ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ | ১ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ভোরে ঘুম থেকে উঠার উপকারিতা


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৯:১২ এএম, ১৫ মে ২০১৮, মঙ্গলবার
ভোরে ঘুম থেকে উঠার উপকারিতা

আমরা অনেকে আলসেমি করে দেরি করে ঘুম থেকে উঠি। এতে আমাদের অনেক সময় সকালের নাস্তা খাওয়া পড়ে দুপুরে। এটা স্বাস্থের জন্য ক্ষতি। কিন্তু ভোরে ঘুম থেকে উঠলে বিশুদ্ধ নিঃশ্বাস নেওয়া যায়। বাতাসে কম ধূলাবালি থাকে। শুধু স্বাস্থের জন্য নয়, অন্যান্য প্রয়োজনেও সকালে ঘুম থেকে ওঠার বিশেষ উপকার রয়েছে। জেনে নিন ভোরে ঘুম থেকে উঠার উপকারিতা-

১. নাস্তা:
দিনের কাজ শুরুর জন্য সকালের নাস্তা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তাই সকালে উঠে একটা জম্পেশ নাস্তা করা অতি জরুরি কাজের মধ্য একটি। কারণ সকালের স্বাস্থ্যকর নাস্তা পুষ্টি ও ভিটামিন দেয় আমাদের। তাই যেকোনো কাজে ভালো পারফরমেন্সের সঙ্গে একঘেয়েমি দূর করতে সহায়তা করে। এ ছাড়া অধিক শক্তিসহ দেয় কাজে মনোযোগ।তাই ভালো একটা নাস্তার জন্য সকালে উঠুন।

২. বিশুদ্ধ বায়ু:
সারাদিন মানুষের চলাফেরা ও কলকারখানা খুলা থাকে বলে দিনে বাতাসে প্রচুর রোগ-জীবানু থাকে। কিন্তু ভোরের বায়ু থাকে বিশুদ্ধ। ফলে আপনি নিঃশ্বাস নেওয়ার সময় বিশুদ্ধ বায়ু শরীরের ভেতরে নিতে পারছেন।

৩. ব্যায়াম:
সকালে ঘুম থেকে ওঠার আরেকটি সুফল বয়ে আনবে ব্যায়াম। সেই সঙ্গে রাতের ঘুমও গভীর করবে ব্যায়াম। যারা সকালে উঠে ব্যায়াম করেন তারা সারাদিন ঝরঝরে থাকেন এবং রাতেও গভীর ঘুম উপভোগ করেন।

৪. আরামে কাজ সারা:
সময়মতো উঠে পড়লে আরামে কাজগুলো শেষ করতে পারবেন। অফিসে যাওয়ার সময়ও থাকবে যথেষ্ট। ফলে সেখানে সময়মতো পৌঁছতেও পেরেশানি হতে হবে না আপনাকে।

৫. ওজন কমা ও শারীরিক ফিটনেস থাকা:
যারা সময়ের অভাবে রোজ নাস্তা করার পর্বকে বাদ দিয়ে দেন, তাদের জন্য সকালে উঠে পড়াটা একটি দারুণ সমাধান। সকালে ভরপেট নাস্তা শরীরের জন্য একান্ত প্রয়োজন, এটা শরীরকে ফিট ও ওজন কমাতে সহায়তা করে। সকালে নাস্তা বাদ দলে মস্তিস্কেরও ক্ষতি হয়, কথাটা মনে রাখুন

৬. পড়াশুনা:
ভোরে ঘুম থেকে উঠলে আপনি ফ্রেস মনে পড়াশুনায় সময় দিতে পারবেন। এতে কোনো কিছু অন্য সময়ের থেকে তাড়াতাড়ি মুখস্ত হয়। তাছাড়া, ছোট ভাই-বোনেরা আপনার পড়াশুনায় ব্যাঘাত ঘটাবে না।

৭. মস্তিষ্ক ও মন থাকবে শান্ত:
পৃথিবীর সমস্ত সফল ও ধনী ব্যক্তিরা সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠেন সেটাই তাদের সফলতার রহস্য। কারণ সকালে আলস্য পরিহার করে ঘুম থেকে উঠে যাওয়াটা সারাদিন তাদের এগিয়ে রাখে দুই কদম। সময় তো নিয়ন্ত্রণে থাকেই, তাদের মন থাকে শান্ত, মস্তিষ্ক থাকে প্রখর এবং নিজের সকল কাজে সহজেই সফলতা অর্জন করতে পারেন তারা।

অমৃতবাজার/শাওন