ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০ | ১৭ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নম্বরবিহীন ঘাতক মোটরসাইকেল উৎকোচ নিয়ে ছেড়ে দিলো পুলিশ!


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৬:২৫ পিএম, ০১ মার্চ ২০২০, রোববার
নম্বরবিহীন ঘাতক মোটরসাইকেল উৎকোচ নিয়ে ছেড়ে দিলো পুলিশ!

যশোরের ঝিকরগাছার বাঁকড়ায় নম্বরবিহীন মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বাকপ্রতিবন্ধী দুই সন্তানের জনক আবু মুছা নিহতের ঘটনায় আটক মোটরসাইকেলটি ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের পরিবার এখনও কোনো মামলা বা কোনো ক্ষতিপূরণ পায়নি। অথচ পুলিশের জিম্মায় থাকা মোটরসাইকেলটি ছেড়ে দেয়ায় জনমনে পুলিশের বিরুদ্ধে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কথিত রয়েছে, ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে মোটরসাইকেলটে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, মোটরসাইকেলটি ঘাতক চালকের না। সে যে দোকানের কর্মচারি সেই মালিকের। পুলিশ নম্বরবিহীন গাড়িটি কোনো মামলা না দিয়ে ছেড়ে দেয়ায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে এবং মোটা অর্থের বিনিময়ের মোটরসাইকেলটি ছাড়া হয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানিয়েছেন।

এদিকে ঘটনায় ক্ষতিপূরণ হিসেবে কোনো টাকা নিবেন না বলে জানিয়েছেন নিহত আবু মুছার ভাই দেলোয়ার হোসেন ওরফে দেলো।

শুক্রবার সকালে বাঁকড়া মাঠপাড়া টু দিগদানা সড়কের মানিকতলা নামকস্থানে একটি নম্বরবিহীন টিভিএস মোটরসাইকেলে দিগদানা গ্রামের আকছেদ আলীর ছেলে মেহেদী হাসান (২২) ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া গ্রামের সোনাই শেখের পুত্র বাকপ্রতিবন্ধী দুই সন্তানের জনক আবু মুছাকে ধাক্কা দিলে মারাত্মক আহত হয়। তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যুবরণ করেন। পরে মোটরসাইকেলটি বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে পুলিশ হেফাজতে নেয়। মোটরসাইকেলের চালক মেহেদী হাসান পালিয়ে যায়। কিন্তু ঘাতক মেহেদী হাসানকে কোনো প্রকার গ্রেফতারের চেষ্টা করেনি পুলিশ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ঘটনার স্থানে রক্তের দাগ এখনও শুকায়নি। পাশের বাসিন্দা এরশাদ আলি, আলতাফ হোসেন জানান, প্রায় এ রাস্তা দিয়ে বেপোয়ারাভাবে গাড়ি চালায় মেহেদী। ঘটনার স্থান দেখিয়ে জানান, দিগদানা থেকে বাঁকড়া অভিমুখে ডান প্রান্তে রাস্তার পিচ ছাড়িয়ে বেপরোয়া গতিতে ধাক্কা মারে এবং আবু মুছা ঘটনাস্থালেই মারা যান বলে জানান।

এ ব্যাপারে বাঁকড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মিজানুর রহমান জানান, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে একটি জিডি করে মোটরসাইকেলটি ছেড়ে দেয়া হয়েছে। পরে কাগজপত্র করে নেবে বলে তারা অঙ্গিকার করেছে।