ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল ২০১৮ | ১৪ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বিয়ে কি রোগ সারায়?


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০২:৩৯ পিএম, ০৮ মার্চ ২০১৮, বৃহস্পতিবার
বিয়ে কি রোগ সারায়?

সমাজ জীবনে বিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ বন্ধণ। এই বিয়ে মাধ্যমে মুক্ত হতে পারেন অনেক রোগ হতে। বিয়ে অনেক রোগের মহৌষধ হিসেবে কাজ করে। বিয়ে করাকে অনেকেই মনে করেন নিজের স্বাধীনতা হরণ, বাড়তি চাপ, বাড়তি দায়ীত্ব হিসেবে। আধুনিক গবেষণা বলছে, বিয়ে মানুষের শরীরে অনেক রোগকে ভিড়তে দেয় না। সুস্বাস্থ্যের জন্য বিয়ে অনেক উপকারী বলে মত দিয়েছেন চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য বিজ্ঞানীরা। বিয়ের উপোকারীতা সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

হার্ট অ্যাটাকঃ বিয়ে হৃদযন্ত্রকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। কারণ বিয়ের মাধ্যমে একজন নারী-পুরুষের মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি হয়, তাই বিয়ে নারী-পুরুষ উভয়ের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় বলে মত দিয়েছেন ফিনল্যান্ডের চিকিৎসকরা। টরকু ইউনিভার্সিটির প্রধান গবেষক ড. আইনো লামমিনটাউস্তা বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে বিবাহিত অথবা কোনো সম্পর্কের মাঝে আছেন এমন নারী ও পুরুষের হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা নিঃসঙ্গ মানুষের চেয়ে অনেক কম।

স্ট্রোকঃ বিয়ে মানুষের শরীরে স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। আমেরিকান স্ট্রোক অ্যাসোসিয়েশনে প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়, অবিবাহিতদের চেয়ে বিবাহিতদের বড় ধরনের স্ট্রোকের ঝুঁকি ৬৪ ভাগ কম। ইসরায়েলের তেলআবিব ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক ইউরো গোল্ডবার্ট তার গবেষণায় পেয়েছেন, পুরুষদের মধ্যে যারা বিবাহিত জীবনে অসুখী বিবাহিতে জীবনে সুখীদের তুলনায় ৩ দশমিক ৬ ভাগ বেশি স্ট্রোকের ঝুকি রয়েছে। এই থেকে বলা যায় বিবাহিতদের তুলনায় অবিবাহিতদের স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সম্ভাবনা বেশি।

বিষণ্নতাঃ মানসিক প্রশান্তী এক জন মানুষের শরীর সুস্থ রাখতে হলে বেশি দরকার। একাকিত্ব কিংবা অন্য কারণে মানুষ বিষন্নতায় ভোগে। মানুষ যখন হতাশায় ভোগে। তার কী পরিমাণ মানসিক বিপর্যয় ঘটেছে তা তিনি বুঝতে পারেন না। কারণ বিষন্নতার প্রথম উপসর্গ হলো আত্ম-উপলব্ধি হ্রাস পাওয়া। তাই বিষণ্নতা শনাক্ত ও দূর করতে প্রয়োজন একজন সঙ্গীর, যে সব সময় আপনার সঙ্গে থাকবে, যার সঙ্গে আপনি সবকিছু শেয়ার করতে পারবেন।

ক্যানসারঃ ক্যানসারের মত মরণ ব্যাধী দূরে বাখতে বিয়ে একটি অতি প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ বলে মনে করেন গবেষকরা। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব মানুষ মরণব্যাধী ক্যানসারে আক্রান্ত ছিল তাদের মধ্যে ২০ ভাগের বেশি মানুষ আরোগ্য লাভ করতে সক্ষম হতো, যদি তারা বিবাহিত হতেন। এই সাফল্যের হার কেমোথেরাপির চেয়েও বেশি। একটি স্বাভাবিক স্থিতিশীল সম্পর্ক প্রথম ধাপের ক্যানসার শনাক্ত করতে পারে। আর বৈবাহিক বন্ধন ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াই করে সুস্থ হওয়ার অনুপ্রেরণা জোগায়। একজন উপযুক্ত সঙ্গিনী তার সঙ্গীকে খারাপ এবং জীবনের জন্য ঝুঁকির কাজ থেকে বিরত রাখতে পারে। যেমন:- মদ্যপান, ধূমপান, মাদকসেবন।

মানসিক চাপঃ স্ট্রেস হরমোনের বিবাহিতদের চেয়ে অবিবাহিতদের শরীরে দ্রুত বৃদ্ধি পায়। মানুষ যখন কোনো মানসিক চাপের মধ্যে থাকে তখন শরীরে স্ট্রেস হরমোনের পরিমাণ বেড়ে যায়। অতিরিক্ত পরিমাণে মানসিক চাপ শরীরে নানা সমস্যার জন্ম দেয়। বিশেষ করে হজমের সমস্যার সৃষ্টি করে। গবেষণায় দেখা গেছে, স্ট্রেস হরমোন বিবাহিতদের শরীরে সেরকমভাবে ক্ষতি করতে পারে না। কিন্তু অবিবাহিতদের শরীরে নানা সমস্যার বাসা তৈরি করে।

হাড় শক্তঃ বিয়ে হাড়ের খনিজ ঘনত্ব ঠিক রেখে এক ধরনের রোগ অস্টিওপরোসিস হওয়ার ঝুঁকি কমায়। বিয়ে শরীরের হাড় মজবুত করে এবং হাড়ের বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমায়। হাড়কে ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা করে। তাই সুখী দাম্পত্য জীবন মহিলাদের হাড়ের খনিজ ঘনত্ব ঠিক রাখার জন্য জরুরি বলে মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর ঝুঁকিঃ এক গবেষণায় দেখা গেছে, তালাকপ্রাপ্ত মহিলা ও পুরুষেরা বিবাহিতদের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ পরিমাণ বেশি অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়। গবেষকদের মতে, বিয়ে দুটি মানুষকে পাশাপাশি রাখে এবং এসব অনাকাঙ্ক্ষিত পরিণামের হাত থেকে রক্ষা করে।

স্মৃতি হ্রাসঃ স্মৃতি হ্রাস কমাতে বিয়ে একটি বড় মাধ্যম। শান্তিময় দাম্পত্য শরীরে বার্ধক্যের ছাপ দেরিতে ফেলে। গবেষণায় দেখা গেছে তালাকপ্রাপ্ত হয়ে যারা পুনরায় বিয়ে করেনি তাদের স্মৃতি নষ্ট হওয়ার প্রবণতা প্রায় তিন গুণ বেশি। যারা মাঝ বয়সে বিধবা হওয়ার পর আর বিয়ে করেননি তাদের স্মৃতিভ্রংশ প্রবণতা ছয় গুণ বেড়ে যায়। বিবাহিত এবং সারাজীবন মানসিক সামাজিকভাবে পাশাপাশি থাকলে মন প্রফুল্ল থাকে এবং স্মৃতি শক্তি কম হ্রাস পায় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

ভালো ঘুম হয়ঃ বৈবাহিক সম্পর্ক ভালো তাদের শান্তির ঘুম হয়। ইউনিভার্সিটি অব পিটসবার্গ-এর মনোবিজ্ঞানী ওয়েন্ডি ট্রক্সেল গবেষণায় পেয়েছেন, নারীদের উন্নতি বিশেষত বিয়ে দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। অবিবাহিত নারীদের চেয়ে বিবাহিত নারীদের ১০ ভাগ প্রশান্তির ঘুম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বৈবাহিক সম্পর্ক যদি সুখের হয় এটা ভালো ঘুমের সহায়ক হতে পারে।

আয়ু বাড়েঃ অবিবাহিতদের চেয়ে বিবাহিতদের অকালমৃত্যুর সম্ভাবনা কম হয়। মধ্য ও বৃদ্ধ বয়সে একজন সঙ্গী অকালমৃত্যু থেকে বাঁচায় বলে মত দিয়েছেন গবেষকরা। ডুইক ইউনির্ভাসিটির মেডিক্যাল সেন্টারের গবেষক ড. ইলিএন সিয়েগলার ও তার গবেষণা দল গবেষণায় পেয়েছেন বিয়ে আপনার জীবনে অতিরিক্ত বয়স যোগ করতে পারে এবং এটা ১০ বছর পর্যন্ত হতে পারে।

ভালো ব্যায়ামঃ বিজ্ঞানী পিনজোন এক গবেষণায় বলেছেন, সেক্সের সময় প্রতি মিনিটে ৫ ক্যালোরি করে ক্ষয় হয়, যা টিভি দেখার চেয়ে চার গুণ। এটি আপনার হার্টের স্পন্দণ হার দ্বিগুণ করে এবং বিভিন্ন পেশি ব্যায়াম হয়।

অমৃতবাজার/সবুজ/সুজন