ঢাকা, রোববার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ | ৪ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কালোজিরার ঔষধি গুনাগুণ!


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:৪৭ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০১৮, শনিবার
কালোজিরার ঔষধি গুনাগুণ!

খাবারে ভিন্নধর্মী স্বাদ আনাতেই অতুলনিয় কালোজিরার ব্যবহার। আয়ুর্বেদিক ও কবিরাজি চিকিৎসাতে কালোজিরার অনেক ব্যবহার হয়। কালোজিরার বীজ হতে তেল হয়, যেটি আমাদের শরীরের জন্য খুব কার্যকারী। কালোজিরা আছে ফসফেট, আয়রন, ফসফরাস যে গুলো আমাদের দেহকে রক্ষা করে নানা ধরনের রোগের থেকে। তবে দেখে নেয়া যাক প্রতিদিন কালোজিরা খাওয়ার উপকারিতা।

গুণাগুণ রয়েছে যা নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলো:
রোগ প্রতিরোধে: রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে কালোজিরা। নিয়মিত কালোজিরা খেলে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সতেজ থাকে। এটি যে কোনো জীবানুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেহকে প্রস্তুত করে তোলে এবং সার্বিকভাবে স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে: ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের রক্তের গ্লুকোজ কমিয়ে দেয় কালোজিরা। যার ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে: কালোজিরা নিম্ন রক্তচাপ বৃদ্ধি করে স্বাভাবিক করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দেহের কলেস্টোরল নিয়ন্ত্রণ করে উচ্চ রক্তচাপ হ্রাস করে শরীরে রক্তচাপের স্বাভাবিক মাত্রা বজায় রাখে।

যৌনক্ষমতা বৃদ্ধিকরণে: যৌনক্ষমতা বৃদ্ধি করতর কালোজিরা নারী-পুরুষ উভয়ের জন্য উপকারি। প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে কালোজিরা খেলে পুরুষের স্পার্ম সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। এটি পুরুষত্বহীনতা থেকে মুক্তির সম্ভাবনাও তৈরি করে।

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে: প্রতিদিন কালোজিরা খেলে দেহে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয়। এতে করে মস্তিস্কে রক্ত সঞ্চালনের বৃদ্ধি ঘটে, যা আমাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

হাঁপানী রোগ উপশমে: হাঁপানী বা শ্বাসকষ্ট সমস্যা সমাধানে কালোজিরা উপকারি। প্রতিদিন কালোজিরার ভর্তা খেলে হাঁপানি বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা উপশম হয়।

পিঠে ব্যথা দূরীকরণে: কালোজিরার হতে তৈরি তেল আমাদের দেহে বাসা বাঁধা দীর্ঘমেয়াদী রিউমেটিক এবং পিঠে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া সাধারণভাবে কালোজিরা খেলে খুব উপকার পাওয়া যায়।

শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধিতে: নিয়ম করে কালোজিরা খাওয়ালে দ্রুত শিশুর দৈহিক ও মানসিক বৃদ্ধি ঘটে। কালোজিরা শিশুর মস্তিষ্কের সুস্থতা এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতেও উপকারি।

কালোজিরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। নিয়মিত কালোজিরা খেলে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সতেজ থাকে। এতে করে যে কোনো জীবানুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেহকে প্রস্তুত করে তোলে এবং সার্বিকভাবে স্বস্থ্যের উন্নতি করে।

অমৃতবাজার/সবুজ