ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিমান থেকে পড়েও যেভাবে বেঁচে থাকল কুকুরটি


অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৯:৪০ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার
বিমান থেকে পড়েও যেভাবে বেঁচে থাকল কুকুরটি

উড়ন্ত বিমান থেকে পড়ার পর সাধারণত কোনো মানুষ বা পোষা প্রাণীর বেঁচে থাকার কথা নয়। যে উচ্চতায় বিমান উড়তে থাকে, স্বাভাবিকভাবেই অত উঁচু থেকে পড়ার পর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা থাকে না কারও কিন্তু অবিশ্বাস্য এই ঘটনাটি ঘটেছে চিলিতে। সম্প্রতি সেখানে উড়ন্ত বিমান থেকে পড়েও অলৌকিকভাবে বেঁচে গেছে একটি কুকুর!

জেনিস কেভিয়ারেস। তিনি চিলির একজন সম্ভ্রান্ত ধন কুবের। বেশ কিছু দিন আগে ব্যবসায়িক কাজের জন্য সান্টিয়াগো থেকে ইকুইকিউ শহরে যান। শহরটি দেশের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত। জরুরী অবস্থায় কাজের চাপে প্রিয় কুকুরকে সঙ্গে নিতে ভুলে যান তিনি। পরে বন্ধু লিহিয়া গ্যালার্ডোকে দায়িত্ব দেন কুকুরকে সঙ্গে করে আনার। তো মালিকের কাছে যাবার জন্য কুকুর গ্যাসপার রওনা দেয় তার বন্ধু গ্যালার্ডোর সাথে। কিন্তু পথে ঘটল বিপত্তি। গ্যালার্ডো অন্য ক্রুদের সাথে বিমানে বসলেন নিজের আসনে। অন্যদিকে পেট অ্যানিমালদের সংরক্ষিত জায়গায় উঠল গ্যাসপার। শুরু হল যাত্রা। বিমান যখন ভয়ঙ্কর মরুভূমি আতাকামা পাড়ি দিচ্ছিল তখন কী করে যেন সেখান থেকে পড়ে গেল গ্যাসপার। গ্যালার্ডো ফিরে গিয়ে বন্ধুকে জানালেন সব কথা।

প্রিয় কুকুর হারানোর শোকে কেভিয়ারেস তখন আবেগাপ্লুত। জরুরী সহায়তা নিয়ে কয়েকজন সেনা সদস্যের সাথে তাৎক্ষণিকভাবে রওনা দিলেন আতাকামার উদ্দেশ্যে। একে তো এই মরুভমি পৃথিবীর সবচেয়ে শুষ্কতম জায়গা, তার উপর ভীষণ গরম ও বিপদসঙ্কুল। যাই হোক, সব কিছু পেছনে ফেলে টানা ছয় দিন সেই মরুভূমিতে চলল অভিযান। অবশেষে সপ্তম দিনে গিয়ে কেভিয়ারেস দলবলসহ খুঁজে পেলেন গ্যাসপারকে।

তার প্রিয় কুকুর শুধু বেঁচেই নেই বরং রয়েছে সম্পূর্ণ সুস্থ ও স্বাভাবিক। এরকম বৈরী পরিবেশে আতাকামা মরুভূমিতে বিমান থেকে পড়েও কুকুরটি কিভাবে বেঁচে থাকল তা এক বিরাট রহস্য! তার উপর খাদ্য ও পানিহীন জায়গায় এই কদিন কী করে সে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখল তাও উদ্ধার করা যায়নি। সেসব নিয়ে ভাবতে বয়েই গেছে কেভিয়ারেসের। গ্যাসপারকে ফিরে পাওয়ার আনন্দেই যে তিনি আটখানা! পরে গণমাধ্যমে ভাইরাল হয় কুকুরটির বেঁচে থাকার ও উদ্ধারের অলৌকিক গল্প।

অমৃতবাজার/মিঠু