ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৫ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণের কারণ


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৩০ এএম, ১৩ এপ্রিল ২০১৮, শুক্রবার
গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণের কারণ

অনেক সময় গর্ভাবস্থায় পিরিয়ডের রাস্তায় রক্তক্ষরণ হয়। এটি বেশ ঝুঁকির। গর্ভাবস্থায় রক্তক্ষরণ যেকোনো গর্ভবতী মায়ের জন্য ভালো নয়। গর্ভাবস্থায় বিভিন্ন সময় রক্তপাত হতে পারে। পুরো গর্ভাবস্থাকে তিন ভাগে ভাগ করলে প্রথম তিন মাস, মাঝের তিন মাস ও শেষের তিন মাসের যেকোনো সময় রক্তক্ষরণ হতে পারে।

আমাদের দেশে সাধারণত গর্ভবতীর শুরুতে ২০ থেকে ৪০ শতাংশ মহিলার সামান্য পরিমাণে রক্তক্ষরণ হতে দেখা যায়। গর্ভাবস্থায় জরায়ুতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে এটি ঘটে থাকে অথবা ভ্রুণ যখন জরায়ুর ভেতরের স্তরে স্থাপিত হওয়া শুরু করে তখন সামান্য রক্তক্ষরণ হতে দেখা যায়।

ডিম্বাণু নিষিক্ত হওয়ার ৬-১২ দিনের মধ্যে এই সমস্যা হতে পারে। খুব অল্প পরিমাণে গোলাপি বা কালচে রক্তের ছোপ অস্বাভাবিক কোনো ঘটনা নয়, তবে যদি বেশি পরিমাণে রক্ত নিঃসৃত হয় যা দেখতে মাসিকের মতো মনে হয়, তবে কালক্ষেপণ না করে দ্রুত ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। বেশি রক্তক্ষরণ গর্ভপাতের কারণ হতে পারে। অল্পমাত্রার রক্তক্ষরণের পরও সুস্থ সন্তানের জন্ম দিয়েছে এমন অনেক মা রয়েছেন।

তাছাড়া গর্ভাবস্থায় অনেক সময় নাক এবং মুখের রক্তনালীতে রক্তের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় এগুলো অধিক সংবেদনশীল হয়ে পড়ে। সেজন্য অনেক সময় এসব অঙ্গে রক্তক্ষরণ হতে পারে কিংবা দাঁত ব্রাশ করার সময় রক্তপাত হতে পারে। সেক্ষেত্রে রাতে শোবার সময় নাকে নরমাল স্যালাইন ড্রপ ব্যবহার করা যেতে পারে এবং দাঁত ব্রাশ করার সময় নরম ব্রেসলের ব্রাশ দিয়ে সাবধানে ব্রাশ করতে হবে।

আর যদি কোনো কারণ ছাড়া শুধু দাঁত, মাড়ি অথবা নাক দিয়ে রক্ত পড়ে তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

অমৃতবাজার/সবুজ