ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

নারায়ণগঞ্জ সংঘর্ষে অস্ত্র ব্যবহার দুই পক্ষেই


নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ০৯:২৬ এএম, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার
নারায়ণগঞ্জ সংঘর্ষে অস্ত্র ব্যবহার দুই পক্ষেই

নারায়ণগঞ্জে মঙ্গলবারের সংঘর্ষের সময় সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমানের অনুসারী নিয়াজুল ইসলামের হাতে পিস্তুল নিয়ে জোর আলোচনা চলছে তিন দিন ধরেই। কারণ, তার ছবিটিই প্রকাশ পেয়েছে গণমাধ্যমে। কিন্তু সংঘর্ষের সময় আরো একাধিক ব্যক্তির হাতে অস্ত্র দেখা গেছে যারা ছিলেন মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর অনুসারী।

মেয়রের অনুসারী হিসেবে পরিচিত আবু সুফিয়ান এবং মেয়রের মিছিলে আসা সুমন নামে একজনের হাতে অস্ত্রের ছবি সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করেছেন শামীম ওসমান।

আইভী তার সংবাদ সম্মেলনে নিয়াজুলের হাতে অস্ত্র নিয়ে নানা অভিযোগ করলেও তার অনুসারী আবু সুফিয়ান ও সুমনের হাতের অস্ত্রের বিষয়ে এখনও মুল খুলেননি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সংঘর্ষের দিন দুই দিক থেকেই মুহুর্মুহু  গুলির শব্দ পাওয়া গেছে। তবে সেদিন কেবল নিয়াজুলের হাতে অস্ত্র দেখা গেছে, যদিও তিনি গুলি করেছেন কি না সেটা স্পষ্ট না। কারণ হাতে পিস্তল দেখার পর তিনি আইভী সমর্থকদের বেদম পিটুনির শিকার হয়েছেন।

অন্যদিকে কোমড়ে অস্ত্র নিয়ে মিছিল করা এ কে এম আবু সুফিয়ান সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে তিনি যুবলীগের কর্মী ছিলেন। পরে তিনি মেয়র আইভীর সঙ্গে সখ্য গড়ে তুলে তিনি জেলার একজন প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদার হয়ে ওঠেন।

গত ১৫ ডিসেম্বর মেয়র আইভীকে ২৪ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিয়েছিলেন শামীম। আর পরদিন আইভী তার কয়েক হাজার কর্মীকে নিয়ে শামীম ওসমানের কর্মীদের অবস্থানের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করলে বাধে সংঘর্ষ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এই বার্তা শামীম এবং আইভীকে পৌঁছে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

এই ঘটনায় তদন্ত চলছে এবং অস্ত্রধারী কাউকে ছাড়া হবে না বলে ‘অ্যাসিউরেন্স’ (নিশ্চয়তা) দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

অমৃতবাজার/জয়