ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গ্রীসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০২:৫১ পিএম, ৩১ মার্চ ২০১৯, রোববার | আপডেট: ০২:৫২ পিএম, ৩১ মার্চ ২০১৯, রোববার
গ্রীসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে গ্রীসের এথেন্সে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস স্থানীয় একটি হোটেলে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) অনুষ্ঠিত এই অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গ্রীস-বাংলাদেশ সংসদীয় গ্রুপের চেয়ারম্যান আন্দ্রেয়াস রিজুলিস, গ্রীস সরকারের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দফতরের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, এথেন্সে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতগণ, স্থানীয় গ্রীক উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী, গ্রীসের সাংবাদিক, শিক্ষক, গবেষক, সংস্কৃতিকর্মীবৃন্দ।

অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানের শুরুতেই গ্রীসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. জসীম উদ্দিন স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন। রাষ্ট্রদূত তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অভ্যাগত অতিথিদের শুভেচ্ছা জানান। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের কথা উল্লেখ করেন। তিনি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ভূমিকার কথাও উল্লেখ করেন।

গ্রীসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান

বাংলাদেশ ও গ্রীসের মধ্যে বিদ্যমান ইতিবাচক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যে দুইদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অনুন্মেচিত সম্ভাবনা উন্মুক্ত করার উপর জোর দেন। বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থীর বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণ এবং মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে মানবাধিকার বিষয়ে বাংলাদেশের অবস্থানের প্রতি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে সমর্থন প্রদানের জন্য বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গ্রীস এবং অন্যান্য বন্ধু প্রতীম দেশকে ধন্যবাদ জানান। রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জোরালো ভূমিকার উপর জোর দেন।

এরপর অতিথিদের নিয়ে জাতীয় দিবসের কেক কাটেন রাষ্ট্রদূত। অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য বাংলাদেশের ঐতিহ্যভিত্তিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিদেশী অতিথিদের বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্বকারী বিশেষ উপহারও প্রদান করা হয়। জাতীয় দিবস অভ্যর্থনা উপলক্ষে বাংলাদেশের ব্যবসা, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরে একটি বাংলাদেশ কর্ণার স্থাপন করা হয়। বাংলাদেশ কর্ণারে বাংলাদেশি জামদানীসহ শাড়ির একটি মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশের পাট ও পাটজাত দ্রব্যের একটি আকর্ষনীয় প্রদর্শনী আয়োজন করে গ্রীসে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি পাটজাত দ্রব্যকে অতিথিদের কাছে তুলে ধরা হয়। আমন্ত্রিত অতিথিরা বাংলাদেশি পাটজাত দ্রব্যের সঙ্গে পরিচিত হয়ে এক্ষেত্রে ব্যবসার সম্ভাবনা নিয়ে গভীর আগ্রহ প্রকাশ করেন। প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের উন্নয়ন, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গণে বাংলাদেশের অর্জনকে তুলে ধরে ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া, দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প সামগ্রী এবং বাংলাদেশ বিষয়ক বইয়ের একটি প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয়।

গ্রীসে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠান

দূতাবাসের কর্মকর্তা ও অতিথিদের পাশাপাশি বিশিষ্ট গ্রীক ব্যক্তিবর্গ, বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, ব্যবসায়ী, জেলা ও বিভাগ ভিত্তিক আ লিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শেষে আগত অতিথিদের বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী খাবার পরিবেশন করা হয়।

অমৃতবাজার/পিকে