ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভয়ঙ্কর নারী কিলার `জলি` গ্রেফতার


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২:২৭ পিএম, ০৭ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
ভয়ঙ্কর নারী কিলার `জলি` গ্রেফতার

নাম জলি সাজু। ভয়ঙ্কর এক নারী কিলার। টানা ১৪ বছর ধরে পরিকল্পনা করে একের পর এক ঠাণ্ডা মাথায় স্বামীসহ ছয়জনকে খুন করেছেন।


অনেক হিসাব করে খুনগুলো করেছিলেন এই গৃহবধূ। কিন্তু শেষরক্ষা হলো না। খুনের ঘটনায় জলি সাজু ও তার দুই সঙ্গীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের কেরালা রাজ্যে।

কোঝিকোড়ের স্থানীয় পুলিশ সূত্রের বরাতে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার জানিয়েছে, জলি প্রথম খুন করেন ১৭ বছর আগে। ২০০২ সালে ৫৭ বছর বয়সে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান জলির শাশুড়ি আন্নাম্মা টমাস।

পুলিশ জানিয়েছে, সেই সময় স্বাভাবিক মৃত্যু বলে চালিয়ে দেয়া হয়। তার ছয় বছর পর আন্নাম্মার স্বামী টম মারা যান। ২০১১ সালে মৃত্যু হয় তাদের ছেলে তথা অভিযুক্ত জলির স্বামী রয় টমাসের।

তখন ময়নাতদন্তে বিষক্রিয়ার বিষয়টি উঠে এলেও তা নিয়ে বিশেষ তদন্ত হয়নি। ২০১৪ সালে আন্নাম্মার ভাই ম্যাথুও একইভাবে মারা যান।

২০১৬ সালে রয় টমাসের খুড়তুতো ভাই সাজুর স্ত্রী এবং দুবছরের মেয়ে অ্যালপাইনের মৃত্যু হয়।

সম্প্রতি পরিবারের এক সদস্যের অভিযোগে নতুন করে তদন্ত শুরু হলে বিষয়টি সামনে আসে।

খবরে বলা হয়, সম্পত্তি গ্রাস করতেই এমন চক্রান্ত করেছিলেন জলি। অভিযোগ পাওয়ার পর কবর খুঁড়ে নিহতদের দেহের ফরেনসিক পরীক্ষা করায় পুলিশ।

রিপোর্টে দেখা গেছে, মৃত্যুর আগে প্রত্যেকেই কিছু না কিছু খেয়েছিলেন এবং প্রত্যেকের শরীরে সায়ানাইডের অস্তিত্ব মেলে। তাতে সায়ানাইডের মাধ্যমে স্লো পয়জনিং করে তাদের খুন করা হয় বলে সন্দেহ হয় গোয়েন্দাদের।

তারা জানতে পারেন, প্রতিটি খুনের সময় জলি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন। দফায় দফায় জেরার পর জলিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। জলিকে সায়ানাইড পৌঁছে দেয়ার অভিযোগে এমএস ম্যাথু ও প্রাজিকুমার নামে আরও দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অমৃতবাজার/ কেএসএস