ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সম্রাটসহ কয়েকজনের ব্যাংক হিসাব খতিয়ে দেখছে


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১:২১ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | আপডেট: ১১:২১ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
সম্রাটসহ কয়েকজনের ব্যাংক হিসাব খতিয়ে দেখছে

 

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট এর ব্যাংক হিসাব খতিয়ে দেখছে বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। অবৈধ লেনদেন ও মানি লন্ডারিংয়ের বিষয় অনুসন্ধান করতে সম্রাটের ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে।

একই সঙ্গে সন্ত্রাসে অর্থায়ন ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগে ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের ব্যাংক হিসাবও খতিয়ে দেখছে বিএফআইইউ।

সংস্থাটির প্রধান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই সম্রাট ও এমপি শাওনের ব্যাংক হিসাব খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে,  এই দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা না হওয়ায় আমরা খোঁজ খবর নিচ্ছি।’

এর আগে গ্রেফতারকৃত যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া ও গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জিকে শামীমসহ সব ক্যাসিনো কারবারিদের ব্যাংক হিসাব স্থগিত (ফ্রিজ) করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

একই সঙ্গে পাঁচ কর্ম দিবসের মধ্যে জি কে শামীমের ব্যাংক হিসাবের তথ্য চেয়েছে সংস্থাটি। বিএফআইইউ-এর প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজি হাসান সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, অর্থ পাচার ও সন্দেজনক লেনদেন প্রতিরোধে ক্যাসিনো কারবারিদের ব্যাংক হিসাব স্থগিত রাখতে দেশে কার্যরত ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া যুবলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে কোনো অনিয়ম পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ব্যাংকগুলোতে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, খালেদ মাহমুদ, জিকে শামীমের স্ত্রী, সন্তান ও মা বাবার ব্যাংক হিসাব স্থগিত রাখার পাশাপাশি ৫ কর্ম দিবসের মধ্যে সব তথ্য বিএফআইইউকে জানাতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাজধানীর ফকিরাপুল ইয়ংমেন্স ক্লাবের ক্যাসিনোয় অভিযান চালায় র‌্যাব। ওই রাতে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর ২০ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) নিকেতনে নিজের অফিস থেকে গ্রেফতার করা হয় জিকে শামীমকে। তারা বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন।

অমৃতবাজার/এএস