ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

আজীবন বন্ধুত্বের জয়গান


মল্লিক বিশ্বাস

প্রকাশিত: ০৪:২০ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০১৭, রোববার
আজীবন বন্ধুত্বের জয়গান

জগতের ভারসাম্য বিষয়টা হয়ত দৃশ্য আর অদৃশ্য উপাদানে গড়া। পূজিঁবাদী যুগে হিসাবের ঘরে সবকিছুইতেই পক্ষপাতিত্বের আধিপত্য। রাষ্ট্র, আইন আর শাসনে হয়ত আপনি শঙ্কিত, ভরসাহীন, ভারসাম্যহীন। কিন্তু আস্থার বিশ্বাস বলতে বাংলাতে একটাই কথা আছে মুখ আর বুক আর এই জড় শব্দদুটির প্রাণ হল বন্ধুত্ব, যা একসঙ্গে বন্ধু আমার, বন্ধু আমারা, আমাদের বন্ধুত্ব। বন্ধু সেই যে জানে না কে গরীব, কে আমীর, মানে না জাতের বাচ-বিচার, উচুঁ-নিচু ভেদাভেদ করা। এমনও বন্ধু আছে হয়ত যে জানে না এনিমির মানে কি।

আজ বিশ্ব বন্ধুত্ব বা বন্ধু দিবস। ঘুরে ফিরে প্রতি বছর আগস্ট মাসের প্রথম রোববার প্রায় সারা বিশ্বজুড়েই দিবসটি পালন করা হয়। বন্ধুত্ব দিবসের ইতিহাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে শুর হয়। ১৯৩৫ সালে, মার্কিন কংগ্রেস ঘোষণা করেন যে আগস্ট মাসের  প্রথম রোববার বন্ধুত্ব দিবস হিসেবে প্রতিপালিত হবে। সেই থেকে বন্ধুত্ব দিবস জাতীয় উদযাপিত দিনগুলোর মধ্যে একটি। এরপর শীঘ্রই এটি খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং তা আন্তজাতিক বন্ধুত্ব দিবসের রুপ লাভ করে।
 

/
বিশ্ব বন্ধুত্ব দিবস ধারণাটি ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই ডঃ অৎঃবসরড় ইৎধপযড় দ্বারা প্রস্তাবিত হয়, যখন তিনি তার বন্ধুদের সঙ্গে একটি নদীর তীরে ডিনার করছিলেন। বন্ধুত্ব দিবস বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন তারিখে পালন করা হয় ১৯৫৮ সালের ৩০ জুলাই প্রথম বিশ্ব বন্ধুত্ব দিবস পালন করার জন্য প্রস্তবিত করা হয়েছিল। ১৯৯৭ সালে জাতিসংঘ বিশ্বময় বন্ধুত্বের আলাদা দিন ঘোষণা করে৷ পরে ৩০ জুলাই দিনটি অফিসিয়ালি ২৭ এপ্রিল ২০১১ জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বন্ধু দিবস হিসেবে ঘোষিত হয়৷ বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে ভারত, বাংলাদেশ আগস্টের প্রথম রোববার বন্ধু দিবস উদযাপন করে। আড্ডা, ওপেন টি বায়োস্কোপ বা গোল্লাছুট এর নেশায় মেতে ওঠে বন্ধুরা। বন্ধু মনের কোণে ভেসে ওঠে জলছবি, রং-মশাল, স্কুল ছুটির হজমিরা রূপকথার পায়রাদের গল্প, শৈশবের আদুল গায়ে ছোটাছুটি মাঠে-ঘাটে রামধনু, ঝালমুড়ি, হাফ টিকিট, আব্বুলিশ বিটনুন আর চুরমুরের সব গল্প।

"

বন্ধু তোমার জন্য:
কৈশোরে বন্ধুর বন্ধুত্বে এনে দিব রোদ্দুর মন, মাঠজুড়ে খেলব আজ ওই ঘাসে, তোকে নিয়ে হারব তোর টিমে তোরই পাশে। সহসা কিছু ফুটকরাই, অ্যান্টেনা, হাতচিঠি, হাফ প্যাডেল, আয়না আর জলপরীর দিবে দেখা, বন্ধু তখন ভয় পেয়ে বন্ধুকে জড়াবে গায়ে। বন্ধুরা কখনো সাপ-লুডো, চিত্রহার, লোডশেডিং, শুকতারা, পাঁচ সিকের দুঃখদের মন ভূলাবে।
 
বন্ধু ঘর না বাধাঁ ঘরের কোণ:
বন্ধু কখনো বলবে হাতটা দে রাখব হাত তোর কাঁধে। শত স্বাপদ সংকুলে বন্ধু ছেড়ে না যাবে। বন্ধু হচ্ছে দুজন মিলে এক ভূবন দুহাতে মোহর কিনে ছড়িয়ে গেলেও ভালবাসা ফুরাবে না। এজগতে দামী দামী কত কি মেলে কিন্তু টাকায় যায় না কেনা কেবল বন্ধু। জীবন সঙ্গী কিংবা পথিক যাই হোক না কেন বন্ধুত্বের বন্ধন যেন এক অঙ্গ।

বন্ধু সে যে মরমিয়া:
দুনিয়াতে একমাত্র গর্ভেতে জন্ম না হয় বলে তাকে বন্ধু বলি। তবু নিজেরই যেন ভাই রক্তের ব্যবধান তুচ্ছ যেখানে বন্ধুর সঙ্গে হৃদয়ের এত মিল। বন্ধু মানে, ভাড়া করা সাইকেলের রেসগুলো ছুটছে ব্যাকপাসে, বন্ধু মানে ধোঁয়া ধোঁয়া নৌকার ছাইগুলো উড়ছে একপাশে। বন্ধু মানে সেলোফোনে মুড়ে রাখা রাংতারা সাদা কালো অ্যালবামে, বন্ধু মানে সন্ধ্যের আরতির শাঁখ বাজে বন্ধুর ডাক নামে।

লেখক
শিক্ষার্থী, সাংবাদিকতা বিভাগ
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

অমৃতবাজার/মল্লিক/ইকরামুল

Loading...