ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খেলার সাথী বানর


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০১:৩৩ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৮, বুধবার | আপডেট: ০২:৫৭ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৮, বুধবার
খেলার সাথী বানর

ভারতের বেঙ্গালুরু শহরের প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দূরে আল্লাপুর নামে এক গ্রামে দেখা মেলে এক বিস্ময় বালকের। দুই বছর বয়সী সমর্থ অন্যদের চেয়ে একটু আলাদা। এই ছোট্ট বালককে হরহামেশাই খেলতে দেখা যায় তার চেয়ে দ্বিগুণ উচ্চতার একদল লেঙ্গুর বানরের সঙ্গে। এলাকায় মানুষ তাকে ‘দেবতার পুনর্জন্ম’ বলে মনে করেন।

বানর বাহিনীর সঙ্গে খাবার ভাগাভাগি করে খেতে দেখা যায় প্রতিদিন। সে যখন স্কুল থেকে ফেরে, বানরগুলো অধির আগ্রহে তার ঘরের বাইরে অপেক্ষা করে। আর ছোট্ট সমর্থ পকেট ভর্তি করে তার লেজুরে বন্ধুদের জন্য খাবার নিয়ে বেরিয়ে পড়ে।

বাঁদরের সঙ্গে তার এমন বন্ধুত্ব দেখে গ্রামের লোকজন তাকে দেবতা হনুমানের অবতার বলে গণ্য করে। সে যখন বাঁদর বাহিনীর সঙ্গে খেলায় মশগুল, তখন গ্রামের বেশ কিছু লোক জড়ো হয়ে যায় এই বিরল দৃশ্য অবলোকন করতে।

তার এরূপ বাঁদর সখ্যের জন্য তাকে অনেকে রুডইয়ার্ড কিপলিংয়ের বিখ্যাত ‘দ্য জঙ্গল বুক’-এর বনে-জঙ্গলে বেড়ে ওঠা এবং পশুপাখির সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলা মোগলির সঙ্গেও তুলনা করে থাকেন।

এই ছোট বালকটির মুখে এখনো ঠিক করে কথা ফোটেনি ঠিকই, কিন্তু বাঁদরদের সে খুব ভালোভাবেই অনুকরণ করতে শিখে গেছে। বাবা-মায়েরও তার এই বাদরপ্রীতি নিয়ে কোনো অভিযোগ বা শঙ্কা নেই। তারা বলেন, ‘বাঁদরগুলো ওর দেখাশোনা করে এবং কখনই আঘাত দেয় না। আমরা প্রাণীদের বিশ্বাস করি এবং যতক্ষণ ঘরের কাজ সারি, ততক্ষণ তাদের সঙ্গে আমার ছেলে খেলে।’

তারা জানান, ঘটনাটি ছয় মাস আগে থেকে শুরু হয়, একদল বাঁদর উঠোনে খেলতে থাকা সামার্থের হাত থেকে খাবার কেড়ে নেয়। আশ্চর্যজনকভাবে, সামার্থ একটুও কাঁদেনি, ভয়ও পায়নি; বরং বাঁদরগুলোকে ভেংগাতে থাকে। এর পর থেকেই তাদের এমন সখ্য গড়ে ওঠে, যা এখনো বিদ্যমান।

অমৃতবাজার/জয়