ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০ | ২৬ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গ্রিসে ঘরোয়াভাবে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন



প্রকাশিত: ০৮:৪৭ পিএম, ১৮ মার্চ ২০২০, বুধবার | আপডেট: ০৮:৪৮ পিএম, ১৮ মার্চ ২০২০, বুধবার
গ্রিসে ঘরোয়াভাবে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন

গ্রিসে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনে বাধা হয়ে দাড়াতে পারেনি। দূতাবাসের উদ্ভাবনী উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশ এবং গ্রিসসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রবাসী বাংলাদেশি ও বিদেশী বন্ধুরা তাদের প্রাণের আবেগ ঢেলে ভিডিও বার্তার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিবেদন করেন ও পরস্পর শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

বাংলাদেশ দূতাবাস, এথেন্স যথাযথ মর্যাদা ও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২০ পালন করেছে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবস-২০২০ উপলক্ষ্যে দূতাবাস বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে এবং দূতাবাস চত্বর আলোকচিত্র,বর্ণাঢ্য ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুন ও বেলুন দিয়ে সজ্জি¦ত করা হয়।

১৭ই মার্চ সকালে দূতাবাস প্রাঙ্গনে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবাষিকী ও মুজিববর্ষ উদযাপন শুরু হয়। এরপর গ্রীসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. জসীম উদ্দিন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণের সময় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ এবং প্রবাসী বাংলাদেশি ও বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পুষ্পস্তবক অর্পণের পর দূতাবাসে আগত অতিথিদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর শুভ জন্মদিনের কেক কাটা হয়। এরপর মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করা হয়। রাষ্ট্রদূত জসীম উদ্দিন তাঁর বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক নেতৃত্বের কথা স্মরণ  করেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার দৃপ্ত পদক্ষেপে তাঁর সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তিনি প্রবাসীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করার আহবান জানান। প্রবাসে বেড়ে ওঠা শিশু কিশোরদের দেশের সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত করানো এবং জাতির পিতার আদর্শ তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার উপরও রাষ্ট্রদূত গুরুত্ব আরোপ করেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে দূতাবাস গ্রিসে বসবাসরত বাংলাদেশি শিশু-কিশোরদের জন্য রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভ‚ত পরিস্থিতির কারণে বিজয়ী শিশু-কিশোরদের মধ্যে পরবর্তীতে পুরস্কার বিতরণ করা হবে।

উল্লেখ্য, দূতাবাসের ব্যাপক প্রস্তুতি এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে অফুরন্ত উৎসাহ ও উদ্দীপনা থাকা সত্তে¦ও সমস্ত বিশে^ ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে স্থানীয় সরকারের কঠোর নির্দেশনা অনুযায়ী জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানসমূহ বিভিন্ন প্রবাসী সংগঠনের শুধুমাত্র প্রতিনিধিত্বশীল উপস্থিতিতে ঘরোয়াভাবে পালন করা হয়।

"

করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত ও সীমাবদ্ধ করা হলেও দূতাবাস বাংলাদেশের ৬৪টি জেলা, গ্রিস ও বিশে^র বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত বাংলাদেশিদের বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর উদযাপনে সংযুক্ত করতে ‘শত বর্ষে শত শহরের শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা’ শীর্ষক কর্মসূচি গ্রহণ করে। এতে বাংলাদেশ ও বিশে^র বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাংলাদেশিরা ও বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের বিদেশী বন্ধুরা জাতির পিতার প্রতি তাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা এবং দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এই শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছামালা দূতাবাসে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে প্রদর্শন করা হয় এবং শীঘ্রই তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ অন্যান্য প্রচার মাধ্যমে উন্মুুক্ত করা হবে। করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি এড়িয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা একসুত্রে গেঁথে সবার কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য দূতাবাসের এই উদ্যোগ ব্যাপক প্রশংসা লাভ করে।

অমৃতবাজার/এমএএন