ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | ১ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্র ‘অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ’ চালাচ্ছে: রুহানি


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:৫৫ এএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার
যুক্তরাষ্ট্র ‘অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ’ চালাচ্ছে: রুহানি

ইরানের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সেইসঙ্গে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের আহবানকে ‘অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ’ বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। মঙ্গলবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে ইরান ইস্যু নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও হাসান রুহানির পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন রুহানি।

ইরানই বিশ্বের সন্ত্রাসবাদের প্রধানতম পৃষ্টপোষক বলে তর্ক শুরু করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ইরানের আগ্রাসন ও আধিপত্য বিস্তারের জন্য এর প্রতিবেশী দেশগুলোকে মাশুল দিতে হচ্ছে।

ট্রাম্প বলেন, প্রক্সি যুদ্ধের জন্য রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে কোটি কোটি ডলার অর্থ সরাচ্ছে ইরানের সরকার। ইরান সরকার পারমাণবিক অস্ত্র নির্মাণ, অভ্যন্তরীণ দমন নিপীড়ন বৃদ্ধি, সন্ত্রাসবাদে অর্থ সহায়তা, রাষ্ট্রীয় কোষাগার ধ্বংস এবং সিরিয়া ও ইয়েমেন যুদ্ধে হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে বলে অভিযোগ আনেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

তিনি বলেন, ইরানের এ আগ্রাসন এভাবে বাড়তে থাকলে সকল রাষ্ট্রকে আহবান করছি তাদেরকে একঘরে করা হোক। এছাড়া আগামী নভেম্বরে দ্বিতীয় পর্যায়ের নিষেধাজ্ঞা আরোপে ইরান আরও বেশি অর্থনৈতিক সমস্যার মুখোমুখি হবে বলেন তিনি।

ট্রাম্পের এমন বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। তিনি বলেন, নতুন করে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে দিয়ে `অর্থনৈতিক সন্ত্রাসবাদ` এর সৃষ্টি করতে যাচ্ছে মার্কিন প্রশাসন।

তিনি বলেন, এটি খুব বিদ্রুপাত্মক যে, যে সরকারকে বৈঠকের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় তাকেই আবার ক্ষমতা থেকে সরানোর পরিকল্পনা প্রকাশ্যে উচ্চারণ করা হয়।

তিনি সরাসরি ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করে বলেন, কিছু বিশ্বনেতা নিজেদের অদূরদর্শিতা এবং আন্তর্জাতিক মূল্যবোধ ও প্রতিষ্ঠানের প্রতি অসম্মান দেখিয়ে বিশ্বের নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের সরকার অন্তত বর্তমান প্রশাসন সব আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলিকে অকার্যকর করার জন্য দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

২০১৫ সালের পরমানু চুক্তি থেকে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তে যুক্তরাষ্ট্র নিজেকে প্রত্যাহার করে নিলেও গত কয়েক সপ্তাহ ধরে জল্পনা-কল্পনা চলছিল সৃষ্টি পরিস্থিতি উন্নয়ন নিয়ে। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ইরানের বৈঠকের কথাও শোনা যাচ্ছিল। কোনো পূর্বশর্ত ছাড়া নতুন আরেকটি চুক্তি করার জন্য ইরানের প্রেসিডেন্ট রুহানির সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাইলেও মঙ্গলবার এ বৈঠকের সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দেন ট্রাম্প।

রোববার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনিকে বৈঠকের প্রস্তাব দিলেও পরদিন রুহানি তা নাকচ করে দেন। তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্র ২০১৫ সালের পারমাণবিক চুক্তিতে ফিরে না এলে ট্রাম্পের সাথে আলোচনায় যাবে না তেহরান। সূত্র: পার্সটুডে

অমৃতবাজার/সুজন