ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে সুশাসন ও সাফল্য অব্যাহত


শাহজাহান আলী বিপাশ, ঝিনাইদহ

প্রকাশিত: ১২:৫১ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার | আপডেট: ১২:৫২ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, শনিবার
ঝিনাইদহ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগে সুশাসন ও সাফল্য অব্যাহত ঝিনাইদহ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক ডা. জাহিদ

ঝিনাইদহ জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক ডা. জাহিদ আহমেদের সততা, দক্ষতা ও সময়পোযুগী কর্মনিষ্ঠার কারণে জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের সাফল্য অব্যাহত রয়েছে। সারা বাংলাদেশে যখন সার্বিক প্রজনন হার ২.৩%। তখন ঝিনাইদহ জেলায় সার্বিক প্রজনন হার মাত্র ১.৬। দীর্ঘদিন যাবত ঝিনাইদহে দায়িত্বে থাকার ফলে জেলার পরিবার পরিকল্পনা ঢেলে সাজিয়েছেন তিনি। সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে সমন্বয় করে তিনি এ খাতে সৃংঙ্খল ও সুশাসন নিশ্চিত করেছেন।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ সুত্রে জানা যায়, ডা. জাহিদ আহমেদ ২০১১ সালে ঝিনাইদহ জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের দায়িত্ব নেন। তিনি ঝিনাইদহ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগকে ডিজিটাল সিস্টেমে আনার জন্য নানা উদ্যোগ নিয়েছেন। এই বিভাগের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী কখন কোথায় অবস্থান করছেন। কখন কোন রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছেন তা সব সময় তিনি মনিটরিং করেন।  তার উদ্যোগের ফলে ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ঝিনাইদহ মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্র টাকা ৫ বার খুলনা বিভাগের প্রথম স্থান হয়েছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের মুল্যায়নে ২০১৬ সালে ডা: জাহিদ জেলার শ্রেষ্ট কর্মকর্তা হয়েছেন।

ডাক্তার জাহিদের নেতৃত্বে ঝিনাইদহ পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছেন । এরমধ্যে জাতীয় পর্যায়ে পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমে স্থায়ী ও দীর্ঘ মেয়াদী পদ্ধতির লক্ষমাত্রা ২০% নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু ঝিনাইদহে ইতিমধ্যে ২৩.৩২% অর্জিত হয়েছে। বর্তমানে সারা বাংলাদেশে যখন সার্বিক প্রজনন হার ২.৩%। তখন ঝিনাইদহ জেলায় সার্বিক প্রজনন হার মাত্র ১.৬%। জেলার বিভিন্ন উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কমিটি, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের পরিচালনা কমিটি, স্যাটেলাইট ক্লিনিক পরিচালনা কমিটি গুলো কার্যকর করেছেন। জনবল সংকট থাকা সত্বেও পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচির স্বাভাবিক কার্যক্রমের পাশাপাশি কমিউনিটি ক্লিনিক, ইপিআই, আশ্রয়ন, উঠান বৈঠক, বিদ্যালয় স্বাস্থ্য শিক্ষা অনুষ্ঠানে কর্মীদের শতভাগ অংশগ্রহন নিশ্চিত করেছেন। ক্ষুদ্র উন্নয়ন পরিকল্পনা (কাইয়েন) ও ইনোভেশন প্রকল্পে কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে উৎসাহিত ও সম্পৃক্ত করে প্রতিষ্ঠানিক ডেলিভারী বৃদ্ধি, মা ও শিশু মৃত্যুর হার হ্রাস, স্টোর ব্যবস্থাপনা উন্নয়ন,গর্ভবতী মায়েদের সেবাদান কভারেজ ও উন্নয়ন সাধন করেছেন।

ডা. জাহিদ আহমেদ জানান, ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বের টেকশই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের নির্দেশনায় ঝিনাইদহ জেলার ৬টি উপজেলায় পরিবার পরিকল্পনা মা ও শিশু স্বাস্থ্য, পুষ্টি কার্যক্রমের সুচনা উন্নয়নের লক্ষ্যে তিনি নিরন্তর কাজ করে চলেছেন।

তিনি বলেন, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের অধিন ঝিনাইদহ জেলাকে তিনি মডেল হিসেবে দাড় করাতে চান। ডা: জাহিদ বলেন, তার বাবা ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদ একজন সমাজসেবক, চিকিৎসক। অধিকাংশ সময় তিনি রোগীদের বিনামুল্যে চিকিৎসা সেবা দেন। ঝিনাইদহে তিনি অনেক অবদান রেখেছেন।  ডা: জাহিদ ঝিনাইদহের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

অমৃতবাজার/শাহজাহান/রেজওয়ান

Loading...