ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পর্তুগালে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের সঙ্গে রাষ্ট্রদূতের মতবিনিময়


অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার
পর্তুগালে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের সঙ্গে রাষ্ট্রদূতের মতবিনিময়

আটলান্টিক পাড়ের দেশ পর্যটনের স্বর্গরাজ্য পর্তুগালে বসবাসরত বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় ও নৈশ্যভোজের আয়োজন করেন পর্তুগালে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রুহুল আলম সিদ্দিকী। ১লা ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রদূতের বাসস্থান বাংলাদেশ হাউজ লিসবনে আয়োজিত হয় মতবিনিময় সভাটি।

পর্তুগালের বিভিন্ন শহর থেকে মতবিনিময় সভায় যোগ দেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যাক বাংলাদেশী ব্যবসায়ী। দূতালয় প্রধান হাসান অাব্দুল্লাহ তৌহিদ ও দূতালয় কর্মকর্তা ওয়ায়েস খানের সার্বিক সহযোগিতায় অনুষ্ঠানে অাগত ব্যবসায়ীদের স্বাগত জানান বাংলাদেশ দূতাবাসের দুই কর্মকর্তা জনাব মোঃ নুরউদ্দিন ও মোঃ জনাব শাহাবউদ্দিন।

পর্যটনের স্বর্গরাজ্য পর্তুগালে বসবাসরত বেশিরভাগ বাংলাদেশীই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত! পর্যটন সহায়ক হওয়ায় বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের মধ্যে বেশীরভাগ বাংলাদেশীই পর্যটন ব্যবসার সাথে জড়িত। ব্যবসায়ীদের খোঁজ খবর, অবস্থান জানতে এবং নতুন উদ্যোক্তা ব্যবসায়ীদের দিক নির্দেশনার উদ্দেশ্যে অায়োজিত মতবিনিময় সভায় শুরুতেই অনুষ্ঠিত হয় ব্যবসায়ীদের পরিচিতি পর্ব।

ব্যবসায়ীরা পর্তুগালে বসবাস ও নিজেদের ব্যবস্যা সম্পর্কে বিবরণ তুলে ধরেন। এসময় রাষ্ট্রদূত ব্যবসায়ীদের অবস্থান ও ব্যবসায়ীক পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চান। ব্যবসায়ীরা নিজেদের ব্যবসায়ের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

পর্তুগালকে বাংলাদেশীদের জন্য ব্যবসা সহায়ক একটি দেশ হিসেবে অভিহিত করে রাষ্ট্রদূত বলেন, পর্তুগালে ব্যবসা বানিজ্যে বাংলাদেশীদের অবস্থান বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে এবং এ অবস্থানকে অারো দৃঢ় করতে বাংলাদেশ দূতাবাস লিসবন সবসময়ই পর্তুগালে অবস্থানরত বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করবে। এছাড়াও বাংলাদেশ থেকে পণ্য অামদানি-রপ্তানিতে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকেও যেকোনও উপায়ে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করার অাশ্বাস দেন রাষ্ট্রদূত জনাব রুহুল আলম সিদ্দিকী।

ব্যবসা বানিজ্যের অালোচনা ছাড়াও এদিন বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা রাষ্ট্রদূতের কাছে বেশ কয়েকটি দাবির কথা বলেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য দাবিটি ছিলো লিসবনে বেড়ে ওঠা শিশু কিশোরদের জন্য একটি বাংলা মিডিয়াম স্কুল প্রতিষ্ঠা করা। ব্যবসায়ীর দাবি বাংলা মিডিয়াম স্কুল না থাকার কারণে লিসবনে বেড়ে ওঠা বাংলাদেশী শিশুরা নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি শিক্ষা হতে বঞ্চিত হচ্ছে। রাষ্ট্রদূত এই দাবিটি অামলে নেন এবং বিবেচনার অাশ্বাস দেন। এছাড়াও নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য দূতাবাসের একটি হেল্প ডেস্ক খোলার দাবি রাখা হয়।

সবশেষে দেশীয় খাবারের অায়োজনে নৈশ্যভোজে অংশ নেন অনুষ্ঠানে অাগত ব্যবসায়ীবৃন্দ।

অমৃতবাজার/শাওন