ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পর্তুগালে ঈদের আমেজ, প্রবাসী বাংলাদেশিদের ব্যাপক প্রস্তুতি


নাঈম হাসান পাভেল, পর্তুগাল

প্রকাশিত: ০৪:২৮ পিএম, ৩১ মে ২০১৯, শুক্রবার
পর্তুগালে ঈদের আমেজ, প্রবাসী বাংলাদেশিদের ব্যাপক প্রস্তুতি

দেশের পাশাপাশি প্রবাসেও বিরাজ করছে ঈদের আমেজ। পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরাও ঈদকে কেন্দ্র করে সারছেন শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

দেশে স্বজনদের অর্থ প্রেরণ থেকে শুরু করে ঈদকে কেন্দ্র করে সারছেন শেষ মুহূর্তের কেনাকাটা। এছাড়া বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্সিতেও বাড়ছে ঘরমুখো প্রবাসী বাংলাদেশিদের টিকিট কেনার চাপ।

লিসবনের বেশ কয়েকটি বাংলাদেশি ট্রাভেল এজেন্সীর ব্যবসায়ীরা জানান, ঈদকে সামনে রেখে এমিরেটসসহ বেশ কয়েকটি এয়ারলাইন্সে বিশেষ ছাড়সহ অফার চলছে এর ফলে তাদের টিকিট বিক্রি যেমন বেড়েছে তেমনি ঘরমুখো মানুষও রয়েছেন স্বস্তিতে।

প্রবাসে ঈদ। আনন্দেরও দিনেও তাই যেন বুকের মাঝে চাপা কষ্ট আর দীর্ঘশ্বাসে পার করা। নেই স্বজনদের হাতে বানানো সেমাই বা পিঠা তবুও ঈদ তো ঈদ। স্বজনবিহীন বেদনার ঈদ তবুও সব ভুলে অনেকেই আবার নিচ্ছেন ঈদের প্রস্তুতি। তাই বাংলাদেশি মালিকানার সুপার মার্কেটগুলোতে ঈদকে সামনে রেখে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বাড়তি ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

রমজান উপলক্ষে এবং পর্তুগালের লিসবনে বাংলাদেশিদের কেন্দ্রস্থল মার্তৃম মুনিজ এলাকার বেনফরমসো সড়কে প্রতিদিনই হাজারো মানুষের আনাগোনায় মুখরিত। হঠাৎ দেখে মনে হবে ক্ষুদ্র এক বাংলাদেশ যেন। সংঘবদ্ধ বাংলাদেশিরা প্রবাসের যেখানেই হোক নিজেদের একটি কেন্দ্রস্থল খুঁজে নেয়। মার্তৃম-মুনিজ এখানকার বাংলাদেশিদের কেন্দ্রস্থল।

ঈদ প্রস্তুতিতে শুধু খাবার দাবার নয় প্রসাধনী ও নতুন পোশাক কিনতেও শপিংমল গুলোতে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে বাংলাদেশিদের মালিকানায় শতভাগ দেশীয় কোনো কাপড়ের দোকান না থাকায় ভারতীয় নাগরিকদের মালিকানাধীন দেশীয় ডিজাইনের বিভিন্ন কাপড়ের দোকানগুলোতে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে অনেককেই। অনেকেই জানিয়েছেন ঈদকে কেন্দ্র করে তাদের প্রস্তুতি এবং প্রবাসে ঈদের অভিজ্ঞতার কথা। শুধু ক্রেতাই নয় ব্যস্ত সময় কাজ করছেন লিসবনে অবস্থান করা বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরাও।

প্রিয় মানুষগুলোর ইচ্ছে পূরণ করতে বিভিন্ন মানি ট্রান্সফার কেন্দ্রগুলোতেও দেখা গেছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের পদচারণা। অনেকেই দেশে স্বজনদের জন্য কুরিয়ারে পাঠাচ্ছেন বিভিন্ন বিদেশী কসমেটিকস সামগ্রী।

প্রবাসে ঈদ পালন নিয়ে বেশ কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি জানান, প্রবাসের ঈদ আসলে অন্যরকম অনুভুতি। যতোই আয়োজন থাকুক কখনোই দেশের ঈদের মতো আমেজ এখানে পাওয়া যায় না। তবে সময়ের সাথে সাথে এখানে দেশীয় মানুষ বাড়ছে এবং ঈদের দিনে একে অন্যের বাসায় ঘুরে ফিরে ভালোই কেটে যায় ঈদ। তবুও রয়ে যায় আক্ষেপ।

দূতাবাসের তথ্য অনুযায়ী রাজধানী লিসবনসহ পর্তুগালের বিভিন্ন অঞ্চলে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশির সংখ্যা ১৫ হাজারের বেশী। বৈধ হওয়ার প্রক্রিয়া সহজ হওয়ায় প্রতিনিয়তই পর্তুগালে বাড়ছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সংখ্যা সেই সঙ্গে বাড়ছে বহু বাংলাদেশি পরিবার। তাই একসঙ্গে ঈদ উৎসব উদযাপনে যোগ হচ্ছে বাড়তি আমেজ।

অমৃতবাজার/আরএইচ