ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে হন মনিকা থেকে অনামিকা মল্লিক!


চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৩:৫৮ পিএম, ০৮ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে হন মনিকা থেকে অনামিকা মল্লিক!

চট্টগ্রাম থেকে সাত মাস আগে নিখোঁজ গানের শিক্ষক মনিকা বড়ুয়ার সন্ধান মিলেছে। অপহরণ নয় স্বেচ্ছায় তিনি ভারতে চলে যান বলে দাবি করেছেন পুলিশে কাছে। বৃহস্পতিবার(৮ নভেম্বর) সকাল ১১টায় সিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তাকে উদ্ধারের ঘটনার বর্ণনা দেন সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম।

তিনি জানান, অপহৃতের মেয়ের সূত্রে আমরা জানতে পারি মনিকা বড়ুয়া (রাধা) ভারতে অবস্থান করছেন। সেই সূত্র ধরেই আমরা গত ৪ নভেম্বর সকালে ভারতীয় নাগরিক কমলেশ কুমার মল্লিককে ঢাকার ধানমন্ডি ৩২ এলাকা থেকে গ্রেফতার করি।

দীর্ঘদিন ধরেই মনিকা বড়ুয়ার সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় ছিল ভারতীয় নাগরিক কমলেশ কুমারের। কমলেশ ভারত থেকে বাংলাদেশে পণ্য আনা নেয়ার ব্যবসা করতেন। সেই পরিচয় থেকে প্রেমে পড়ে তারা দুজন একসাথে থাকার সিদ্ধান্ত নেয়। গত ১২ এপ্রিল কমলেশ নিজে এসে চট্টগ্রাম থেকে মনিকা বড়ুয়াকে শ্যামলী বাসে করে বেনাপোল সীমান্তে নিয়ে যায়। তারপর অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করায় তাকে। তারা দুজন মন্দিরে গিয়ে বিয়ে করে বলে জানায়।

এরপর মনিকার ভারতীয় পরিচয়পত্র সহ অন্যান্য কাগজ তৈরি করে তার নিজের নাম বদলে রাখে অনামিকা মল্লিক। ডিবির একটি টিমের কাছে থাকা তথ্য অনসুারে সাতক্ষীরা জেলার বর্ডার এলাকা থেকে মনিকা বড়ুয়াকে গত ৬ নভেম্বর বিকেলে উদ্ধার করা হয় বলে জানায় পুলিশ। তাদের আদালতে প্রেরণ করে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সীমান্ত জেলা সাতক্ষীরায় তাকে পাওয়া গেছে বলে গতকাল বুধবার জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার মিজানুর রহমান।

উল্লেখ্য, এই বছরের ১২ এপ্রিল চট্টগ্রাম নগরীতে বাসা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন মনিকা (৪৫)। তার স্বামী দেবাশীষ বড়ুয়া একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন প্রথমে। পরে তা অপহরণের মামলায় রূপান্তর ঘটলেও তার সন্ধান বের করতে পারেনি পুলিশ।

মনিকার সন্ধান দাবিতে তার বোন ও বন্ধুরা বেশ কয়েকবার মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন। মনিকার স্বামী দেবাশীষ একজন সাংবাদিক।

গত ১২ এপ্রিল লালখান বাজারের হাই লেভেল রোডের বাসা থেকে গান শেখানোর জন্য বের হয়েছিলেন মনিকা।

মনিকার নিখোঁজের বিষয়ে স্বামী দেবাশীষ বলেছিলেন, আমাদের দাম্পত্য জীবনে কোনো সমস্যা ছিল না। পারিবারিকভাবেও কখনও সমস্যা ছিল না। কেন কী কারণে নিখোঁজ, সে ব্যাপারে আমরা কিছু বুঝতে পারছি না। দুই মেয়ের জননী মনিকা নগরীর কাতালগঞ্জের লিটল জুয়েলস স্কুলে গান শেখাতেন।

অমৃতবাজার/দিদারুল/শাওন