ঢাকা, সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০ | ২৩ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চাঁদার দাবিতে বাস্তভিটায় নির্মান কাজ বন্ধ, নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার


এম আলমগীর, ঝিকরগাছা

প্রকাশিত: ০৯:০৫ পিএম, ১৮ মার্চ ২০২০, বুধবার
চাঁদার দাবিতে বাস্তভিটায় নির্মান কাজ বন্ধ, নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়ায় চাঁদার দাবিতে ৫০ বছরের বাস্তবাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার পায়তারা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বাস্তভিটায় নতুন বসত ঘর নির্মানের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা । প্রকাশ্য দুই লক্ষ টাকা চাঁদার দাবি করেছে তারা। বিষয়টি  নিয়ে ভুক্তভোগি পরিবার আদালতে মামলা করেছে এবং  স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেও কোন ফল পাচ্ছে না।

মামলা ও অভিযোগ সূত্রে জানান যায়, উপজেলার বাঁকড়া ইউপির মাটশিয়া গ্রামের প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরুহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা এ্যাড, ফজলুর রহমান ও সদ্য প্রয়াত ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জালাল উদ্দীন গাজীর মেঝো ভাই পল্লী চিকিৎসক আব্দুল করিম গাজী প্রায় পঞ্চাশ বছর যাবত ১৬০ নং মাটশিয়া মৌজায় ১২৭৪ নং দাগে বাস্তভিটায় করে বসবাস করে আসছে। বর্তমানে হাল রেকর্ড জমির শ্রেনী বাস্তু ও জমির পরিমান ৪৪ শতক।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ৫০ বছর যাবত করিম গাজী সেখানে বাস্তবাড়ি করে বসবাস করছে। কিন্তু বিগত এক মাস পূর্বে করিম গাজি সেখানে একটি পুরাতন ঘর ভেঙ্গে নতুন ঘর করতে গেলে জমিতে ভাগ আছে বলে দাবি করে তার চাচাত ভাই কাদের গাজীর পুত্র তাপু গাজী। সে বহিরাগত সন্ত্রাসী এনে কাজ বন্ধ করে দেয় এবং ২ লক্ষ টাকা দিলে তার কোন দাবী থাকবে না বলে জানান।

লিখিত অভিযোগকারীর করিম গাজীর মেয়ে শাহানারা খাতুন জানান, এই জমি আমাদের ৫০ বছর আগে ক্রয়কৃত। ফলে এই যাবত জমিটি আমাদের  বাস্ত বাড়ি ও দখলে ছিল। বর্তমান হাল রেকর্ড সবই আছে। তাপু গাজীর যদি দলিল থাকে তবে আমরা কিনে নেব কিন্তু সে দলিল দেখাচ্ছে না। শুনেছি একটা জাল দলিল বানিয়েছে যার বালাম বইয়ে কোন অস্তিত্ব নেই। অথচ সে জমির অংশীদারিত্ব দাবী করে আমাদের বাড়ির নির্মাণ কাজ বন্ধ করে নিজে ও এলাকার সন্ত্রাসীদের দিয়ে হুমকি দিচ্ছে এবং দুই লক্ষ টাকার দাবী করছে। আমরা প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক দপ্তরে ন্যায় বিচারের আশায় অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য কেউ কোন পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে আব্দুল করিমের পরিবার।

এ দিকে কোন প্রতিকার না পেয়ে এই ঘটনায় আব্দুল করিম গাজীর মেয়ে শাহানারা খাতুন বাদী হয়ে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, ঝিকরগাছা, যশোরে কাদের গাজীর পুত্র মশিয়ার রহমান তাপু গাজী ও ইসমাইল মোড়লের ছেলে রুহুল আমিন কে আসামী করে একটি চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। যার নং- সিআর ৪৫১/১৯। তাপু গাজির জানায়, স্থানীয়ভাবে শালিশী বৈঠকে আমাদের দুই লক্ষ টাকা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিনিময়ে আমি জমিতে কোন দাবী নেই বলে ষ্ট্যাম্প করে দেব।

ভুক্তভোগী করিম গাজি জানিয়েছেন, স্থানীয় সন্ত্রাসীদের নিয়ে শালিশে বসা হয়েছিল। সেখানে আমাদের কোন কথা বলতে দেয়া হয়নি বা আমাদের কথা কেউ শোনেনি। একতরফা ভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পারিবারিক ভাবে প্রায় পঞ্চাশ বছর ধরে এখানে বাস্তবাড়ি করে বসবাস করছি। এতদিন কোন কথা না বলে হঠাৎ জমির দাবী করছে। আমাদের পক্ষে কেউ কথা বললে তাকেও হুমকি দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

অমৃতবাজার/এমএএন