ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০১৭ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

প্রধান শিক্ষকের কাছে লেখা আব্রাহাম লিংকনের ঐতিহাসিক চিঠি


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৩:০৩ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৭, বৃহস্পতিবার
প্রধান শিক্ষকের কাছে লেখা আব্রাহাম লিংকনের ঐতিহাসিক চিঠি

আব্রাহাম লিংকন  অনেকগুলো কারণেই ইতিহাসের পাতায় অমর হয়ে আছেন। বিশেষ করে ১৮৬৩ সালের ১৮ নভেম্বর গেটিসবার্গে মাত্র তিন মিনিটে ২৭২ শব্দের এক ভাষণ দেন। অথচ আজ প্রায় দেড়’শ বছর পরও রাজনীতি বিজ্ঞানের গবেষকরা বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ষোড়শ রাষ্ট্রপতি আব্রাহাম লিংকনকে।

আব্রাহাম লিংকন তার পুত্রের স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে একটি চিঠি লিখেছিলেন। যা পরবর্তী সময়ে ঐতিহাসিক মর্যাদা লাভ করে। আজ থেকে প্রায় দেড়’শ বছর আগে তিনি তার আট বছর বয়সী পুত্র জর্জ প্যাটেনের স্কুলের প্রধান শিক্ষককে লেখেন ওই চিঠি। প্রযুক্তির কল্যাণে হারিয়ে যেতে বসেছে চিঠির ব্যবহার।  চলুন দেখে নিই কী লেখা ছিল সেই চিঠিতে।

মাননীয় মহোদয়,
আমার পুত্রকে জ্ঞান অর্জনের জন্য আপনার কাছে পাঠালাম। তাকে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলবেন এটাই আপনার কাছে আমার প্রত্যাশা। আমার পুত্রকে অবশ্যই শেখাবেন সব মানুষই ন্যায়পরায়ণ নয়, সব মানুষই সত্যনিষ্ঠ নয়। তাকে এও শেখাবেন;  প্রত্যেক খারাপের মাঝেও একজন বীর থাকতে পারে, প্রত্যেক স্বার্থপর রাজনীতিবিদের মাঝেও একজন নিঃস্বার্থ নেতা থাকেন। তাকে শেখাবেন, পাঁচটি ডলার কুড়িয়ে পাওয়ার চাইতে একটি উপার্জিত ডলার অধিক মূল্যবান।

তাকে শেখাবেন, কীভাবে পরাজয়কে মেনে নিতে হয় এবং কীভাবে বিজয়োল্লাস উপভোগ করতে হয়।  হিংসা থেকে দূরে থাকার শিক্ষাও তাকে দেবেন। যদি পারেন নীরব হাসির গোপন সৌন্দর্য তাকে শেখাবেন।  সে যেন একথা বুঝতে শেখে, যারা অত্যাচারী তাদেরকে নীরব হাসির গোপন সৌন্দর্য দিয়ে সহজেই কাবু করা যায়। বইয়ের মাঝে কী রহস্য লুকিয়ে আছে, তাও তাকে শেখাবেন।

আমার পুত্রকে শেখাবেন, বিদ্যালয়ে নকল করে পাস করার চেয়ে অকৃতকার্য হওয়া অনেক বেশি সম্মানজনক। নিজের ওপর তার যেন পূর্ণ আস্থা থাকে, এমনকি সবাই যদি সেটাকে ভুলও মনে করে।

তাকে শেখাবেন,  ভালো মানুষের  প্রতি ভদ্র আচরণ করতে, কঠোরদের প্রতি কঠোর হতে। আমার পুত্র যেন হুজুগে মাতাল জনতার পথ অনুসরণ না করে এ শিক্ষাও তাকে দেবেন। সে যেন সবার কথা শোনে এবং সত্যটা  ছেঁকে যেন শুধু ভালোটাই শুধু গ্রহণ  করে এ শিক্ষাও তাকে দেবেন। সে যেন শেখে দুখের মাঝেও কীভাবে হাসতে হয়। আবার কান্নার মাঝে লজ্জা নেই, সে কথাও তাকে বুঝতে শেখাবেন। যারা নির্দয়,  নির্মম তাদেরকে সে যেন ঘৃণা করতে শেখে।  আর অতিরিক্ত আরাম-আয়েশ থেকে সাবধান থাকে।

আমার পুত্রের প্রতি সদয় আচরণ করবেন কিন্তু সোহাগ করবেননা,  কেননা আগুনে পুড়েই ইস্পাত খাঁটি হয়। আমার সন্তান যেন বিপদে ধৈর্যহারা না হয়, থাকে যেন তার সাহসী হবার ধৈর্য। তাকে এ শিক্ষাও দেবেন, নিজের প্রতি তার যেন পূর্ণ আস্থা থাকে আর তখনই তার সুমহান আস্থা থাকবে মানব জাতির প্রতি।

ইতি

আপনার বিশ্বস্ত;
আব্রাহাম লিংকন।

তথ্যসূত্র: ঢাকাটাইমস

অমৃতবাজার/জয়

Loading...