ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তবতা: জয়


অমৃতবাজার রিপোর্ট 

প্রকাশিত: ০৫:০৭ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯, রোববার
ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তবতা: জয়

 

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, ‘আমাদের দেশ তো প্রযুক্তির দিক থেকে পেছনে পড়েছিল। সেখান থেকে এ উত্তরণের পথে আসা নিয়ে প্রশ্ন ছিল অনেকের। আমরা তাদের মিথ্যা প্রমাণিত করেছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তবতা।’

রোববার সকালে রাজধানীর আইসিটি টাওয়ারে ডিজিটাল মিউনিসিপালিটি সার্ভিসেস সিস্টেম ‘একপে’, ‘একসেবা’ ও ‘একশপ’ অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

অনলাইনে সরকারি সেবাপ্রাপ্তি, বিল পরিশোধ ও গ্রামীণ উৎপাদনকারীর পণ্য শহরের ক্রেতার হাতে পৌঁছে এ সিস্টেম চালু করা হয়েছে। আইসিটি বিভাগের এটুআই প্রকল্পের আওতায় আপাতত ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন এবং নয়টি পৌরসভায় এসব নাগরিক সেবা পাওয়া যাবে। পরে তা ছড়িয়ে দেওয়া হবে সারা দেশে।

এ সময় জয় বলেন, ‘আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে জাতিসংঘের আইসিটি ইন্ডিকেটর ডিজিটাল গভর্নেন্স ইনডেক্সের সেরা ৫০ এর মধ্যে আসতে চাই আমরা। (এখন বংলাদেশের অবস্থান ১৯৩ দেশের মধ্যে ১১৫ তম)। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে নাগরিক সেবার প্রায় সবগুলো আমরা জনগণের আঙুলের ছোঁয়ায় আনব। গত ক’বছরে আমরা (ডিজিটাল গভর্নেন্স ইনডেক্সে) ৪০-৫০ ধাপ এগিয়েছি। আগামী ৫ বছরে আমরা কেন আরও ৫০ ধাপ এগোব না?’

জয় আরও বলেন, ‘গত ১০ বছরে আমরা আইসিটির ভিত্তিগুলো নির্মাণ করেছি, তাই ১০ বছর লেগেছে ই গভার্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান প্রণয়ন করতে। আমাদের দেশ তো প্রযুক্তির দিক থেকে পেছনে পড়েছিল। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন বাস্তবতা।’

জানা যায়, ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন ছাড়াও ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, নাটোর, ঝিনাইদহ, টুঙ্গিপাড়া, পীরগঞ্জ, সিংড়া, তারাব ও রামগতি পৌরসভায় আপাতত এ কর্মসূচি চলবে। ডিজিটাল অটোমেশন পদ্ধতিতে নাগরিক সেবার এই কার্যক্রম চালু হওয়ায় ওই ১০ এলাকার নাগরিকরা অনলাইনে মিউনিসিপালিটি/সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন সেবা পাওয়ার পাশাপাশি হোল্ডিং ট্যাক্স ও বিভিন্ন সরকারি সেবার বিল দিতে পারবেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম ও  বাংলাদেশে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হু কাং-ইল উপস্থিত ছিলেন এ অনুষ্ঠানে।

অমৃতবাজার/এএস