ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০ | ২২ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এক কয়েন ১০ কোটি ৪০ লাখ টাকায় বিক্রি!


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৪৮ এএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রোববার | আপডেট: ১১:৪৯ এএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রোববার
এক কয়েন ১০ কোটি ৪০ লাখ টাকায় বিক্রি!

 

ব্রিটেনের একটি কয়েন বিক্রি হয়েছে বাংলাদেশি মুদ্রায় ১০ কোটি ৪০ লাখ টাকা। যা ওই দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে দামি কয়েন। কয়েনটি ছিল ব্রিটেনের সাবেক রাজা অষ্টম এডওয়ার্ডের আমলের এবং তাঁর ছবি সম্বলিত। তবে কয়েনটি যিনি কিনেছেন তার পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। যদিও এই কয়েনটি কয়েক বছর আগে ৫ কোটি ৪০ লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছিল।

কয়েনটির এক পাশে রয়েছে রাজা অষ্টম এডওয়ার্ডের ছবি। আর অন্য পাশে রয়েছে ছুটন্ত ঘোড়ার পিঠে উপবিষ্ট বড় একটি লাঠি হাতে রাজকীয় এক ঘোড়সওয়ার।

১৯৩৬ সালের জানুয়ারি মাসে যখন রাজা অষ্টম এডওয়ার্ড সিংহাসনে আরোহণ করেন, তখন পরীক্ষামূলকভাবে তাঁর ছবি দিয়ে ছয়টি কয়েন তৈরি করা হয়। তবে কয়েনগুলো কখনোই বাজারে আসেনি কারণ ওই বছরই রাজা ওয়ালিস সিম্পসন নামে একজন বিধবা নারীকে বিয়ে করার জন্য ব্রিটিশ সিংহাসন হারান।

ব্রিটেনের প্রচলিত আইন অনুযায়ী রাজা এবং চার্চের প্রধান হিসেবে শাসনকর্তারা কখনোই বিধবা কোনো নারীকে বিয়ে করতে পারতেন না।

পদত্যাগের আগে জনতার উদ্দেশ্যে দেওয়া ঐতিহাসিক এক ভাষণে রাজা এডওয়ার্ড বলেছিলেন, ‘যে নারীকে আমি ভালোবাসি তার সাহায্য ও সমর্থন ছাড়া রাজকার্যের এই দায়িত্বের বোঝা আমার পক্ষে বহন করা সম্ভব না। তাই রাজা হিসেবে আমি আমার দায়িত্ব থেকে সরে গেলাম।’

যুক্তরাজ্যের জন্য সব ধরনের কয়েন তৈরির প্রতিষ্ঠান দ্য রয়েল মিন্ট সূত্রে জানা যায়, ওই সময়ে পরীক্ষার জন্য রাজা এডওয়ার্ডের নামে মাত্র ছয়টি কয়েন বানানো হয়েছিল। এরমধ্যে দুইটি কয়েন বর্তমানে ব্যক্তিগত মালিকানাধীন অবস্থায় আছে আর বাকি চারটি রয়েছে জাদুঘরে।

এই কয়েনটি বিক্রির আগে এর মালিক ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের একজন ব্যক্তিগত সংগ্রাহক। তিনি ২০১৪ সালে এক নিলাম থেকে ৫ কোটি ৪০ লাখ টাকায় কয়েনটি কিনেছিলেন। সর্বশেষ বিক্রিতে কয়েনটির মূল্য ১০ কোটি ৪০ লাখ টাকা হওয়ায়, এটিই বর্তমানে ব্রিটেনের সবচেয়ে দামি কয়েন।

দ্য রয়েল মিন্টের সংগ্রাহক সেবা শাখার প্রধান রেবেকা মরগ্যান বলেন, ‘দ্য এডওয়ার্ড এইট সভরেইন’ কয়েনটি বিশ্বের সবচেয়ে দুর্লভ ও সংগ্রহ করার মতো একটি কয়েন। তাই ব্রিটেনে কয়েন বিক্রির তালিকায় এটি যে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছে তাত্রে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই।

অমৃতবাজার/এএস