ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯ | ৩ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট, ভোগান্তিতে যাত্রীরা


অমৃতবাজার রিপোর্ট 

প্রকাশিত: ১১:৪৩ এএম, ১০ আগস্ট ২০১৯, শনিবার | আপডেট: ১১:৪৪ এএম, ১০ আগস্ট ২০১৯, শনিবার
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট, ভোগান্তিতে যাত্রীরা ফাইল ছবি

 

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের গোড়াই হাটুভাঙ্গা এলাকায় অসমাপ্ত আন্ডারপাসের দুই পাশে যানজট ভয়াবহ আকার ধারন করছে। গত তিন দিন ধরে চলছে এই অবস্থা।

আজ শনিবার সকালে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে প্রায় ৫০ কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়েছে। যানজটে ব্যাপক ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন নারী ও শিশুরা। টয়লেট, খাবার ও পানির অভাবে কষ্ট পাচ্ছেন অনেক যাত্রী। যানজটের কারণে ঢাকা থেকে টাঙ্গাইল আসতে দুই ঘণ্টার পথ পাড়ি দিতে ১০-১৫ ঘণ্টা সময় পার হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন।

পুলিশ যানজট নিরসনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, মহাসড়কে যানজট নিরসনে ও নিরাপত্তার জন্য জেলা পুলিশের সাত শতাধিক সদস্য কাজ করছে।

গত বুধবার থেকে এ রোডে যানজট থাকায় চলাচলকারী যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। মহাসড়কের গোড়াই এলাকায় নির্মানাধীন আন্ডার পাস (অভার ব্রিজ) এলাকার দুই পাশে তীব্র যানজট। মহাসড়কের চন্দ্রা, বাইপাইল ও শফিপুরের চলছে অসহনীয় যানজট বলে যাত্রীরা জানিয়েছেন।

আজ শনিবার গোড়াই হাইওয়ে থানা ও মির্জাপুর থানা পুলিশ সুত্র জানায়, ঈদকে সামনে রেখে এই মহাসড়ক দিয়ে টাঙ্গাইল, জামালপুর, শেরপুর জেলার যানবাহন ছাড়াও উত্তরাঞ্চলের ২২ টি জেলার অন্তত ৫০ টি রোডের যানবাহন চলাচল করছে। মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

মহাসড়কের গোড়াই এলাকায় প্রায় আধা কিলোমিটার মহাসড়কে আন্ডার পাস(ওভারব্রিজ) নির্মাণ হচ্ছে। কর্তৃপক্ষের চরম অব্যবস্থাপনা ও অবহেলার কারণে এই এলাকায় যানজট দীর্ঘ দিন ধরে। একই অবস্থা টাঙ্গাইল পাইপাস, এলেঙ্গা ও বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় বলে পুলিশ জানিয়েছে। কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে যাত্রীদের দুর্ভোগ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে এই অসমাপ্ত আন্ডার পাস। একই অবস্থা মহাসড়কের করনি আন্ডার পাস, কদিম ধল্যা আন্ডার পাস, জামুর্কি আন্ডার পাস ও নাটিয়াপাড়া ও করটিয়া আন্ডার এলাকায় চলছে যানজট। অসময়ে আন্ডার পাসগুলো নির্মাণের ফলে এ যানজটের মুল কারণ বলে পরিবহন শ্রমিক, চলাচলকারী যাত্রী ও পুলিশ জানায়।

আন্ডার পাসের নিচে কাঁচা মাটি ও ইট বালি ফেলায় টানা বৃষ্টির কারণে মাটি নিচের দিকে দেবে যাচ্ছে। ফলে লোড, আনলোড ট্রাক, পিকআপ ভ্যান, লড়ি ও যাত্রীবাহী বাস ঠিকমত পারাপার হতে পারছে না। এছাড়া পরিবহন শ্রমিকদের নিয়ম-শৃঙ্খলা না থাকায় যানজট তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। আন্ডার পাসের দুইপাশে যানজট থানজট থাকায় নারী, শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থ রোগীদের বৃষ্টির মধ্যে চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যানজট নিরসনের জন্য গোড়াই হাইওয়ে থানা পুলিশ, জেলা পুলিশ ও মির্জাপুর থানা পুলিশ কাজ করে যাচ্ছেন বলে পুলিশ সুত্র জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে গোড়াই হাইওয়ে থানার (ওসি) মো. জাহিদুল আলম ও মির্জাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সায়েদুর রহমান বলেন, যানজটের মুল কারণ মহাসড়কে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ। গরু বোঝাই ট্রাক ও ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গহামী যাত্রীবাহী বাসের চাপ রয়েছে বেশী। এছাড়া গোড়াই এলাকায় আন্ডার পাস(অভার ব্রিজ) নির্মাণ অসমাপ্ত রয়েছে। অন্যান্য আন্ডার পাস এলাকায় যানজট সহনীয় হলেও গোড়াই এলাকায় তীব্র যানজট। ওভার ব্রিজ নির্মাণের কারণে রাস্তায় কাঁদা, ইট ও বালি জমে কোথাও কোথাও পিচ্ছিল হয়ে গেছে, আবার কোথাও কোথাও মাটি দেবে গর্তে সৃষ্টি হচ্ছে। এক দিকে প্রচুর বৃষ্টি, অপর দিকে রাস্তায় গর্তের কারণে যানবাহনগুলো ঠিকমত পারাপার হতে পারছে না। ফলে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। তবে যানজট নিরসনের জন্য হাইওয়ে পুলিশের পাশাপাশি থানা ও জেলা পুলিশ নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

টাঙ্গাইলের সহকারী পুলিশ (মির্জাপুর সার্কেল) দিপংকর ঘোষ বলেন, যানজট নিরসনের জন্য জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার মহোদয় ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যগন নিরলস ভাবে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এ তৎপরতা ঈদের পরের দিন পর্যন্ত থাকবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

অমৃতবাজার/এএস