ঢাকা, রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলের মালিক কারা কারা জেনে নিন?


অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৭:০৬ পিএম, ২৯ জুন ২০১৮, শুক্রবার
বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলের মালিক কারা কারা জেনে নিন?

১। ইনডিপেনডেন্ট টিভি :

সালমান এফ রহমান।

২। ৭১ টিভি : বাম সাংবাদিক
মোজাম্মেল বাবু ও মেঘনা গ্রুপ।

৩। দেশ টিভি :
সাবের হোসেন চৌধুরী(MP) কিন্তু চালাচ্ছেন আসাদুজ্জামান নুর।

৪। বৈশাখী টিভি :
ব্যাবসায়ী গ্রুপ ডেসটিনি । কিন্তু চালাচ্ছেন সাংবাদিক নেতা মন্জুরুল আহসান বুলবুল।

৫। গাজী টিভি :
গাজী গোলাম দস্তগীর(MP)।

৬। বাংলাভিশন : চালাচ্ছেন
এক কালের বাম যুব নেতা মোস্তফা ফিরোজ। সব চাইতে বেশি শেয়ার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার।

৭। চ্যানেল আই :
ফরিদুর রেজা সাগর
(সাংকৃতিক কর্মী)

৮ । এটি এন বাংলা :
মাহফুজুর রহমান । চালাচ্ছেন সাংবাদিক জ.ই. মামুন।

৯। এটি এন নিউজ :
চালাচ্ছেন মুন্নী সাহা।

১০। মোহনা টিভি :
কামাল মজুমদার (MP)।

১১। সময় টিভি :
আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলামের ভাইয়ের টিভি।

১২। চ্যানেল ২৪ :
আওয়ামী লীগ ঘরোনার হামিম গ্রুপের চেয়ারম্যান একে আজাদ।

১৩। এন টিভি :
মোসাদ্দেক হোসেন ফালুর।

১৪ । দিগন্ত টিভি :
জামাত নেতা মীর কাশেম আলীর

১৫ । ইসলামীক টিভি :
খালেদা জিয়ার ভাই সাঈদ ইস্কানদার।

১৬ । বিটিভি : মালিক যখন
যে ক্ষমতায় আসে সে। সরকারী টিভি।

১৭। চ্যানেল ১ : এখন বন্ধ।
কিন্তু মালিক ছিলেন বি.এন.পির নেতা মির্জা আব্বাস ও গিয়াসুদ্দিন মামুন।

১৮। আর. টিভি :
বেঙ্গল গ্রুপের মোরশেদুল ইসলাম (MP)

১৯। এস এ টিভি :
এস এ পরিবহন/ সালাউদ্দিন আহমদ

২০) চ্যানেল ৯ :
বি এন পি ঘরোনার এনায়েতুর রহমান বাপ্পি ও আওয়ামী লীগের সৈয়দ আশরাফের ভাবি।

২১. একুশে টি ভি :
একুশে টেলিভিশনের মূল উদ্যেক্তা ছিলেন আবু সাঈদ মাহমুদ। একুশে টেলিভিশনের ৭০ ভাগ মালিকানা টেলিভিশনটির বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুস সালামের। বাকী ৩০ ভাগের মালিকানা আগের ১৩ জন উদ্যোক্তাদের মধ্যে ৬ জনের ৫ ভাগ করে। তারা হচ্ছেন, রউফ চৌধুরি (রেংগস গ্রুপ), এমরান মাহমুদ (মেট্রোওয়েভ), অঞ্জন চৌধুরি (স্কায়ার), আব্দুস সালাম (সারাইটেক্স), লিয়কত হোসেন (এম এ এস স্কায়ার গ্রুপ),

২২) মাছরাঙ্গা টিভি :
স্কয়ার গ্রুপের অঞ্জন চৌধুরী।

২৩) মাই টি ভি :
নাসির উদ্দিন সাথী।

২৪) যমুনা টি ভি :
যমুনা গ্রুপের নুরুল ইসলাম বাবুল।

সাকার ছিল একটি চ্যানেল। সিএসবি নিউজ নামে। কিন্তু ১/১১ এর সময় বন্ধ হয়েছে। ১/১১ না হলে ফালুর আরেকটি চ্যানেল আসত সেটার নাম হত “এন টিভি প্লাস” মেশিনারিজ ও নাকি এসে গিয়েছিল। সালাহুদ্দিন ও নাসির উদ্দিন পিন্টুও অনুমতি পেয়েছিল এস এন টিভি নামে। ১/১১ আসায় সেটাও বাতিল হয়।

অমৃতবাজার/মিঠু