ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮ | ৫ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বসন্ত উৎসবে যশোরে সংস্কৃতিপ্রেমীরা মেতেছিল প্রাণের আবেগে


যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১০:০০ পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার
বসন্ত উৎসবে যশোরে সংস্কৃতিপ্রেমীরা মেতেছিল প্রাণের আবেগে

এসেছে ঋতুরাজ বসন্ত। শিমুল আর পলাশ ফুলের চোখ ধাঁধানো রং আর কোকিলের মিষ্টি সুরের সাথে প্রকৃতি সেজেছে নবরূপে। প্রকৃতির মোহনীয় রূপের এ আগমনী বারতা বাঙালির নিজস্ব সার্বজনীন প্রাণের উৎসবে ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন ‘বসন্তবরণ উৎসব’ এখন গোটা বাঙালির কাছে ব্যাপক সমাদৃত হয়েছে।

আর এ উৎসবে সারাদেশের সাথে মেতেছিল সংস্কৃতিপ্রেমী যশোরবাসীও। প্রকৃতির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে নব কল্ললে তরুণ-তরুণী ফাগুনের প্রথম দিনে বসন্তকে বরণ করতে নিজেকেও তারা রাঙিয়েছে নানা রঙে।

‘ওরে গৃহবাসী খোল দ্বার খোল লাগলো যে দোল...’, ‘বসন্তে ফুল গাঁথল...’, ‘বসন্ত এসে গেছে...’ ‘মোর বীণা ওঠে কোন সুরে বাজি...’, ‘ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি যে দান...’, ‘ওরে ভাই, ফাগুন লেগেছে বনে বনে...’, ‘প্রজাপতি প্রজাপতি...’, ‘আহা কি আনন্দ আকাশে বাতাসে...’, ‘মধুর বসন্ত এসেছে মধুর মিলন ঘটাতে মধুর মলয়সমীরে মধুর মিলন রটাতে...’, ‘নবীন বসন্ত আইল নবীন জীবন ফুটাতে’ এমন ধারা বসন্তের গানের সাথে তাল মিলিয়ে যশোরে মঙ্গলবার পৃথক আয়োজনে পৃথক স্থানে যশোরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে বসন্তের নাচ, গান আর কবিতায় এ উৎসব উদযাপন করা হয়।

উদীচী, চাঁদেরহাট, পুনশ্চ, ভৈরব, বিবর্তন মাইকেল মধুসূদন কলেজ শাখা আয়োজন করেছিল বসন্ত উৎসবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। আর এ উৎসবে মেতে উঠেছিল যশোরের সংস্কৃতিপ্রেমী জনতা প্রাণের আবেগে উচ্ছাস, আনন্দ আর উদ্দিপনায়।

প্রকৃতির এ অপরূপ সৌন্দর্যকে বরণ করতে যশোর পৌর উদ্যাণে বর্ণিল আয়োজন করেছে উদীচী যশোর। ‘মিলবো আবার সবার সাথে, ফাল্গুনের এই ফুলে ফুলে’ এমন প্রত্যয় ব্যক্ত করে ঋতুরাজ বসন্তকে স্বাগত জানায় উদীচীর বন্ধুরা। বসন্তের গানে সমবেত কন্ঠে মঙ্গলবার বিকেলে পৌর উদ্যানে গেয়ে ওঠেন উদীচী যশোরের শিল্পীবৃন্দ। শীতের শুষ্কতার অবগুন্ঠন সরিয়ে আর প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যকে বরণ করতে এ উৎসবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বসন্ত নিয়ে লেখা রবীন্দ্র্র সংগীত, নজরুল গীতি, সমবেত আবৃত্তি, লোকগীতি পরিবেশন করেন সংগঠনের শিশু, কিশোর ও জৈষ্ঠ শিল্পীরা। এছাড়া অনুষ্ঠানে শিশু, কিশোর ও বড়দের সমবেত সংগীত, আবৃত্তি, একক ও সমবেত লোক নৃত্য পরিবেশিত হয়।

অনুষ্ঠানে যশোরবাসীকে বসন্ত উৎসবের শুভেচ্ছা জানান যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, প্রবীণ আইনজীবী কাজী আব্দুস শহীদ লাল ও উদীচী যশোরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবুর রহমান মজনু। স্বাগত বক্তব্য দেন উদীচী যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব। শেষে সদ্য প্রয়াত হায়দার আলী চৌধুরী সনুর স্মরণে তাঁকে উৎসর্গ করে সমবেত কণ্ঠে ‘ও আলোর পথের যাত্রী...’, ‘সকাতরে ওই কাঁদিছে...’ এবং ‘আগুনের পরশ মণি...’ সংগীত পরিবেশিত হয়। সঞ্চালনা করেন কাজী শাহেদ নেওয়াজ।

পুনশ্চ যশোর শীতের শুষ্কতা পেরিয়ে ‘বসন্ত উৎসব’ উপলক্ষে পুনশ্চ যশোরও বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ‘বসন্তে সৌরভের শিখা জাগলো’ এমন বারতা দিয়ে বসন্তের প্রথম দিন বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এ উৎসব উদযাপন করা হয়। ঐতিহাসিক টাউন হল ময়দানের শতাব্দী বটমূলে রওশন আলী মঞ্চে ৪টা ৩১ মিনিটে ‘ওরে গৃহবাসী খোল দ্বার খোল...’ সমবেত সংগীতে বসন্ত বরণ উৎসব সূচনা হয়। এরপর রবীন্দ্র, নজরুল, আধুনিক, সহজিয়া গানসহ একক ও সমবেত নৃত্যসহ ৩০টি পরিবেশনা হয়। দ্বৈত কণ্ঠে মৌলী ও সিঁথি রবীন্দ্রসঙ্গীত, মণিষা ও মিথি বাউল গান পরিবেশন করে। এছাড়া একক রবীন্দ্র, নজরুল ও সহজিয়া গান পরিবেশন করেন অর্থি, অঞ্জন, বর্ণ, বসন্ত, লোপা, অনন্যা, কথা, সঞ্চিতা, লাবণ্য, বিনতী, রাহুল, দ্যুতি, রিসা, সজিব, বিদিশা, সায়ন্তনী, লক্ষ্মী, টুটুল, মফিজুল, আনন্দ, প্রত্যাশা, জাহাঙ্গীর, দেবু প্রমুখ। নৃত্য পরিবেশন করে পার্বনী, সিঁথি, শ্রেষ্ঠা, দিশা, শ্রেয়সী, অন্বেষা, তাপসী, ছড়া প্রিয়তা, ভূমি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক পান্না লাল দে।

চাঁদের হাট যশোর এদিন সন্ধ্যায় জেলা পরিষদ চত্বরে আয়োজন করে বসন্তবরণ উৎসব। ‘বসন্ত এলো রে’ শীর্ষক সংগঠনের শিল্পীরা নাচে, গানে আর কবিতায় মুখরিত করে রাখে উৎসবকে।
বসন্তের শুভেচ্ছা জানাতে ছোট্ট আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন যশোর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল। সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. রবিউল আলম। স্বাগত বক্তব্য দেন উৎসব প্রস্তুতি পরিষদের আহবায়ক চাঁদের হাটের উপদেষ্টা বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক।

শুভেচ্ছা পর্ব শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতে সংগঠনের শিল্পীরা ‘ফাগুন হাওয়ায় করেছি যে দান’ গানটি সমবেত কণ্ঠে পরিবেশন করে। প্রায় দুই ঘন্টাব্যাপী নাচে, গানে, আবৃত্তিতে মুখরিত করে রাখে তারা। নৃত্য পরিবেশন করে রূপকথা, নিতু, মহুয়া, সৃজা, জেনি, সুলগ্না, মেঘা, স্নেহা, পায়েল, রাখি ও ফিরোজ। সংগীত পরিবেশন করে অন্তু, রেবা, রিমি, সোমা, বাদল প্রামাণিক, মিতা সরকার, সুমন, বাবু, তুষার, বালাম, ও কুতুবউদ্দীন। আবৃত্তি করেন আসাদুজ্জামান, মুক্তা, মোস্তাফিজ, ফারজানা সাথী ও একঝাঁক ক্ষুদে আবৃত্তিকার। উপস্থাপনায় ছিলেন এসএম আরিফ ও ফারজানা সাথী।

বিবর্তন এমএম কলেজ শাখার উদ্যোগে ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ করতে এদিন সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ প্রাঙ্গণে বিবর্তন এমএম কলেজ শাখার উদ্যোগে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তালেব মিয়া। উপস্থিত ছিলেন উপাধ্যক্ষ প্রফেসর সেখ আবুল কওসার, বিবর্তন এমএম কলেজ শাখা উপদেষ্টা সহযোগী অধ্যাপক জিল্লুল বারী, বিবর্তন যশোরের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল হাসান রিপন প্রমুখ। শোভাযাত্রা শেষে কলেজ ক্যাম্পাসের চেতনায় চিরঞ্জীব ভাস্কর্যের পাদদেশে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

এদিকে ভৈরব যশোরের উদ্যোগে বসন্তের প্রথম দিন সকালে পৌর উদ্যানে ‘রঙে রঙিণ বসন্ত’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু। স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক খাদিজা ইসলাম তন্বি। অনুষ্ঠানে কবিতা, সংগীত ও নৃত্য পরিবেশিত হয়।

অমৃতবাজার/প্রণব/শাওন