ঢাকা, রোববার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কারাগারে কয়েদিদের জন্য ওরাল সেক্সের সুবিধা!


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০২:২১ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
কারাগারে কয়েদিদের জন্য ওরাল সেক্সের সুবিধা!

বন্দিজীবনে কঠোর নিয়মের বেড়াজালে সুখের কোনো জায়গা নেই। কিন্তু সে তো আইন মোতাবেক কথা। আইন যখন আছে, তার ফাঁকও আছে। আর সেই ফাঁক-ফোকর এমনভাবে কাজে লাগাল ফ্রান্সের এক জেলের বন্দিরা, তা দেখে চক্ষু চড়কগাছ গোটা বিশ্বের। সেখানে মহিলা কারারক্ষীকেই তারা রাজি করিয়ে ফেলেছে মুখমেহনে। বন্দিদশাতেই তাই মিলছে ওরাল সেক্সের সুখ।

ঘটনার একটি ভিডিও সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে নেটদুনিয়ায়। জেলের মধ্যেই যে ভিডিওটি তোলা হয়েছে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, নগ্ন অবস্থায় এক মহিলা কারারক্ষীকে ডাকছে এক বন্দি। কারারক্ষীটি তার কাছেও এলেন। তাদের মধ্যে কিছু কথাবার্তা হল। তারপরই এদিক, ওদিক তাকিয়ে মহিলা ঝুঁকে বসে পড়লেন। ভঙ্গিমা দেখে স্পষ্ট যে মুখমেহনের কাজই চলছে। ছোট্ট এই ভিডিও ক্লিপিংই তোলপাড় ফেলেছে সে-দেশে। ঘটনাটি দেশের এক শীর্ষসারির সংবাদপত্রের খবর হিসেবে প্রকাশিতও হয়েছে।

ভিডিও দেখে বন্দির পরিচয় জানতে অসুবিধা হয়নি। জানা যাচ্ছে, মাদক নেওয়া বা এই সংক্রান্ত অপরাধেই সে বন্দিদশা কাটাচ্ছে। কিন্তু জেলের ভিতরও যৌনসুখের বন্দোবস্ত করে ফেলেছে। মহিলা কারারক্ষীকেও চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে। জানা যাচ্ছে, শিক্ষানবীশ হিসেবে ওই জেলে কাজ করতেন তিনি।

নামেই বন্দিদশা, আসলে যে জেলের ভিতর নিজস্ব সাম্রাজ্যে বহাল তবিয়তে আছে অপরাধীরা তা একরকম স্পষ্ট। জেলের মধ্যে ফোন বা নেশার জিনিস সরবারাহ করার অভিযোগ প্রায়শই ওঠে। কিন্তু তা বলে কারারক্ষীকে রাজি করিয়ে ওরাল সেক্সের ঘটনা এর আগে খুব একটা শোনা যায়নি।

মহিলা কারারক্ষীটির উপর কোনওরকম জোর করেনি ওই বন্দি। যেন কর্তৃপক্ষর চোখ এড়িয়ে স্বেচ্ছাতেই এ কাজে রাজি হয়েছিলেন তিনি। তাহলে কি জেলারের নজর এড়িয়ে বন্দিরা শরীরের চাহিদা মেটাতে সেক্স ব়্যাকেটও চালায় জেলের মধ্যে?

অমৃতবাজার/জয়