ঢাকা, বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯ | ৬ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘ভিডিওটি যখন দেখছেন তখন আমি জান্নাতে চলে গেছি’


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৩:১৬ পিএম, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শনিবার
‘ভিডিওটি যখন দেখছেন তখন আমি জান্নাতে চলে গেছি’

‘আপনারা যখন এই ভিডিও দেখছেন তখন আমি জান্নাতে চলে গেছি।’ সম্প্রতি প্রকাশিত এক ভিডিওতে এমনটাই দাবি করেছেন কাশ্মীরের হামলাকারী জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মুহাম্মদের হামলাকারী সদস্য।

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় সময় ৩টা ১৫ মিনিট নাগাদ জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলার অবন্তীপোরার বাইপাসের কাছে গোরীপোরা এলাকায় জম্মু-শ্রীনগর ছয় নম্বর জাতীয় সড়কের উপর এই হামলা চালানো হয়। ওই হামলায় ৪৪ সেনা নিহত এবং আরও ৪১ সেনা আহত হয়েছে।

ভয়াবহ এ হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মুহাম্মদ।

সেনাবাহিনীর গাড়িবহরে হামলার কয়েক মুহূর্ত পরেই একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে ওই গোষ্ঠী। ওই ভিডিওতে জইশ-ই-মুহাম্মদের পতাকার সঙ্গে এক তরুণকে দেখা যাচ্ছে, যার নাম আদিল আহমেদ দার।

ধারণা করা হচ্ছে, বৃহস্পতিবারের ওই ভয়াবহ হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন ২২ বছর বয়সী ওই তরুণ।

ওই ভিডিওতে আদিল আহমেদ কাশ্মীরের জনগণকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আমার নাম আদিল। আমি এক বছর ধরে জইশ-ই-মুহাম্মদের সঙ্গে আছি। এক বছর অপেক্ষা করার পর আমি এই হামলার সুযোগ পেয়েছি। ...কিন্তু এ ভিডিওটি যখন আপনারা দেখছেন তখন আমি জান্নাতে পৌঁছে গেছি। কাশ্মীরের লোকজনের প্রতি এটাই আমার শেষ বার্তা।’

ধারণা করা হচ্ছে পুলওয়ামারে হামলা চালানোর আগেই ওই ভিডিও বার্তাটি ধারণ করা হয়েছিলো।

ওই ভিডিওতে তিনি উত্তর কাশ্মীরের লোকজনের উদ্দেশে বলেন, দক্ষিণ কাশ্মীরের লোকজন এতদিন ধরে ভারতের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে, এখন উত্তর এবং কেন্দ্রীয় কাশ্মীরের লোকজনেরও দক্ষিণের লোকজনের সঙ্গে যোগ দেয়া উচিত।

তিনি ভারতীয় সেনাদের লক্ষ্য করে বলেন, ‘আমাদের অল্প কয়েকজন যোদ্ধাকে হত্যা করে আপনারা আমাদের দুর্বল করতে পারবেন না ‘

পুলিশের উদ্ধৃতি দিয়ে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানায়, ২০১৬ সালের মার্চে স্কুল ছাড়েন আদিল। এর এক বছর পর তিনি জঙ্গি দলে যোগ দেন। স্কুল বাদ দেয়ার পর রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন আদিল। এছাড়া এলাকর মসজিদে নামাজও পড়াতেন তিনি। তার আরও দুই ভাই আছে।

অমৃতবাজার/পিকে