ঢাকা, রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নাবালিকাকে ধর্ষণ করে জেলে, জামিনে বেরিয়ে মাকে ধর্ষণ


অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:০২ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার | আপডেট: ০৫:২৯ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, শনিবার
নাবালিকাকে ধর্ষণ করে জেলে, জামিনে বেরিয়ে মাকে ধর্ষণ প্রতিকী ছবি।

দুবছর আগে নাবালিকার শ্লীলতাহানীর দায়ে জেলে পাঠানো হয়েছিল ধর্ষকদের। কিন্তু জামিনে মুক্তি পেয়ে জেল থেকে বেরিয়ে তার প্রতিশোধ নেয় তারা। এবার তাদের শিকার ওই নাবালিকার মা। লোমহর্ষক ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের কানপুরে। খবর এনডিটিভির।

শুক্রবারের এই ঘটনায় কানপুরের একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় বছর চল্লিশের হতভাগ্য ওই নারীর। এই ঘটনার ৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ক্লিপ প্রকাশ পেয়েছে ইতোমধ্যে।

ভিডিওতে দেখা যায়, লাল কোর্তা পরা এক মধ্যবয়স্ক নারী পড়ে আছেন মাটিতে। আর পা দিয়ে তার মুখে সমানে লাথি মারছে সাদা পাঞ্জাবি পরা একজন লোক। কানপুরে এক বাড়ির ছাদ থেকে তোলা হয় ওই ভিডিও।

জানা গেছে, এর আগে ওই নারীর নাবালিকা মেয়ের শ্লীলতাহানি করেছিল ছয় দুষ্কৃতী। পুলিশে অভিযোগ জানালে গ্রেফতার করা হয় তাদের। এরপর জামিনে মুক্তি পেয়ে শ্লীলতাহানিতে অভিযুক্তরা হানা দেয় নিগৃহীত কিশোরীর বাড়িতে। মেয়ে ও তার মাকে বেধড়ক মারধর করে তারা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৪০ বছরের ওই মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে মৃত্যু হয় তার।

১৩ বছরের কিশোরীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে আবিদ, মিন্টু, সাদ, চাঁদবাবু, জামিল ও ফিরোজ নামের ৫ জনকে গ্রেফতার করা হলেও স্থানীয় আদালত থেকে জামিন পেয়ে যায় তারা।

পুলিশ জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার দলবল নিয়ে নাবালিকার বাড়িতে চড়াও হয় জামিনে মুক্তিপ্রাপ্তরা। কিশোরীর পরিবারকে শ্লীলতাহানির মামলা তুলে নেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে তারা। কিন্তু মেয়েটির মা তাতে রাজি না হলে বেধড়ক মারধর করা হয় তাকে। মারধর করা হয় ওই পরিবারের অন্য এক নারীকেও। ঘটনার পর গুরুতর আহত অবস্থায় কিশোরীর মাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে মারা যান তিনি।

পুলিশ সুপার (পূর্ব) রাজকুমার আগরওয়াল জানান, হামলাকারীদের মধ্যে ৩ জন এখনও পলাতক। বাকি তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শুক্রবার নিগৃহীত মহিলার মৃত্যু হওয়ায়, পুলিশ ধৃতদের বিরুদ্ধে নতুন করে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছে।

অমৃতবাজার/এসএইচএম