ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৭ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নরসিংদীতে টানা বর্ষণে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বেহাল দশা


নরসিংদী প্রতিনিধিঃ

প্রকাশিত: ০৫:৫৭ পিএম, ১৪ জুলাই ২০১৯, রোববার
নরসিংদীতে টানা বর্ষণে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বেহাল দশা

 

টানা সাত দিনের বৃষ্টিতে বেহাল দশা নরসিংদী ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক সহ গ্রামীন রাস্তা-ঘাটের। রায়পুরা উপজেলাবাসীর অভিযোগ, নির্মান কাজে অনিয়মের কারনে সহজেই নষ্ট হচ্ছে এসব রাস্তা। উপজেলা চেয়ারম্যান সাদেকুর রহমান বলছেন, বৃষ্টির মৌসুম শেষ হলেই রাস্তার মেরামত কাজ শুরু হবে।

নরসিংদীর ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাহেবপ্রতাপ, পাঁচদোনা, শেকেরচর, চৈতন্যা, মরজাল, বারিচা ও নারায়নপুর সড়কসহ প্রধান সড়ক গুলো ভরে গেছে খানা খন্দে। বৃষ্টির পানি ও কাঁদা জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় প্রতিনিয়তই দূর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। শহরবাসীর অভিযোগ, বার বার মেরামতের পরও টিকছে না এসব রাস্তা। নির্মাণকাজে নিম্নমানের কাচামাল ব্যবহার করায় এমন হচ্ছে বলে দাবি তাদের।

এদিকে নরসিংদী থেকে রায়পুরা উপজেলা যাওয়ার রাস্তাটিও যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। যেহেতু রায়পুরা বাসী শহরে ঢোকার একমাত্র রাস্তা এটি। তাই রাস্তাটি মাঝখান থেকে ভেঙে যাওযায় দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রায়পুরা বাসীর।

আজ রবিবার সাহেব প্রতাব এলাকায় গিয়ে দেখা যায় যে, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে গোলচত্বরে পানি জমে থাকায় একহাতের বেশি গর্ত হয়ে পড়েছে।

এদিকে কিশোরগঞ্জ থেকে আসা বাসের চালক মোঃ শাহিন মিয়া বলেন, ভৈরব থেকে সাহেবপ্রতাপ পর্যন্ত প্রায় শতাধিক গর্ত রয়েছে। যার ফলে আমাদের গাড়ির চালাতেও একটু হিমশিত খেতে হচ্ছে।

গ্রামাঞ্চলের রাস্তাগুলোতেও প্রায় একই অবস্থা দেখা যাচ্ছে। নির্মাণ কাজে গাফিলতির কারণ তদন্ত করে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী নাগরিক নেতাদের

সত্যতা স্বীকার করে সড়কের বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, টানা সাত দিন যাবত বৃষ্টি হওয়ায় এই পরিস্থিতি হয়েছে। বৃষ্টি ও আবহাওয়া পরিবর্তন হলে গর্তগুলো মেরামত করা হবে। তাই সাধারন মানুষের আতঙ্ক হওয়ার কিছু নেই।

অমৃতবাজার/রুদ্র/এএস