ঢাকা, রোববার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

নামাজে ‘রাব্বানা লাকাল হামদ’ বলার ফজিলত


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৭:০৫ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৭, রোববার
নামাজে ‘রাব্বানা লাকাল হামদ’ বলার ফজিলত

নামাজ ইসলামের প্রধান ইবাদত। ইসলামের রোকনগুলোর মধ্যে ঈমানের পরেই নামাজের স্থান। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের অনেক জায়গায় নামাজের নির্দেশ প্রদান করেছেন। আর পরকালে আল্লাহ তাআলা সর্ব প্রথম নামাজের হিসাব গ্রহণ করবেন। নামাজ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফজিলত লাভের ইবাদত।

বান্দা নামাজ আদায় করার জন্য যেমন সাওয়াব পাবেন। ঠিক নামাজের অন্যান্য রোকনগুলো যথাযথ আদায়ে পাবেন অতিরিক্ত সাওয়াব। যার মধ্যে একটি রুকু সেজদা থেকে ওঠার পর তাসবিহ পাঠ। হাদিসে এসেছে-

হজরত রিফাআহ বিন রাফে যারক্বি (রা:) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, ‘আমরা নবীকরিম (সা:) পেছনে নামাজ পড়ছিলাম। প্রিয়নবী যখন রুকু থেকে মাথা ওঠালেন, তখন তিনি বললেন, ‘সামি আল্লাহু লিমান হামিদাহ’। এ সময় তার পেছন থেকে এক ব্যক্তি বলে ওঠল, ‘রাব্বানা লাকাল হামদু হামদান কাছিরান, তাইয়্যেবান মুবারাকান ফিহ’। অর্থাৎ ‘হে আমাদের পালনকর্তা! তোমারই জন্য যাবতীয় প্রশংসা, অজস্র পবিত্রতা ও বরকতপূর্ণ প্রশংসা)।

অন্য হাদিসে এসেছে-
হজরত আবু হুরায়রা (রা:) থেকে বর্ণিত আল্লাহর রাসুল বলেন, ‘যখন ইমাম সামিআল্লাহু লিমান হামিদাহ’ বলে, তখন তোমরা ‘আল্লাহুম্মা লাকাল হামদ’ বল। কারণ যার ঐ (জিকির) বলা ফেরেশতাদের বলার সঙ্গে মিলে যায়, ওই ব্যক্তির পেছনের পাপসমূহ মাফ হয়ে যায়।’ (মুয়াত্তা মালেক, বুখারি, মুসলিম, তিরমিজি, নাসাঈ, আবু দাউদ)

অমৃতবাজার/শাওন

Loading...