ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | ৩০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

যশোরে শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তী পালন


যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৯:০১ পিএম, ২২ জুলাই ২০১৮, রোববার
যশোরে শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তী পালন

বৃষ্টিস্নাত শ্রাবণের বিকেলে যশোরে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জয়ন্তী পালিত হয়েছে। যশোর জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে রোববার টাউন হল মাঠের শতাব্দী বটমূলের রওশন আলী মঞ্চে এ উপলক্ষে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হুসাইন শওকত বলেন, কবিরা ভবিষ্যত দ্রষ্টা হয়। আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্বকে আপন হাতের মুঠোয় পুরে দেখতে চেয়েছিলেন। চন্দ্র-সূর্য-গ্রহ-তারা ছাড়িয়ে যাওয়ার তার সে সংকল্প বর্তমান মানুষের পক্ষে সম্ভব হয়েছে। মানুষ মঙ্গলগ্রহ জয় করেছে। ইন্টারনেট ও এনড্রয়েড ফোনের মাধ্যমে বিশ্বজগত এখন প্রকৃতই হাতের মুঠোয় চলে এসেছে।

রবীন্দ্র সাহিত্য প্রসঙ্গে তিনি বরেন, গীতাঞ্জলী কাব্যের জন্য কবি নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। শুধু তার কবিতা নয় সাহিত্যের সব শাখায় তার সদর্প বিচরণ আমাদের সমৃদ্ধ করেছে। সার্থক সাহিত্য সৃষ্টির জন্যে এই দুই কবি পৃথিবীর যেখানে বাংলা ভাষাভাষি মানুষ আছে সেখানেই সগৌরবে অবস্থান করেন।

জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদ হাসান বুলু সভাপতিত্বে আরো আলোচনায় অংশ নেন জেলা শিল্পকলা একাডেমির সহসাধারণ সম্পাদক দীপংকর দাস রতন ও সুরধুনি সংগীত নিকেতনের সভাপতি সংস্কৃতজন হারুণ অর রশীদ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পাশাপাশি সুরবিতান, উদীচী, কিংশুক, তির্যক, চাঁদের হাট, সুরধুনি সংগীত, পুনশ্চ, স্বরলিপি ও স্পন্দনের শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন। শিল্পকলা, আশাবরী, নন্দন, শেকড় ভৈরবের শিল্পীরা আবৃত্তি পরিবেশন করেন। বিবর্তনের বাচিক শিল্পীরা সমবেত কবিতার আবৃত্তি উপস্থাপন করেন। নৃত্য পরিবেশন করেন নৃত্যবিতান, শেকড়, ভৈরব ও শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীরা।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাছাই সাতটি নজরুল সংগীত, নয়টি রবীন্দ্র সংগীত ও তিনটি নৃত্যের উপস্থাপনা দর্শক শ্রোতাদের মোহিত করেছে।

অমৃতবাজার/প্রণব/সুজন