ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্বপ্ন পুরনের লক্ষ্যে থাইল্যান্ডের পথে রানীশংকৈলের আদুরী ও সোহাগী


রানীশংকৈলে (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি,

প্রকাশিত: ০৯:২৬ পিএম, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
স্বপ্ন পুরনের লক্ষ্যে থাইল্যান্ডের পথে রানীশংকৈলের আদুরী ও সোহাগী

 

ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার নিভৃত কুলিক নদির পশ্চিমে পল্লীতে গড়ে উঠা রাঙ্গাটুঙ্গি ইউনাইটেড ফুটবল একাডেমীর সুবিশাল মাঠ। আদুরী ও সোহাগী যার হাতে সৃষ্টি তিনি এই রাণীশংকৈল ফুটবল একাডেমীর রুপকার, স্বপ্নপ্রেমী অধ্যক্ষ তাজুল ইসলাম।

যার কারনেই বাংলার আকাশ থেকে পৃথিবীর আকাশে স্বপ্ন পুরনের আশায় আদুরী ও সোহাগীর মত উত্তরের প্রত্যন্ত উত্তরের মেয়েরা ফুটবল খেলাকে সঙ্গী করে ছুটে চলছে।

বৃহস্পতিবার ৫ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১ টায় বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের জন্য থাইল্যান্ড এর উদ্দ্যেশে দেশের মাটি ত্যাগ করেছে মুন্নি আকতার আদুরী ও সোহাগী কিসকু। রাঙ্গাটুঙ্গি ইউনাইটেড ফুটবল একাডেমীর পরিচালক তাজুল ইসলাম বলেন, জাতীয় ফুটবল ফেডারেশনের মাধ্যমে আমাদের একাডেমীর জাতীয় টিমের খেলোয়ার হিসেবে রাঙ্গাটুঙ্গির নূরুল ইসলাম (কসাই) এর মেয়ে মুন্নি আকতার আদুরী ও ওই গ্রামের গুলজার কিসকু’র মেয়ে সোহাগী কিসকু জাতীয় ভাবে বাংলাদেশ থেকে থাইল্যান্ডের উদ্দ্যেশে কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটনের তত্ত্বাবধায়নে যাত্রা করেছে এবং আশা করছি তারা আমাদের দেশের সম্মান অটুট রাখবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের মেয়েরা জাতীয় দলে কিছুদিন আগে নেপাল ও হংকং এ ফুটবল খেলেছে এমনকি একজন বিকে এসপি’র অন্তর্ভূক্ত হয়ে দিল্লিতে অবস্থান করছে।

সম্প্রতি আরও ৩ জন হংকং এ খেলতে যাবে। ইদানিং ক্রীড়া ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান অতুলনীয় নারী খেলোয়ারদের। কিছুদিন আগে জয় বাংলা ইয়ুথ আওর্য়াডও পেয়েছে। সেই সাথে বিগত দিনে এই রাঙ্গাটুঙ্গি ইউনাইটেড ফুটবল একাডেমীর নারী খেলোয়াড়দের খেলার মানের দিক বিবেচনা করে বাফুফের প্রশিক্ষক মাহবুব আলম পলককের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দিয়েছে বাফুফে।

আর স্থানীয়ভাবে খেলোয়াড়দের অনুশীলন কাজে সহযোগিতা করে যাচ্ছে জয়নুল ইসলাম ও গোপাল মুর্মু সুগা। সার্বিক তত্বাবধানে তো রয়েছেনই ক্রীড়া সংগঠক প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অধ্যক্ষ তাজুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে এই দেশের বিভিন্ন জেলার খেলায় অংশ গ্রহণ করে বেশ সুনাম অর্জন করেছে একাডেমীর খেলোয়াড়রা। একাডেমীর সভাপতি অধ্যক্ষ তাজুল ইসলাম বলেন, আমি ছেলেমেয়েদের মাদক থেকে বিরত রেখে একজন সুস্থ্য স্বাভাবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে তাদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় মনোযোগি করে তোলার চেষ্ঠা করছি।

আমি আশাবাদি তারা নিজেদের, পরিবারের ও দেশের মুখ উজ্জ্বল করবেই।

অমৃতবাজার/শিল্পী/এএস