ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পর্তুগালে সর্ববৃহৎ কারিগরি উদ্ভাবনী মেলা ওয়েব সামিট ২০১৮ শুরু


পর্তুগাল প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৩:২৬ পিএম, ০৬ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
পর্তুগালে সর্ববৃহৎ কারিগরি উদ্ভাবনী মেলা ওয়েব সামিট ২০১৮ শুরু

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় কারিগরি উদ্ভাবনী মেলা ওয়েব সামিট শুরু হয়েছে। পর্তুগালের রাজধানী লিসবনের আলটিক এরিনায় সোমবার মেলার উদ্ভোধন করেন পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী এন্তোনিও কস্তা এবং লিসবন সিটি মেয়র ফার্নান্দো মেদিনা।

প্রযুক্তি, উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তাদের সবচেয়ে বড় এই সম্মেলনে সারাবিশ্বের ১৭০ দেশের প্রায় ৭০ হাজার ডেলিগেটরের অংশগ্রহণে এবার ১০০০ এর বেশি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে এতে রাজনীতি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, স্বাস্থ্য, পরিবেশসহ নানা বিষয়ে কথা বলবেন ৪০০`র বেশি বিশেষ অতিথী। ৫ নভেম্বর হতে শুরু হয়ে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে সর্ববৃহৎ এই সম্মেলন।

প্রারম্ভ দিনে ইন্টারনেটের প্রতিষ্ঠাতা টিম বার্নার্স-লি বিশ্বের সকল সরকার, সংস্থা এবং এ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরকে একটি নতুন "ওয়েব চুক্তি" করার আহ্বান জানিয়েছেন যাতে করে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের অধিকার ও স্বাধীনতাগুলি রক্ষা করা সহজ ও সংরক্ষিত হয়। এছাড়াও দিনের অন্যান্য অনুষ্ঠেয় ইভেন্টগুলোতে যোগ দেন জাতিসংঘের মহাসচিব এন্তোনিও গুতরেস, মাইক্রোসফট কর্পোরেশন প্রেসিডেন্ট ব্রাড স্মিথ, সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার।

এবছর ওয়েব সামিটে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশী কোনো প্রতিষ্ঠান নেই। ২০১৬ সালে কানেক্টিং স্টার্টআপস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতার মধ্যদিয়ে প্রথম আত্মপ্রকাশ করা বিজয়ী স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান ট্রাভেলিং বাংলাদেশ এতে প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছিলো। যেখানে তারা বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থান, ঐতিহ্যবাহী স্থাপনাসহ নানা ধরনের পর্যটন এলাকাকে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তুলে ধরার একটি স্টার্টআপ নিয়ে অংশ নিয়েছিলেন।

প্রযুক্তি আর কারিগরি উদ্যোক্তাদের এমন একটি মেগা ইভেন্টে বাংলাদেশের কোনো অংশগ্রহণকারী ও উদ্ভাবনী কোনো প্রতিষ্ঠান না থাকার ব্যাপারটি বেশ হতাশার। সম্মেলনে যোগ দেয়া বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অংশগ্রহণকারীরা তরুণ উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিগুলোর সাথে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা ভাগাভাগির করার সুযোগ হয় এই সম্মেলনে।

ফোর্বস ম্যাগাজিন ওয়েব সামিটকে সারাবিশ্বের প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় সম্মেলন বলে অবিহিত করে। ওয়েব সামিট এমন একটি প্লাটফর্ম তৈরি করে যেখানে পরস্পরের মধ্যে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা ভাগাভাগির করার সুযোগ হয়। এই সামিটে কীনোট সেশন থাকে যেখানে ওয়েব টেকনোলজির চ্যালেঞ্জ, উদ্ভাবন ও ব্যবসার বিভিন্ন দিক এবং প্রযুক্তি বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। চলতি বছর ছাড়াও আগামী আরও দশ বছর পর্তুগাল এই সম্মেলন আয়োজনের সুযোগ পাবে।

অমৃতবাজার/পাভেল/শাওন