ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মুখ থুবড়ে পড়লো ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’?


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৫:৫৫ পিএম, ০৮ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
মুখ থুবড়ে পড়লো ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’?

অবশেষে মুক্তি পেলো এ বছরের আলোচিত সিনেমা ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’। প্রথম থেকেই দর্শকের মধ্যে একটা কৌতুহল ছিল বিগ বাজেটের এই ছবিটিকে নিয়ে। তবে ট্রেলার প্রকাশের পর তেমন কৌতূহল ছিলো না বরং ছবিটিকে নিয়ে অনেকে অনেক সমালোচনা করেছে।

ছবিটি মুক্তির আগে ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-এর সঙ্গে এই ছবির চরিত্রদের লুকের বহু মিল নিয়ে নয়া চর্চা শুরু হয়েছে ইন্ডাস্ট্রিতে। ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-এর বিখ্যাত চরিত্র ‘জ্যাক স্প্যারো’। সেই চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন জনি ডেপ। ‘ঠগস অব হিন্দোস্তান’-এ আমিরের লুক দেখে অনেকে বলেছিলেন, তিনিই নাকি এই ছবির জ্যাক স্প্যারো! জনি এবং আমিরের ছবি পাশাপাশি দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কেউ কেউ লিখেছিলেন, ‘বিগ বাজেট জ্যাক স্প্যারো’ এবং ‘গরিবের জ্যাক স্প্যারো’।

ছবিটি মুক্তির পর সোশ্যাল মিডিয়ায় দর্শকদের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় উল্লাস কম, বরং সমালোচনার ধারই বেশি। বেশিরভাগ দর্শক ছবিটি দেখে নাকি হতাশ হয়েছেন। কারও মনে হয়েছে, সাম্প্রতিক অতীতে আমির খানের সবচেয়ে দুর্বল ছবি। আবার কেউ বলছেন, ট্রেলার দেখেই বোঝা গিয়েছিল ছবিটি একেবারেই ভাল হবে না। রিলিজের পর তারই প্রমাণ পাওয়া গেল।

এদিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় আমিরকে নিয়ে বিভিন্ন মিমও শেয়ার হচ্ছে। তার ‘পিকে’ ছবির ডায়লগ ছিল, ‘হমকো ঘর জানা হ্যায় ভগবান…।’ সেই ছবিটি ব্যবহার করে অনেকে বলছেন, ‘ঠগস অব হিন্দোস্তান’ দেখতে দেখতে নাকি দর্শকের ওই অবস্থা হয়েছিল। কেউ বা অমিতাভের মিম ব্যবহার করছেন। যেখানে দেখা যাচ্ছে, ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’র সেটে অমিতাভ বলছেন, ‘আপনাদের কাছ থেকে বিদায় নেওয়ার সময় এসে গিয়েছে।’ অর্থাত্ দুই মহারথীরই সমালোচনা শুরু হয়েছে।

১৮৩৯-এ প্রকাশিত ফিলিপ ম্যাডোসের লেখা বই ‘কনফেশনস্ অফ আ থাগ’ অবলম্বনে লেখা হয়েছে ছবির চিত্রনাট্য। আমিরের চরিত্রটি অ্যান্টাগনিস্ট। এ ছাড়াও ক্যাটরিনা কইফ, ফতিমা সানা শেখের মতো শিল্পীর অভিনয়ে সমৃদ্ধ এই ছবি। আনন্দবাজার

অমৃতবাজার/শাওন