ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কুয়াশার চাদরে মুড়ছে রাজশাহী


রাজশাহী প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ০৫:৪১ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৮, রোববার | আপডেট: ০৫:৫৩ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৮, রোববার
কুয়াশার চাদরে মুড়ছে রাজশাহী

হেমন্তের শিশির বিন্দুতে সাদা কাশফুলের রঙও এখন ধূসর প্রায়। শীতের আগমনী বার্তায় ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ছে ভোরের সোনারাঙা রোদ। বিকেল পাঁচটা বাজতেই পশ্চিমে ঢলে পড়ছে সূর্য। অন্ধকার ঘনিয়ে আসছে দ্রুত। অন্যদিকে ভোরের আলো ফুটতেই কুয়াশায় ঢেকে আসছে গ্রাম-শহর-রাস্তাঘাট।

গতকাল রোববারের শিশির ভেজা ভোর যেনো জানান দিলো ধীর পায়ে শীত আসছে। ভোরের আলো ফোটার আগেই প্রকৃতিতে ভর করেছিল ঘন কুয়াশা। চারিদিকে তাই আজ সূর্যের আভা ছড়াইনি। নেমে এসেছে শীতের আমেজ।

কার্তিকের প্রথমে এবার পদ্মাপাড়ের রাজশাহীতে শীতের আবহ তৈরি হয়েছে অনেকটা এমনই। গরম যাই যাই করলেও, শীতের প্রভাব পড়েনি। তবে আজ প্রথম কুয়াশাচ্ছন্ন ভোরে পদধ্বনি পাওয়া যাচ্ছে শীতের। তাহলে কাঁপন ধরা শীত নামবে কবে? আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, ডিসেম্বরের আগে নয়। অর্থাৎ অগ্রহায়ণ পেরিয়ে পৌষ মাস এলেই নামবে কাঁপানো শীত। শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাবে রাজশাহীর ওপর দিয়ে। তবে বিভিন্ন কারণে এবার হেমন্তেই কড়া নাড়ছে শীত। এরইমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে ঘরের সিলিং ফ্যানটি। কংক্রিটের নগরে বন্দি থাকা মানুষগুলোর শরীরে শেষ রাতে উঠেছে কাঁথা।

গ্রামের চিত্র আরও সুশোভিত। পাখিদের ডানা ঝাঁপটানো শব্দ আর কিচিরমিচির ডাকে ঘুম ভাঙছে কৃষকের। আগুনে তপ্ত করা শরীর নিয়ে হালকা কুয়াশা ভেদ করে মাঠে নেমে পড়ছেন কৃষক। গাছিরা কোমরে রশি বেঁধে উঠে পড়ছেন খেজুর গাছে। নামাচ্ছেন মিষ্টি মধুর খেজুরের রস। পুকুরের পানিতে ফুটে থাকা শাপলাগুলো তুলতে দুরন্ত শিশুরা নেমে পড়ছে ঠাণ্ডা পানিতে। ঘরে-ঘরে শুরু হয়ে গেছে নবান্নের প্রস্তুতি, আর পিঠাপুলির আয়োজন।

এদিকে আবহাওয়া অধিদফতরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময় থেকেই এবার পুরোদমে শীত পড়তে শুরু করবে। রাতের তাপমাত্রা ধীরে ধীরে কমতে থাকবে।

এর সঙ্গে দেশের উত্তর, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদী অববাহিকায় ভোরে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। এসময় প্রতিদিন গড়ে সাত থেকে আট ঘণ্টা সূর্যের কিরণকাল থাকতে পারে। তবে ডিসেম্বরের শেষ দিকে দুই-একটি মৃদু অথবা মাঝারি শৈত্যপ্রবাহের প্রভাবে উত্তরাঞ্চলে জেঁকে বসতে পারে শীত।

শৈত্যপ্রবাহে তাপমাত্রা ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসতে পারে। এছাড়া মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে গেলে আরও ২ ডিগ্রি কমে তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলিসয়াসে নেমে আসতে পারে। একইসঙ্গে ঘন কুয়াশাও পড়বে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত আবহাওয়া কর্মকর্তা আবদুল মান্নান বলেন, নভেম্বর মাসে দেশে হাড় কাঁপানো শীত খুব একটা পড়ে না। এর কারণ হচ্ছে সূর্য যত দক্ষিণ গোলার্ধের দিকে যাবে শীতের তীব্রতা ততটাই বাড়তে থাকবে। তাছাড়া দিনের ব্যাপ্তি কমে আসায় সাধারণত ডিসেম্বর মাস থেকেই বাংলাদেশে শীত পড়তে শুরু করে। তবে শীত না পড়লেও রাজশাহীর গড় তাপমাত্রা ৩৩ থেকে ৩১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। গত বৃহস্পতিবার ছিল সর্বোচ্চ ৩২ ও সর্বনিম্ন ২০ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্র। বাতাসের আদ্রতা ছিলো সকাল ছয়টায় ৮২ সন্ধ্যায় ৮৬। গত শুক্রবার সর্বোচ্চ ৩৪ ও সর্বনিম্ন ২১ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। বাতাসের আদ্রতা ছিলো সকাল ছয়টায় ৮১ এবং সন্ধ্যায় ৯৬। শনিবার ছিলো সর্বোচ্চ ২২ দশমিক ৭। গতকাল রোববার সর্বনিম্ন ২২ দশমিক ৬।

অমৃতবাজার/শিহাবুল/শাওন