ঢাকা, রোববার, ২২ এপ্রিল ২০১৮ | ৯ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রাণীনগরের রেলওয়ের ওভার ব্রিজটি যেন মরণ ফাঁদ!


নওগাঁ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ০২:৩৮ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, বৃহস্পতিবার
রাণীনগরের রেলওয়ের ওভার ব্রিজটি যেন মরণ ফাঁদ!

নওগাঁর রাণীনগর রেলওয়ে স্টেশনের নিচু ফুটওভার ব্রিজটি যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। রাতে ট্রেনের ছাদে ভ্রমণ করার সময় এই মরণ ফাঁদ নামক ওভার ব্রিজটির সঙ্গে ধাক্কা লেগে প্রাণ হারাতে হচ্ছে অনেককেই। তবুও দীর্ঘদিন যাবত এই ওভারব্রিজটি সংস্কার করার পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি কর্তৃপক্ষ।

তবে গত মঙ্গলবার রাতে ট্রেনের ৪জন যাত্রী এই ওভারব্রিজটির সঙ্গে ধাক্কা লেগে প্রাণ হারানোর পর টনক নড়েছে কর্তৃপক্ষের। এই মর্মান্তিক প্রাণহানির পর এই ওভারব্রিজটি উচু করাসহ সংস্কার করার আশ্বাস দিয়েছেন রেলওয়ের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এই আশ্বাস বাস্তবায়ন হবে কবে? আরো প্রাণ হারানোর পর নাকি অতিদ্রুত? এই প্রশ্নই এখন এলাকাবাসীর মনে।

জানা গেছে, ট্রেনের ছাদে ভ্রমণকারীরা হচ্ছেন দরিদ্র পরিবারের। তারা জীবিকার তাগিদে ঢাকার বিভিন্ন কারখানায় চাকরি করে। আবার অনেকেই রিকশা চালায়। এছাড়াও বিভিন্ন কর্মের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। আর তারা বাড়িতে ফেরার সময় টাকা ও সময় বাঁচানোর জন্য ট্রেনের ছাদে চড়ে নিজ বাড়িতে ফিরে। তবে রাণীনগর রেল স্টেশনে অবস্থিত এই নিচু ফুটওভার ব্রিজটি দীর্ঘদিন যাবত তেমন কোনো কাজে আসে না বলে জানান স্থানীয়রা। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সময় বিশেষ করে দুই ঈদ ও বিভিন্ন দীর্ঘ ছুটির সময় প্রতিটি ট্রেন ঢাকা থেকে আসে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে। সেই সময় এই ওভারব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে প্রাণহানির ঘটনা নিত্যনৈমেত্রিক বিষয়। তাই আর কোন প্রাণ হানি ঘটার আগেই এলাকাবাসীরা অতি দ্রুত এই ব্রিজটির সংস্কার চান।

রেলওয়ে সূত্রে জানা, গত তিন মাসে রাণীনগরের এই রেলওয়ের নিচু ফুটওভার ব্রিজের ধাক্কায় ট্রেনের ছাদে থাকা পাঁচ জন যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অনেক। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দিনাজপুরগামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন রাণীনগর স্টেশন অতিক্রম করার সময় গত মঙ্গলবার (২০ ফ্রেরুয়ারি) দিবাগত রাত অনুমান ৩.২০ মিনিটের দিকে ট্রেনের ছাদে থাকা চার জন যাত্রী ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে নিচে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই চার জন মারা যায়। এ ঘটনায় আরো চার জন যাত্রী গুরুত্বর আহত হয়। গত বছর ১৫ ডিসেম্বর রাণীনগর রেলওয়ের নিচু ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরের রতন (২৫) নামের একজন মারা যায়।

সান্তাহার রেলওয়ে কর্মকর্তা টিআই আব্দুস সোবাহান জানান, রেললাইন থেকে এই ফুটওভার ব্রিজের উচ্চতা ১৫ ফুট ৩ ইঞ্চি অপরদিকে ট্রেনের উচ্চতা ১৩ ফুট ৬ ইঞ্চি। এই ব্রিজটি অনেক আগের। যখন মানুষ ট্রেনে করে ভ্রমণ করতো খুব কম। তাই এই নিচু ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ছাদে ভ্রমণরত যাত্রী নিহতের ঘটনা মাঝে মধ্যে ঘটেই চলেছে। তাই আমি দ্রুত এই রেলওয়ের নিচু ফুটওভার ব্রিজের উচ্চতা (উঁচু) বাড়ানোর জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে অবগত করবো।

রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোনিয়া বিনতে তাবিব জানান, রাণীনগর রেলওয়ে ফুটওভার ব্রিজের নিচু হওয়ার কারণে মাঝে মধ্যেই ছাদে ভ্রমণরত যাত্রী ফুটওভার ব্রিজের ধাক্কা লেগে নিহতের ঘটনা ঘটেই চলেছে। ফুটওভার ব্রিজের উচ্চতা বৃদ্ধির জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হবে।

পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে পরিবহন কর্মকর্তা শওকত জামিল বলেন, ট্রেনের ছাদে ভ্রমণ অবৈধ। আমরা বরাবর যাত্রীদের ট্রেনের ছাদে ভ্রমণে নিষেধ করি। কিন্তু তারপরও যাত্রীরা সেটা মানতে নারাজ। যেহেতু রাণীনগর স্টেশন রেলওয়ের নিচু ফুটওভার ব্রিজের ধাক্কা লেগে নিহতের ঘটনা ঘটছে আমরা ভবিষ্যতে এই ফুটওভার ব্রিজের উচ্চতা বাড়াবো।

অমৃতবাজার/বাকী/সুজন