ঢাকা, রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মোবাইল ফোনে নতুন কলচার্জ নিয়ে যা বলছেন গ্রাহকরা


অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৬:৫৬ পিএম, ১৫ আগস্ট ২০১৮, বুধবার
মোবাইল ফোনে নতুন কলচার্জ নিয়ে যা বলছেন গ্রাহকরা

মোবাইল ফোনে অভিন্ন কলচার্জ ধার্য হওয়ায় গ্রাহকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া হয়েছে। সর্বনিম্ন কলরেট প্রতি মিনিট ৪৫ পয়সা ঠিক করা হলেও অপারেটরদের এর চেয়ে বেশি চার্জ নেওয়া হচ্ছে এবং তুলনায় মোবাইল ফোনে কথা বলার খরচ বেড়ে গেছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অনেক গ্রাহক।

গ্রামীণফোনের একজন গ্রাহক এসএমএস দেখিয়ে বলেন, ভ্যাট, এসডি (সাপ্লিমেন্টারি ডিউটি) ও এসসি (সারচার্জ) ছাড়াই প্রতি মিনিট ৬৬ পয়সা করে দিতে হবে। সব মিলিয়ে এক মিনিট কলে ব্যয় হবে প্রায় ৮০ পয়সা। আগে জিপি-জিপি কল হলে ভ্যাট, এএসডি ও এসসি বাদে ২৫ থেকে ৩০ পয়সা ব্যয় হতো প্যাকেজ ভেদে। অন্যান্য অপারেটরের ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটছে এবং গ্রাহকরা যোগাযোগ করছেন সংশ্লিষ্ট অপারেটরদের সঙ্গে এবং কোনো সুরাহা না পেয়ে ক্ষোভ ঝাড়ছেন।

এছাড়া গ্রামীনফোনের ভেরিফায়েড পেজে একজন গ্রাহক প্রশ্ন করেন, ‘আমি ফ্লেক্সিপ্ল্যানে ৩০০ মিনিট ১৫ দিনের করেছি প্রায় ১২৮ টাকা দিয়ে। এখন কি তা পারব একই টাকা দিয়ে।’ উত্তরে গ্রামীণফোন থেকে লেখা হয়, ‘দুঃখিত, সর্বশেষ নির্দেশনা অনুসারে কলরেট, ভয়েস প্যাক, ভয়েস অফার এবং ভয়েস ব্যালেন্সের পরিবর্তন হয়েছে। ৩০০ মিনিট ১৫ দিন এখন ২০৫.৫৭ টাকা (ভ্যাট, এসডি, এসসিসহ)।’ ফেসবুকে নিজেদের ওয়ালেও অনেকে প্রশ্নের জবাব চাচ্ছেন। একজন লিখেছেন, আমি জিপি ইন্টারনেটের ৩৩৭ টাকায় ২ জিবি ২৮ দিন মেয়াদি প্যাকেজ রিচার্জ করেছি দুই দিন আগে। আজ (মঙ্গলবার) সকাল থেকে ব্যালেন্স জিরো! কে দেবেন জবাব?

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গতকাল মঙ্গলবার রাতে জানান, ‘সার্বিক বিচারে আমরা কলরেট বাড়াইনি। অননেটে বাড়লেও অফনেটে কমেছে। আমরা সুস্থ প্রতিযোগিতা চাই। এ ছাড়া আমরা এমএনপি বা নম্বর বহাল রেখে অপারেটর পরিবর্তনের সেবা চালু করতে যাচ্ছি। এ ক্ষেত্রে অফনেট ও অননেট বিভাজন চালু থাকলে সমস্যা হতো।’ মন্ত্রী বলেন, আগে কলচার্জ অননেটে সর্বনিম্ন ছিল প্রতি মিনিট ২৫ পয়সা এবং অফনেটে ৬০ পয়সা, এখন তা ৪৫ পয়সা। আগে অফনেটে সর্বনিম্ন কলচার্জ প্রতি মিনিট ৬০ পয়সা থাকলেও গ্রাহককে ৯১ পয়সা থেকে ১ টাকা ৪০ পয়সা দিতে হতো। এখন অননেট গ্রাহকদের ব্যয় কিছুটা বাড়লেও অফনেট কলের ক্ষেত্রে সমস্যা দূর হয়েছে। এতে বেশির ভাগ অপারেটরের গ্রাহকরা উপকৃত হবেন।

রবির করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স প্রধান শাহেদ আলম বলেন, ‘আমাদের অনেক গ্রাহক বিষয়টি সম্পর্কে জানতে যোগাযোগ করেছেন। তাঁদের ভেবেছে ব্যয় বেড়ে যাবে। অনেকে তাদের প্যাকেজগুলো সম্পর্কে জানার চেষ্টা করেছে। প্যাকেজগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাদের টাকার কি হবে জানতে চেয়েছে। আমরা বলেছি, এ টাকা সমন্বয় করা হচ্ছে।

গ্রামীণফোনের চিফ করপোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মাহমুদ হাসান জানান, ‘আমাদের অনেক গ্রাহক বিষয়টি নিয়ে নানা রকম তথ্য জানতে চাচ্ছেন। এ বিষয়ে এখনই মন্তব্য করা যাচ্ছে না। গ্রাহকদের সুবিধা- অসুবিধার বিষয়টি মূল্যায়ন করতে আরো সময় লাগবে।’

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি ১৪ আগস্ট থেকে অফনেট ও অননেট বিভাজন তুলে দিয়ে সর্বনিম্ন প্রতি মিনিট ৪৫ পয়সা ও সর্বোচ্চ ২ টাকা কলচার্জ নির্ধারণ করে দেয়।

অমৃতবাজার/মিঠু