ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯ | ১১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বেরোবিতে হাইকোর্টের মাধ্যমে নিয়োগ শিক্ষকের বেতন প্রদানের উদ্যোগ


বেরোবি প্রতিনিধি:

প্রকাশিত: ০৯:০৩ পিএম, ২২ মে ২০১৯, বুধবার
বেরোবিতে হাইকোর্টের মাধ্যমে নিয়োগ শিক্ষকের বেতন প্রদানের উদ্যোগ

 

হাইকোর্টের মাধ্যমে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক মাহমুদুল হকের জ্যেষ্ঠতাসহ ৭ বছরের বেতন-ভাতা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। এ উদ্দেশ্যে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের একটি সূত্র।

কমিটির সদস্যরা হলেন- বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিট্্রার আবু হেনা মোস্তফা কামাল, রংপুর ডিভিশনাল কমিশনার মোহাম্মদ জয়নাল বারি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শুচিতা শারমিন। হাইকোর্টের রায় বাস্তবায়নের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহ‘র সভাপতিত্বে গত ১৫ মে ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬১ তম সিন্ডিকেটে এই কমিটি গঠন করা হয়। পূর্ণাঙ্গ রায় বাস্তবায়নের দাবি জানিয়ে মাহামুদুল গত ১৪ মে লিখিত আবেদন জানালে সিন্ডিকেট এ সিদ্ধান্ত নেয়।    

ক্ষতিপূরণ সর্ম্পকে মাহামুদুল তাঁর আবেদনে বলেন, “একটি মামলা চালাতে যে আর্থিক ও মানসিক ক্ষতি হয় তা পরিমাপ করা খুবই কঠিন। একজন ভুক্তভোগী কয়েক’শবার ভুক্তভোগী হয় মামলা চালাতে গিয়ে। রায় হয়তো ভুক্তভোগীর পক্ষে যায় কিন্তু মামলার ক্ষত সারাজীবন তাঁকে বয়ে বেড়াতে হয়।

ওই সময়ের বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনিয়মের কারণে আমার শিক্ষকতার ক্যারিয়ারে যে ক্ষত তৈরি হয়েছে তা আমাকে সারাজীবন বয়ে বেড়াতে হবে। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে আমাকে নিয়োগ প্রদান করেছে। এখন আমার আর্থিক ক্ষতিপূরণ প্রদান করে বাংলাদেশে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বলে আামার দৃঢ় বিশ্বাস।”

উল্লেখ্য যে, ১৫ অক্টোবর ২০১৭ হাইকোর্ট এক রায়ে তাঁকে নিয়োগ দিতে বলেন। এরপর রায়কে চ্যালেঞ্জ করে বিশ্ববিদ্যালয় লিভ-টু-অ্যাপিল ও পরে রিভিউ করলে অ্যাপিলেট ডিভিশন তা খারিজ করে হাইকোর্টের রায় বহাল রাখেন।  আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ৯ মার্চ ২০১৯ তারিখে ওই বিভাগে প্রভাষক পদে (স্থায়ী) মাহামুদুলকে নিয়োগ প্রদান করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

অমৃতবাজার/ইভান/এএস