ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কসবার দুর্ঘটনায় লোকোমোটিভ মাস্টার দায়ী: রেলমন্ত্রী


অমৃতবাজার রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৪:১৬ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার | আপডেট: ০৪:১৬ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
কসবার দুর্ঘটনায় লোকোমোটিভ মাস্টার দায়ী: রেলমন্ত্রী

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় ‘তূর্ণা নিশীথা’ট্রেনের লোকোমোটিভ মাস্টারকে দায়ী করেছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

তিনি বলেন, ‘তূর্ণা নিশীথা’ ট্রেনের লোকোমোটিভ মাস্টার সিগন্যাল ভঙ্গ করেছেন। যার কারণে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলওয়ে স্টেশনে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, নিহতের পরিবারের ক্ষতি টাকা দিয়ে পূরণ সম্ভব নয়। তবু রেলপথ মন্ত্রণালয় থেকে নিহতের প্রত্যেকের পরিবারকে ১ লাখ টাকা এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা করে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে ‘তূর্ণা নিশীথা’র লোকোমোটিভ মাস্টার, সহকারী মাস্টার ও পরিচালককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এখানে উদয়নের কোনো ত্রুটি ছিল না।

এর আগে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে কসবায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা অভিমুখী ‘তূর্ণা নীশিথা’র সঙ্গে চট্টগ্রাম অভিমুখে যাত্রা করা ‘উদয়ন এক্সপ্রেস’র মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত এ দুর্ঘটনায় ১৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।

আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক যাত্রী। যারা বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন শিশুও রয়েছে। যাদের বেশিরভাগই হাত, পা ও মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন।

নিহতদের মধ্যে ঘটনাস্থলে ৯ জন, সদর হাসপাতালে ৩ জন, কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ জন এবং কুমিল্লা সদর হাসপাতালে একজন মারা যান বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন।

এদিকে, ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার কারণে প্রায় আট ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর আবার স্বাভাবিক হয়েছে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-সিলেট রুটের ট্রেন চলাচল। বেলা পৌনে ১১টার দিকে পুনরায় ট্রেন চলতে শুরু করে।

অমৃতবাজার/এএস