন আহসানের মুক্ত মত প্রকাশ যদি বাংলা একাডেমি সইতে না পারে তবে আর আমরা কোথায় যাব?
বাংলা একাডেমি বাঙালি জাতির গর্ব। এই প্রতিষ্ঠানের কাঁধ থেকে এখনই মেলামোড়লভার নামানো জরুরি।
বাংলাদেশের লেখক কবিদের লেখার মান ভালো কি মন্দ তা পাঠকই জানেন বোঝেন। আমার দেখা থেকে বলছি, আমাদের বইমুদ্রণমান উন্নত বিশ্বের চেয়ে কম নয়।
বিশ্বাস করি, প্রকাশকরাই আন্তর্জাতিক মানের বইমেলা আয়োজন করতে পারেন। অতএব এমন দিনই আসছে যেদিন বাংলা একাডেমিকেই মেলায় অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানাবেন প্রকাশকরা।
একাডেমির কাজ গবেষণা অনুবাদ পরিভাষা প্রকাশনা সভা সেমিনার ইত্যাদি। মেলা নিয়ে বাংলা একাডেমির মাতবরি ম্যালা হয়েছে, এবার তাকে সৃজনশীলতার ডানা মেলতে বাধ্য করাই উচিত।
আমরা সবাই দেশ ও দশের ভালো চাই।জাতীয় কোনো উদ্যোগ উদ্দেশ্য ব্যক্তিতে গত হলেই দেশ ও দশের মঙ্গল হয় না।

মাননীয় মন্ত্রী, আমি এখন বাধ্যপরবাসী। আপনাদের কারো কাছ থেকে আমার ভালোবাসা ছাড়া আর কিছুই চাওয়ার নেই। ভালোবাসা না পেলেও আর আক্ষেপ দুঃখ করি না। প্রবাসের মানুষগুলো নির্ভয়ে কিছু বলতে পারেন, তাঁদের লজ্জা ভয় থাকে না এবং তাঁরা স্বার্থবুদ্ধিতড়িত হন না।
আমাকেও কারো সামনে মাথা চুলকে দাঁড়াতে হয় না বলেই দেশের ভালোর জন্য সঠিক কথাটি বলার সাহস করি।

স্বাভাবিক কিংবা অস্বাভাবিকভাবেই একদিন আপনার মন্ত্রণালয় থাকবে না, কিন্তু আপনি জীবনমন্ত্রহীন হবেন না কোনোদিন; আপনি আমাদের আবৃত্তিঅন্তপ্রাণে চিরবন্ধুই থাকবেন। আপনি আরো অফুরান প্রাণগান হয়ে উঠুন, প্রিয় ও মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়।

বিনীত

রবিশঙ্কর মৈত্রী
২৭শে ডিসেম্বর ২০১৬

জন্মভূমি : নরকোণা কামারখালি ফরিদপুর।
প্রবাসভূমি : আলেস সিভেন, সুদ ফ্রান্স।
e-mail : rsmaitree@gmail.com
Loading...