ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

যে ইবাদতে মিলবে পরকালে প্রিয়নবীর (সা:) শাফায়াত


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:৩৪ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭, রোববার | আপডেট: ০৫:৪৩ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৭, রোববার
যে ইবাদতে মিলবে পরকালে প্রিয়নবীর (সা:) শাফায়াত

পরকালে আল্লাহর রহমত এবং প্রিয়নবী (সা:) এর সুপারিশ ব্যতিত সফলতার কোনো সুযোগ নেই। তাই আল্লাহর রহমত লাভ এবং প্রিয়নবীর (সা:) সুপারিশ লাভে ইবাদত বন্দেগিতে মনোযোগী হওয়া আবশ্যক। পরকালে প্রিয়নবীর শাফায়াত লাভের জন্য ইখলাসের সঙ্গে ইবাদত বন্দেগি করা জরুরি।

বান্দা ইবাদত-বন্দেগিতে ইখলাস অবলম্বনের ক্ষেত্রের যতবেশি অগ্রগামী হবে সে কেয়ামতের দিন ততবেশি শাফায়াত লাভের ক্ষেত্রে এগিয়ে যাবে। প্রিয়নবী (সা:) এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেন-

‘কেয়ামতের দিন আমার শাফায়াত দ্বারা সবচেয়ে ভাগ্যবান হবে ওই ব্যক্তি যে ইখলাসের সঙ্গে (একনিষ্ঠভাবে) বলেছে, ‘আল্লাহ তাআলা ব্যতীত কোনো উপাস্য নেই।’ (বুখারি)

আলোচ্য হাদিসে দুটি বিষয় সুস্পষ্ট। পরকালে প্রিয়নবী (সা:) এর শাফায়াত লাভ করতে হলে অবশ্যই তাকে তাওহিদের ওপর একনিষ্ঠ বিশ্বাস স্থাপন করতে হবে। শিরকমুক্ত ঈমান লাভ করতে হবে।

আর এ সব ইবাদত-বন্দেগিতে ‘তাওহিদ, রেসালাত ও আখেরাতের প্রতি ইখলাসপূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন করতে হবে। তবেই প্রিয়নবীর (সা:) শাফায়াত সম্ভব হবে।

অমৃতবাজার/শাওন

Loading...