ঢাকা, শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮ | ৭ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বেনাপোল দিয়ে ইজতেমায় আসছেন বিদেশী মুসল্লিরা


অমৃতবাজার ডেস্ক

প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ১২ জানুয়ারি ২০১৮, শুক্রবার
বেনাপোল দিয়ে ইজতেমায় আসছেন বিদেশী মুসল্লিরা

টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে অনুষ্ঠানরত ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে যোগ দিতে যশোরের বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসল্লিরা আসছেন। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত এই সীমান্তপথে তিন হাজারেরও দেশী-বিদেশী মুসল্লিরা এসেছেন।

বেনাপোল হয়ে যেসব দেশের মুসল্লিরা আসছেন, সেগুলো হলো- ভারত, নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, নেদারল্যান্ড, জাম্বিয়া, চায়না, কিরঘিজস্থান, তাজিকিস্তান, আজারবাইজান, রাশিয়া, সেনেগাল, ইরান, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, দক্ষিণ আফ্রিকা, জর্দান, মালয়েশিয়া, সুদান, সৌদি আরব, ইয়েমেন, ফ্রান্স, তিউনিশিয়া, ফিজি, ফিলিপিন্স, সোমালিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, ইথিওপিয়া, মরক্কো, মোজাম্বিক, ইউক্রেন, মিশর, বেলজিয়াম, বাইরাইন, কাতার, মালি, নেপাল, থাইল্যান্ড, কেনিয়া, সুইডেন, তুরস্ক এবং ক্যামেরুন।

আখেরি মোনাজাতের আগের দিন পর্যন্ত বিদেশি মুসল্লিদের আগমন অব্যহত থাকতে পারে বলে মনে করছেন বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম।

বিদেশি মুসল্লিদের অভ্যর্থনা জানানো, থাকা-খাওয়া ও ঢাকায় পাঠানোসহ সবকাজ দ্রুততার সঙ্গে করার জন্য ঢাকার কাকরাইল মসজিদের ৮০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বেনাপোলে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদেরকে সহযোগিতা করছেন বেনাপোল চেকপোস্ট জামিয়া আরাবিয়া বাগ-এ-জান্নাত কওমি মাদরাসা ও এতিমখানা কর্তৃপক্ষ। বিদেশি মুসুল্লিদের থাকা-খাওয়ার জন্য এ মাদরাসায় বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এদিকে, ঢাকাগামী যানবাহনের স্বল্পতা এবং কুয়াশার কারণে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বাস যথাসময়ে না পৌঁছানোয় ইজতেমাগামী মুসুল্লিদের পরিবহন সমস্যা দেখা দিয়েছে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসা বিদেশিদের দ্রুততার সঙ্গে ইমিগ্রেশনের কাজ সম্পন্ন করা হচ্ছে। ইজতেমা উপলক্ষে এখানে পৃথক ডেস্ক খোলা হয়েছে। এ জন্য অতিরিক্ত লোকবল নিয়োগ করা হয়েছে’।

বাস স্বল্পতার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বেনাপোলে ঈগল পরিবহনের ম্যানেজার রাশেদুর রহমান বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন মুসুল্লিদের জন্য অতিরিক্ত বাস রিজার্ভ করে তাদের টঙ্গী পাঠাচ্ছি। তবে ঘন কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় সময়মতো বাস ছাড়তে পারছি না’।

অমৃতবাজার/ইকরামুল